kalerkantho

শনিবার ।  ২১ মে ২০২২ । ৭ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯ । ১৯ শাওয়াল ১৪৪৩  

ফিটনেস

কর্মজীবী মহিলাদের আরো কিছু ব্যায়াম

২১ ডিসেম্বর, ২০১৬ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



কর্মজীবী মহিলাদের আরো কিছু ব্যায়াম

কর্মজীবী মহিলাদের শারীরিকভাবে ফিট থাকার কিছু ব্যায়াম আমরা আগেই জেনেছি। আজ জানব আরো কিছু ব্যায়াম। তবে কাঙ্ক্ষিত ফলের জন্য কখনো তাড়াহুড়া করা যাবে না। বিভিন্ন কারণে কাঙ্ক্ষিত লক্ষ্যে পৌঁছতে সময়ের প্রয়োজন হতে পারে।

বিজ্ঞাপন

সে কারণে ধৈর্য ধরতে হবে।

ট্রেডমিলের জাদু : ট্রেডমিলে ১০ মিনিটের ব্যায়ামই যথেষ্ট। অবশ্য এই সময়ে তিন থেকে পাঁচ পাউন্ডের দুটি ডাম্বেল দুই হাতে থাকলে ভালো। এর পরপরই এক মিনিট করে বাইসেপ কার্ল, ট্রিসেপ ও স্ট্যান্ডিং ট্রিসেপ করে নিলে ভালো। এসব অনুশীলন আপনার শরীরের ওপরভাগে স্বাচ্ছন্দ্য আনবে।

পানি পান : শরীরের পরিপাক সঠিক হওয়ার জন্য প্রচুর পানি পান করা প্রয়োজন। নিয়মিত বিরতিতে পানি পান করতে হবে, যাতে শরীর পানিশূন্যতায় না ভোগে।

অতিরিক্ত কিছু না করা : কর্মজীবী মহিলাদের এক ঘণ্টার বেশি অনুশীলন করার কোনো প্রয়োজন নেই। কোনোভাবেই অতিরিক্ত ব্যায়াম করে শরীরের ওপর চাপ সৃষ্টি করা যাবে না, স্বাভাবিক সময়ের চেয়ে বেশি সময় জিমে ব্যয় করা যাবে না। বরং স্বল্প সময়ে আনন্দদায়ক ব্যায়ামে তা উপভোগ্য করে তুলতে হবে।

হৃত্কম্পনের ওপর নজর রাখা : ৭৫ থেকে ৮৫ হওয়াটাই শ্রেয়। এর থেকে কম হলে বুঝতে হবে আপনি সামর্থ্য অনুযায়ী কাজ করছেন না। এর থেকে বেশি হওয়ার অর্থ আপনি সামর্থ্যের তুলনায় বেশি কাজ করছেন। এতে বিপদ হতে পারে। সে কারণে হার্টবিট যেন মারাত্মক পর্যায়ে না পৌঁছয় সেদিকে খেয়াল রাখা উচিত।

সঙ্গীর সঙ্গে কাজ করা : অনেক সময় কাজ করতে করতে একঘেয়েমি আসতে পারে। এমন হলে সেরা বন্ধুর সঙ্গ নেওয়া যেতে পারে। সঙ্গীদের সঙ্গে কাজ করা আনন্দায়ক হতে পারে।

ফলের জন্য তাড়াহুড়া না করা : অনুশীলন শেষে কাঙ্ক্ষিত ফলের জন্য কখনো তাড়াহুড়া করা যাবে না। বিভিন্ন কারণে কাঙ্ক্ষিত লক্ষ্যে পৌঁছতে দেরি হতে পারে। সে কারণে ধৈর্য ধরতে হবে।



সাতদিনের সেরা