kalerkantho

বুধবার । ১৬ অক্টোবর ২০১৯। ১ কাতির্ক ১৪২৬। ১৬ সফর ১৪৪১       

চট্টগ্রামে শিক্ষিকা অঞ্জলি খুন

মাদ্রাসার সাবেক শিক্ষক গ্রেপ্তারের পর রিমান্ডে

নিজস্ব প্রতিবেদক, চট্টগ্রাম   

১৫ জুন, ২০১৫ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



চট্টগ্রাম নার্সিং কলেজের জ্যেষ্ঠ শিক্ষিকা অঞ্জলি রানী দেবী হত্যাকাণ্ডে জড়িত সন্দেহে একজনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। গত শনিবার দিবাগত রাতে গ্রেপ্তারের পর এই ব্যক্তিকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য গতকাল রবিবার পাঁচ দিনের হেফাজতে নিয়েছে পুলিশ।

গ্রেপ্তারকৃত ব্যক্তির নাম মো. রেজা (৪৮)। তিনি জেলার পটিয়া উপজেলার পটিয়া আল জামেয়া আল ইসলামিয়া মাদ্রাসার সাবেক শিক্ষক ও ভূসম্পত্তি কর্মকর্তা। নার্সিং কলেজে ছাত্রীদের হিজাব পরা নিয়ে আন্দোলনের সময় শিক্ষিকা অঞ্জলি দেবীর ভূমিকার কারণে এই রেজা তাঁকে আইনি নোটিশ দিয়েছিলেন।

নগরের জিইসি মোড় এলাকা থেকে তাঁকে গ্রেপ্তার করে পুলিশের গোয়েন্দা শাখা (ডিবি)। রেজাকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ১২ দিনের হেফাজত (রিমান্ড) চেয়ে গতকাল দুপুরে চট্টগ্রাম মহানগর হাকিম আদালতে সোপর্দ করে পুলিশ। শুনানি শেষে পাঁচ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন মহানগর হাকিম রহমত আলী।

নগর পুলিশের অতিরিক্ত উপকমিশনার (প্রসিকিউশন) কাজী মুক্তাকী ইবনু মিনান কালের কণ্ঠকে এই তথ্য নিশ্চিত করেছেন। তিনি বলেন, অঞ্জলি হত্যা মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা কেশব চক্রবর্তী আসামিকে জিজ্ঞাসাবাদের রিমান্ড আবেদন করেছিলেন।

নগর পুলিশের গোয়েন্দা শাখার অতিরিক্ত উপকমিশনার এস এম তানভীর আরাফাত বলেন, শিক্ষিকা অঞ্জলি হত্যা মামলায় জড়িত সন্দেহে মো. রেজাকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। তাঁকে জিজ্ঞাসাবাদ করলে হত্যাকাণ্ড সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্য পাওয়া যাবে বলে আশা করছেন তাঁরা।

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা কেশব চক্রবর্তী জানান, গত ১০ জানুয়ারি সকালে বাসা থেকে কর্মস্থল নার্সিং কলেজে যাওয়ার পথে পাঁচলাইশ থানাধীন তেলিপট্টি লেইন এলাকায় দুর্বৃত্তরা কুপিয়ে হত্যা করে অঞ্জলি রানীকে। এই ঘটনায় দায়ের করা মামলাটি তদন্তের দায়িত্ব দেওয়া হয় নগর পুলিশের গোয়েন্দা শাখাকে।

হত্যাকাণ্ডের ছয় মাস পেরিয়ে গেলেও পুলিশ হত্যা রহস্য উন্মোচন করতে পারেনি। এর মধ্যে দফায় দফায় পুলিশের পক্ষ থেকে সন্দেহ প্রকাশ করা হয়েছে, কোনো জঙ্গি সংগঠন অঞ্জলি দেবীকে হত্যা করে থাকতে পারে। এর কারণ ব্যাখ্যা করতে গিয়ে পুলিশ কর্মকর্তারা জানিয়েছিলেন, নার্সিং কলেজে শিক্ষার্থীদের হিজাব পরা নিয়ে আন্দোলন হয়েছিল। ওই সময় অঞ্জলি দেবীর ভূমিকার কারণে তিনি জঙ্গি সংগঠনের টার্গেট হয়ে থাকতে পারেন।

উল্লেখ্য, ২০১২ সালের জুলাই মাসে নার্সিং কলেজ কর্তৃপক্ষ ছাত্রীদের প্রাতিষ্ঠানিক বিধি অনুযায়ী পোশাক পরার বাধ্যবাধকতা জারি করে। এর বিরুদ্ধে অন্তত ৫০ জন ছাত্রী বিক্ষোভ করে এবং তারা হিজাব পরার অনুমতি দাবি করে।

সম্প্রতি দেশে কয়েকজন ব্লগার খুন হওয়ার পরও পুলিশ জোরালোভাবে দাবি করে আসছিল, অঞ্জলি হত্যাকাণ্ডের নেপথ্যে জঙ্গি সংগঠন থাকতে পারে। কিন্তু গত ছয় মাসে কাউকে গ্রেপ্তার করতে পারেনি পুলিশ। গতকাল পুলিশের মহাপরিদর্শক (আইজি) এ কে এম শহিদুল হকের চট্টগ্রাম সফরের দিন ভোরেই পুলিশ অঞ্জলি হত্যা মামলার আসামি মো. রেজাকে গ্রেপ্তারের ঘোষণা দেয়।

রেজাকে কেন সন্দেহের আওতায় আনা হলো জানতে চাইলে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা গোয়েন্দা পুলিশের পরিদর্শক কেশব চক্রবর্তী কালের কণ্ঠকে বলেন, হত্যাকাণ্ডের পর থেকেই রেজা পলাতক ছিলেন। এ ছাড়া তাঁর মোবাইল ফোনের ব্যবহারসহ অন্য কিছু কার্যক্রম বিবেচনায় এনে অঞ্জলি হত্যাকাণ্ডে তাঁর জড়িত থাকার ব্যাপারে সন্দেহ করা হয়।

নগর গোয়েন্দা পুলিশের একজন দায়িত্বশীল কর্মকর্তা জানিয়েছেন, নার্সিং কলেজে হিজাব পরা নিয়ে আন্দোলনের সময় এই রেজা একটি উকিল নোটিশ পাঠিয়েছিলেন শিক্ষিকা অঞ্জলি দেবীকে। এই ঘটনার অনেক দিন পর অঞ্জলি দেবী খুন হন। এখন পুলিশ খতিয়ে দেখতে চাইছে, আইনি নোটিশ পাঠানোর ক্ষোভ পরবর্তী সময়ে খুন পর্যন্ত গড়িয়েছে কি না।

 

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা