kalerkantho

শনিবার । ২৫ মে ২০১৯। ১১ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬। ১৯ রমজান ১৪৪০

রাষ্ট্রপতির কাছে নতুন কানাডীয় দূতের পরিচয় পেশ

সরকারের সঙ্গে অংশীদারির ভিত্তিতে কাজ করার আশ্বাস

কূটনৈতিক প্রতিবেদক   

৩ ফেব্রুয়ারি, ২০১৫ ০০:০০ | পড়া যাবে ৪ মিনিটে



বাংলাদেশ ও কানাডা-উভয় রাষ্ট্রের সমৃদ্ধি নিশ্চিত করতে এ দেশের জনগণ ও সরকারের সঙ্গে অংশীদারির ভিত্তিতে কাজ করার আশ্বাস দিয়েছেন ঢাকায় নতুন কানাডীয় হাইকমিশনার বিনেট-পিয়েরে লারমে। গতকাল সোমবার বঙ্গভবনে রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদের কাছে পরিচয়পত্র পেশ করার পর আলোচনায় তিনি এ কথা জানান। কানাডীয় হাইকমিশনার মন্তব্য করেন, মানবাধিকারের প্রতি সম্মান প্রদর্শন, গণতন্ত্র, শান্তি, স্থিতিশীলতা ও সুশাসনের ওপর ভিত্তি করে অর্থনৈতিক ও সামাজিক উন্নয়ন সাধিত হয়। ঢাকায় কানাডীয় হাইকমিশন এ কথা জানায়।

হাইকমিশনার লারমে বলেন, বাংলাদেশের অব্যাহত অগ্রগতি উৎসাহব্যঞ্জক। এ অগ্রগতিতে কানাডার ভূমিকায় তিনি গর্বিত।

কানাডীয় হাইকমিশন জানায়, বাংলাদেশের সঙ্গে কানাডার উন্নয়ন অংশীদারি অত্যন্ত জোরালো। ১৯৭২ সাল থেকে দেশটি বাংলাদেশকে ৪০০ কোটিরও বেশি কানাডীয় ডলার দিয়েছে। বাণিজ্য খাতেও উল্লেখযোগ্য অগ্রগতি হয়েছে। ২০০৪ সাল থেকে বাণিজ্যের পরিমাণ ছয়গুণ বেড়ে ১৮০ কোটি কানাডীয় ডলারে উন্নীত হয়েছে। বাংলাদেশি রপ্তানি পণ্যের বড় অংশ কানাডার বাজারে শুল্কমুক্ত প্রবেশাধিকার পেয়ে আসছে।

হাইকমিশনার জানান, বাংলাদেশিদের আতিথেয়তা ও আন্তরিকতায় তিনি অভিভূত। বাংলাদেশ ও এ দেশের জনগণ সম্পর্কে তিনি আরো জানতে আগ্রহী। বাংলাদেশে ব্যবসা পরিবেশ উন্নয়ন নিশ্চিত করতে তাঁর দেশ কাজ করে যাচ্ছে।

বিনেট-পিয়েরে লারমের স্ত্রী ক্রিস্টিয়ানি গিরোক্স এ সময় উপস্থিত ছিলেন। হাইকমিশনার লারমে সর্বশেষ ক্যামেরুনে কানাডীয় হাইকমিশনার হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন।

এদিকে বার্তা সংস্থা ইউএনবি জানায়, কানাডার নতুন হাইকমিশনারকে স্বাগত জানিয়ে রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ আশা প্রকাশ করেন, তাঁর মেয়াদে দুই দেশের সম্পর্ক নতুন উচ্চতায় পৌঁছাবে। বাংলাদেশের ভাষা শহীদদের স্মরণে টরন্টোতে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা স্মৃতিসৌধ স্থাপনে কানাডার পার্লামেন্ট সদস্য ম্যাথু ক্যালওয়ে প্রস্তাব দিয়েছেন শুনে রাষ্ট্রপতি উচ্ছ্বাস প্রকাশ করেন। ঢাকায় আসার পর মুক্তিযুদ্ধ জাদুঘর ও বঙ্গবন্ধু স্মৃতি জাদুঘর পরিদর্শনের অভিজ্ঞতা হাইকমিশনার রাষ্ট্রপতির কাছে তুলে ধরেন।

চীনের রাষ্ট্রদূতের পরিচয়পত্র পেশ, কাল যুক্তরাষ্ট্রের : এদিকে পৃথক অনুষ্ঠানে ঢাকায় চীনের নতুন রাষ্ট্রদূত ম মিংকিয়াং গতকাল সোমবার বঙ্গভবনে রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদের কাছে পরিচয়পত্র পেশ করেন। রাষ্ট্রপতির প্রেসসচিব ইহসানুল করিমের বরাত দিয়ে ইউএনবি জানায়, বাংলাদেশে বিভিন্ন বড় উন্নয়ন প্রকল্পে অব্যাহত সাহায্য ও সহযোগিতার জন্য রাষ্ট্রপতি চীনা রাষ্ট্রদূতকে ধন্যবাদ জানান। বাণিজ্য ঘাটতি দূর করতে বাংলাদেশ থেকে বেশি পরিমাণে পাট ও পাটজাত পণ্য আমদানির বিষয়ে চীন সরকারের আশ্বাসের প্রশংসা করেন রাষ্ট্রপতি। মিয়ানমারের ভেতর দিয়ে বাংলাদেশ চীনের সঙ্গে সড়কপথে সরাসরি যোগাযোগ স্থাপনের অপেক্ষায় আছে বলে তিনি জানান। চীনা রাষ্ট্রদূতকেও পিজিআরের চৌকস দল গার্ড অব অনার প্রদান করে।

কূটনৈতিক সূত্রগুলো জানায়, আগামীকাল বুধবার বিকেলে যুক্তরাষ্ট্রের নতুন রাষ্ট্রদূত (মনোনীত) মার্শিয়া স্টিফেন্স ব্লুম বার্নিকাট বঙ্গভবনে রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদের কাছে পরিচয়পত্র পেশ করবেন। এর মধ্য দিয়ে তিনি বাংলাদেশে আনুষ্ঠানিকভাবে দায়িত্ব পালন শুরু করবেন।

কানাডা, চীন ও যুক্তরাষ্ট্রের নতুন দূতরা গত মাসে ঢাকায় এসেছেন। কূটনৈতিক শিষ্টাচার অনুযায়ী, ঢাকায় পৌঁছার পর ওই দূতাবাসগুলো রাষ্ট্রপতির কাছে পরিচয়পত্র পেশ করার সময় চেয়েছে। অতীতে বিভিন্ন সময় বিদেশি দূতরা ঢাকায় পৌঁছে রাষ্ট্রপতির কাছে পরিচয়পত্র পেশ করার আগেই গণমাধ্যমের সঙ্গে কথা বললেও এবার পরিবর্তিত পরিস্থিতিতে ওই দেশগুলো শিষ্টাচার মেনে চলছে। ঢাকার পক্ষ থেকেও এ শিষ্টাচার মেনে চলার বিষয়ে তাগিদ দেওয়া হচ্ছে।

তিনটি বিলে রাষ্ট্রপতির সম্মতি জ্ঞাপন

রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ জাতীয় সংসদের পঞ্চম (২০১৫ সালের প্রথম) অধিবেশনে জাতীয় সংসদ কর্তৃক গৃহীত তিনটি বিলে গতকাল সোমবার তাঁর সদয় সম্মতি জ্ঞাপন করেছেন।

সংসদ সচিবালয়ের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, বিল তিনটি হচ্ছে-মেট্রো রেল বিল, ২০১৫; বাংলাদেশ জ্বালানি ও বিদ্যুৎ গবেষণা কাউন্সিল, ২০১৫ এবং বিদ্যুৎ ও জ্বালানির দ্রুত সরবরাহ বৃদ্ধি (বিশেষ বিধান) (সংশোধন) বিল, ২০১৫। সূত্র : বাসস।

 

মন্তব্য