kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ৬ অক্টোবর ২০২২ । ২১ আশ্বিন ১৪২৯ ।  ৯ রবিউল আউয়াল ১৪৪৪

চট্টগ্রামে পররাষ্ট্রমন্ত্রী

ভারতকে বলেছি শেখ হাসিনাকে টিকিয়ে রাখতে হবে

নিজস্ব প্রতিবেদক, চট্টগ্রাম   

১৯ আগস্ট, ২০২২ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



ভারতকে বলেছি শেখ হাসিনাকে টিকিয়ে রাখতে হবে

‘আমি ভারতে গিয়ে যেটি বলেছি যে শেখ হাসিনাকে টিকিয়ে রাখতে হবে। আজকে অনেকের বক্তব্যে সেটি এসেছে, শেখ হাসিনা আমাদের আদর্শ। আর তাঁকে টিকিয়ে রাখতে পারলে আমাদের দেশ উন্নয়নের দিকে যাবে এবং সত্যিকারের সাম্প্রদায়িকতামুক্ত অসাম্প্রদায়িক একটা দেশ হবে। সে জন্য শেখ হাসিনাকে টিকিয়ে রাখার জন্য যা যা করা দরকার, আমি ভারতবর্ষের সরকারকে সেটা অনুরোধ করেছি।

বিজ্ঞাপন

গতকাল বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় চট্টগ্রাম নগরের জে এম সেন হল মাঠে শ্রীশ্রী জন্মাষ্টমী উপলক্ষে আয়োজিত অনুষ্ঠানে ‘সংখ্যালঘু নির্যাতনের অভিযোগ’ প্রসঙ্গে এক প্রশ্নের জবাবে কথা বলতে গিয়ে পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আব্দুল মোমেন এসব কথা বলেন। তিনি বলেন, গণমাধ্যমে তাঁর যে বক্তব্য এসেছে তা ‘ফুলিয়ে-ফাঁপিয়ে টুইস্ট করে’ প্রচার করা হয়েছে।

এ সময় তিনি ভারতে দেওয়া নিজের বক্তব্যের ব্যাখ্যা দেন। প্রধান অতিথির বক্তব্যে পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, এক বছর আগে পূজার সময়

কুমিল্লায় একটি মূর্তির কাছে কোরআন শরিফ রেখে একটা ছবি তোলে। ওটা ভাইরাল হয়। ভাইরাল হওয়ার পর কিছু মৌলবাদী গোষ্ঠী ওখানে আক্রমণ করে। আক্রমণ থামাতে গিয়ে পুলিশ গুলি করে। তিনি বলেন, ‘তখন আমাদের মন্ত্রণালয় যেসব কথা বলেছে, সত্য কথা বলেছে। আমি শিক্ষক লোক, সত্য কথা বলি। শ্রীকৃষ্ণ সত্য কথাই বলতেন। ’

এর আগে কেন্দ্রীয় জন্মাষ্টমী উদযাপন পরিষদের সাবেক সভাপতি অ্যাডভোকেট চন্দন তালুকদার তাঁর বক্তব্যে গত বছর দুর্গাপূজায় চট্টগ্রামসহ বিভিন্ন এলাকার মঠ-মন্দিরে হামলার প্রসঙ্গ তুলে দেশে কোনো সংখ্যালঘু নির্যাতন হয়নি বলে পররাষ্ট্রমন্ত্রীর ওই বক্তব্যের ব্যাখ্যা চান।

কালো পতাকা মিছিল

গতকাল সন্ধ্যায় যখন জে এম সেন হল মাঠে জন্মাষ্টমী উদযাপন পরিষদের অনুষ্ঠান চলছিল, তার কাছাকাছি দূরত্বে চেরাগী পাহাড় মোড়ে দেশে সংখ্যালঘু নির্যাতন নিয়ে পররাষ্ট্রমন্ত্রীর ‘মিথ্যাচারের’ প্রতিবাদে সমাবেশ ও কালো পতাকা মিছিল করা হয়। এতে নেতৃত্ব দেন বাংলাদেশ হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদের সভাপতি ও মানবতাবিরোধী অপরাধ ট্রাইব্যুনালের প্রসিকিউটর রানা দাশ গুপ্ত।

 

 

 



সাতদিনের সেরা