kalerkantho

শুক্রবার । ৭ অক্টোবর ২০২২ । ২২ আশ্বিন ১৪২৯ ।  ১০ রবিউল আউয়াল ১৪৪৪

ভোজ্য তেলের দাম সমন্বয়ের প্রস্তাব মিল মালিকদের

নিজস্ব প্রতিবেদক   

৮ আগস্ট, ২০২২ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



ভোজ্য তেলের দাম সমন্বয়ের প্রস্তাব মিল মালিকদের

টাকার বিপরীতে ক্রমাগত মার্কিন ডলারের দাম বাড়ায় ভোজ্য তেলের আমদানি মূল্য বেড়েছে। এ কারণে দাম সমন্বয়ের নতুন প্রস্তাব দিয়েছে মিল মালিকদের সংগঠন বাংলাদেশ ভেজিটেবল অয়েল রিফাইনার্স অ্যান্ড বনস্পতি ম্যানুফ্যাকচারার্স অ্যাসোসিয়েশন।

গতকাল রবিবার বাংলাদেশ ট্রেড অ্যান্ড ট্যারিফ কমিশন ও ভোজ্য তেল মালিকদের সংগঠন সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে। দাম বাড়ানোর এ প্রস্তাব গত বুধবার বাংলাদেশ ট্রেড অ্যান্ড ট্যারিফ কমিশনকে (বিটিটিসি) দিয়েছে সংগঠনটি।

বিজ্ঞাপন

প্রস্তাবে প্রতি লিটার খোলা সয়াবিন তেলের দাম ১৮০ টাকা, এক লিটারের বোতল ২০৫ টাকা এবং পাঁচ লিটারের বোতল ৯৬০ টাকা করার কথা বলা হয়েছে।

চলতি বছর বোতলজাত সয়াবিন তেল সর্বোচ্চ প্রতি লিটার ২০৫ টাকায় বিক্রি হয়েছিল। সম্প্রতি তা দুই দফায় ২০ টাকা কমিয়েছে তেল কম্পানিগুলো। এর মধ্যে সর্বশেষ গত ২১ জুলাই লিটারে ১৪ টাকা কমিয়ে প্রতি লিটার বোতলজাত সয়াবিন তেলের দাম ১৮৫ টাকা নির্ধারণ করে দেয় সরকার। খোলা সয়াবিন তেলের দামও লিটারে ১৪ টাকা কমিয়ে ১৬৬ টাকা নির্ধারণ করা হয়।

ওই সময় বাণিজ্য মন্ত্রণালয় জানিয়েছিল, আন্তর্জাতিক বাজারে ভোজ্য তেলের দাম কমায় দেশের বাজারে দাম কমানোর সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। যদিও এর কোনো প্রভাব পড়েনি বাজারে। ভোক্তাদের বেশি দামেই তেল কিনতে হচ্ছে।

ট্যারিফ কমিশনের তথ্যানুযায়ী, দেশে বছরে প্রায় ২০ লাখ টন ভোজ্য তেলের চাহিদা রয়েছে। এর মধ্যে প্রায় ১৮ লাখ টন আমদানি করা হয়।

বাংলাদেশ ব্যাংকের তথ্য মতে, ২০২১-২২ অর্থবছরে দেশে প্রায় পাঁচ লাখ ১৫ হাজার টন অপরিশোধিত সয়াবিন তেল আমদানি করা হয়। আগের অর্থবছরের চেয়ে ৭৫ হাজার টন কম আমদানি হয়েছে ২০২১-২২ অর্থবছরে।

 



সাতদিনের সেরা