kalerkantho

শুক্রবার ।  ২০ মে ২০২২ । ৬ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯ । ১৮ শাওয়াল ১৪৪৩  

বাণিজ্য মেলা

ছুটির দিনে উপচে পড়া ভিড়

রূপগঞ্জ (নারায়ণগঞ্জ) প্রতিনিধি   

২২ জানুয়ারি, ২০২২ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



ছুটির দিনে উপচে পড়া ভিড়

রাজধানীর পূর্বাচলে ঢাকা আন্তর্জাতিক বাণিজ্য মেলায় গতকাল ছুটির দিনে ছিল উপচে পড়া ভিড়। ছবি : কালের কণ্ঠ

রাজধানীর পূর্বাচলে ঢাকা আন্তর্জাতিক বাণিজ্য মেলায় গতকাল শুক্রবার ক্রেতা-দর্শনার্থীদের পদচারণে মুখর ছিল। ছুটির দিন হওয়ায় অনেকে পরিবার-পরিজন নিয়ে মেলায় এসেছে। ঘোরাঘুরির পাশাপাশি কেনাকাটাও করেছে। অনেক ক্রেতা আবার পছন্দের পণ্যটির দরদাম জেনে পরে কেনার প্রস্তুতি নিচ্ছে।

বিজ্ঞাপন

মেলায় প্রসাধনী আর গৃহস্থালি সামগ্রীর স্টলে ছিল ক্রেতাদের বেশি ভিড়। বিক্রেতারাও ব্যস্ত সময় পার করেছেন।

তবে মেলায় করোনার স্বাস্থ্যবিধি ছিল উপেক্ষিত। বেশির ভাগ দর্শনার্থীর মুখে মাস্ক ছিল না। যাদের ছিল তা-ও থুঁতনিতে। স্টলগুলোর কর্মীদেরও একই অবস্থা। ছুটির দিনে বেশি লোক সমাগম হওয়ায় ৩০০ ফুট সড়ক ও এশিয়ান হাইওয়ে বাইপাস সড়কে তীব্র যানজট সৃষ্টি হয়েছে। এতে ভোগান্তিতে পড়ে মেলায় আশা দর্শনার্থীরা।

মেলায় আসা শিক্ষার্থী ফাইজা ফাতিমা অভিযোগ করে বলেন, ‘মেলায় আসতে পরিবহনগুলো তিন থেকে চার গুণ বেশি ভাড়া নিচ্ছে। এ ব্যাপারে মেলা কর্তৃপক্ষ ও প্রশাসনের নজরদারি দাবি করছি। ’

মেলায় স্বাস্থ্যবিধি না মানার বিষয়ে কাঞ্চন পৌর এলাকার বাসিন্দা রুবেল হোসেন বলেন, করোনা ও ওমিক্রন প্রতিরোধে সরকারের ১১টি বিধি-নিষেধ যেন শুধু নির্দেশনা। মেলার কোথাও কোনো নির্দেশনা মানতে কাউকে দেখা যায়নি।

অন্যদিকে মেলায় আসা খলিল সিকদার অভিযোগের সুরে বলেন, দর্শনার্থীরা কেউ মাস্ক পরছে না। আবার মেলায় প্রবেশে টিকিট পেতে দীর্ঘ লাইনে হয়রানির শিকার হতে হচ্ছে। যাতায়াত পথে সিএনজিগুলো তিন-চার গুণ বেশি ভাড়া নিচ্ছে।

কাঞ্চন এলাকার সিএনজিচালক রুহুল আমিন বলেন, ‘মহাসড়কে চলতে হলে ট্রাফিক পুলিশের নামে লাইনম্যানকে টাকা দিতে হয়। এতে অতিরিক্ত খরচ হয়। এই খরচ তুলতে যাত্রীদের কাছ থেকে কিছুটা বেশি ভাড়া আদায় করতে বাধ্য হচ্ছি। ’

তবে কাঞ্চন টোল এলাকায় দায়িত্বরত ট্রাফিক ইন্সপেক্টর জহিরুল ইসলাম বলেন, ট্রাফিকের কোনো সদস্য কোনো পরিবহন থেকে টাকা নেয় না।

রপ্তানি উন্নয়ন ব্যুরোর (ইপিবির) ভাইস চেয়ারম্যান এ এইচ এম

আহসান কালের কণ্ঠকে বলেন, স্বাস্থ্যবিধি মেনেই বাণিজ্য মেলা চালু থাকবে। আমরা মেলায় স্বাস্থ্যবিধি মানতে প্রচার চালাচ্ছি। মাস্ক ছাড়া কাউকে মেলায় প্রবেশ করতে দেওয়া হচ্ছে না। প্রবেশের পর অনেক দর্শনার্থী মাস্ক খুলে ফেলছে। করোনা প্রতিরোধে সাধারণ মানুষকে আরো বেশি সচেতন হতে হবে।



সাতদিনের সেরা