kalerkantho

সোমবার । ৩ মাঘ ১৪২৮। ১৭ জানুয়ারি ২০২২। ১৩ জমাদিউস সানি ১৪৪৩

ঈশ্বরদীতে নির্বাচন-পরবর্তী সহিংসতায় আহত ২৫

ঈশ্বরদী (পাবনা) প্রতিনিধি   

২ ডিসেম্বর, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ৫ মিনিটে



ঈশ্বরদীতে নির্বাচন-পরবর্তী সহিংসতায় আহত ২৫

পাবনার ঈশ্বরদীতে ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) নির্বাচন-পরবর্তী সহিংসতায় কমপক্ষে ২৫ জন আহত হয়েছে। গত মঙ্গলবার রাত সাড়ে ৮টার দিকে লক্ষ্মীকুণ্ডা ইউনিয়নের কামালপুর চরাঞ্চলে শামসুল আলম স্বপনের পক্ষের লোকজন এবং কামাল, আসাদুল ও তরিকুল প্রামাণিকের পক্ষের লোকজনের মধ্যে এই সহিংসতার ঘটনা ঘটে।

এ সময় উভয় পক্ষ একে অন্যের ব্যবসাপ্রতিষ্ঠানে হামলা, লুটপাট, বাড়িতে গিয়ে ধারালো অস্ত্র দিয়ে হামলা এবং গোলাগুলির ঘটনা ঘটায়। আহত ২৫ জনের মধ্যে ঢাকা, রাজশাহী ও পাবনার বিভিন্ন হাসপাতালে ১০ জনকে ভর্তি করা হয়েছে। তাদের মধ্যে পাঁচজনের অবস্থা আশঙ্কাজনক।

স্থানীয় একটি চরের জমি দখল নিয়ে বিরোধ এবং নৌকার প্রার্থীর পক্ষে কাজ না করা নিয়ে ওই সহিংসতার ঘটনা ঘটে বলে স্থানীয় লোকজন জানিয়েছে।

সরেজমিনে গিয়ে আওয়ামী লীগের স্থানীয় নেতা, জনপ্রতিনিধি ও বাসিন্দাদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, ঈশ্বরদী সহকারী কমিশনার (ভূমি) কার্যালয় থেকে অনুমতি নিয়ে লক্ষ্মীকুণ্ডা ইউনিয়নের কয়েক হাজার বিঘা সরকারি খাসজমিতে চরের মানুষ চাষাবাদ করত। চলতি বছরের শুরুর দিকে পাবনা-৪ (ঈশ্বরদী-আটঘরিয়া) আসনের সংসদ সদস্য নুরুজ্জামান বিশ্বাসের ছেলে তৌহিদুল ইসলাম ওই খাসজমি মাত্র ১৭ লাখ টাকায় ইজারা পান। ভূমি কার্যালয়ে প্রভাব খাটিয়ে সংসদ সদস্য তাঁর ছেলেকে ওই ইজারা পাইয়ে দেন বলে অভিযোগ রয়েছে। এরপর যুবলীগের স্থানীয় নেতা শামসুল আলম স্বপন প্রায় কোটি টাকা দিয়ে ওই জমির দায়িত্ব নিয়ে অনেক লোকের কাছে তা ইজারা দেন। এ নিয়ে শামসুল আলম স্বপনের সঙ্গে আওয়ামী লীগের স্থানীয় নেতা কামাল হোসেন, আসাদুল ও তরিকুল প্রামাণিকের বিরোধ ছিল।

গত রবিবার অনুষ্ঠিত নির্বাচনে শামসুল আলমের পক্ষে থাকা লোকজনের বিরুদ্ধে লক্ষ্মীকুণ্ডা ইউপির আওয়ামী লীগের প্রার্থী সাবেক ভূমিমন্ত্রী প্রয়াত শামসুর রহমান শরীফের ছোট ভাই আনিস উর রহমান শরীফের পক্ষে কাজ না করার অভিযোগ ওঠে। পাশাপাশি তারা নির্বাচনে লক্ষ্মীকুণ্ডা ইউপির ৮ নম্বর ওয়ার্ডের প্রার্থী আসাদুল প্রামাণিক এবং ৯ নম্বর ওয়ার্ডের প্রার্থী তরিকুল ইসলাম প্রামাণিকের বিরুদ্ধে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করা প্রার্থীদের পক্ষে কাজ করে। নির্বাচনে আসাদুল ও তরিকুল দুজনই নির্বাচিত হন। এর পরদিন সোমবার  সকালে কামাল হোসেন, আসাদুল ও তরিকুল প্রামাণিকের নেতৃত্বে মিছিল বের হয়। মিছিল থেকে স্বপনের সমর্থক শাহজামালসহ কয়েকজনের ব্যবসাপ্রতিষ্ঠানে হামলা চালিয়ে ভাঙচুর ও লুটপাট চালানো হয়। এ ঘটনায় উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে। মঙ্গলবার সকালে দুই পক্ষ সশস্ত্র অবস্থায় মুখোমুখি অবস্থান নেয়। খবর পেয়ে পুলিশ দ্রুত ঘটনাস্থলে আসে। রাত ৮টার দিকে পুলিশ ঘটনাস্থল ত্যাগ করার পরপরই উভয় পক্ষ আগ্নেয়াস্ত্র ও ধারালো অস্ত্র নিয়ে একে অন্যের ওপর ঝাঁপিয়ে পড়ে। দুই পক্ষের মধ্যে ব্যাপক গোলাগুলি হয়। এক ঘণ্টা ধরে চলে এ সহিংসতা। ধারালো অস্ত্রের আঘাতে ও গুলিবিদ্ধ হয়ে উভয় পক্ষের ২৫ জন আহত হয়। খবর পেয়ে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (ঈশ্বরদী সার্কেল) মো. ফিরোজ কবির ও অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (অপরাধ) মো. মাসুদ আলমের নেতৃত্বে পুলিশের বিশাল একটি দল ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে।

শামসুল আলম স্বপন মুঠোফোনে কালের কণ্ঠকে বলেন, তাঁরা সবাই আওয়ামী লীগ পরিবারের সন্তান। দলের বিভিন্ন পদে দায়িত্বরত রয়েছেন। নির্বাচনে নৌকার প্রার্থী আনিস উর রহমান শরীফের পক্ষে কাজ করার পাশাপাশি তাঁদের কেউ কেউ সদস্য পদের প্রার্থীদের পক্ষে কাজ করেছেন। এ ঘটনায় রংচং মাখিয়ে তাঁদের লোকজনের ব্যবসাপ্রতিষ্ঠান, ঘরবাড়িতে হামলা চালিয়েছে। কুপিয়ে ও গুলিবিদ্ধ করে নারী, পুরুষসহ অন্তত ১৫ জনকে গুরুতর জখম করেছে। তাদের মধ্যে কয়েকজনের অবস্থা আশঙ্কাজনক।

কামাল হোসেন, আসাদুল ও মেম্বার তরিকুল প্রামাণিকের সঙ্গে যোগাযোগ করা সম্ভব হয়নি। ঈশ্বরদী থানার ওসি মো. আসাদুজ্জামান মুঠোফোনে কালের কণ্ঠকে জানান, ওই দুই পক্ষের মধ্যে দীর্ঘদিন ধরে বিরোধ চলে আসছিল। তার জের ধরে নির্বাচন ঘিরে দুই পক্ষ সহিংসতায় জড়িয়ে পড়ে। এতে আগ্নেয়াস্ত্র ব্যবহারের প্রমাণ পাওয়া গেছে। পুুলিশ ঘটনাস্থলে অবস্থান নিয়েছে। পরিস্থিতি বর্তমানে নিয়ন্ত্রণে রয়েছে। দুই পক্ষের কেউ থানায় এখনো অভিযোগ দেয়নি। কাউকেই আটক করা সম্ভব হয়নি।

ঠাকুরগাঁওয়ের পীরগঞ্জে গ্রেপ্তার আতঙ্কে পুরুষরা গ্রামছাড়া : ঠাকুরগাঁওয়ের পীরগঞ্জ উপজেলার ঘিডোব ইউনিয়নে নির্বাচনী সহিংসতার ঘটনায় পুলিশের করা মামলায় গ্রেপ্তার আতঙ্কে গাঢাকা দিয়েছে বেশির ভাগ পুরুষ। গত ২৮ নভেম্বর ওই সহিংসতার ঘটনার ঘটে। পরদিন অজ্ঞাতনামা ৭০০ গ্রামবাসীর নামে পুলিশ মামলা করায় গ্রেপ্তার আতঙ্কে পালিয়ে বেড়াচ্ছে ঘিডোবসহ আশপাশের গ্রামের কয়েক হাজার পুরুষ।

নবনির্বাচিত ইউপি সদস্যের ভাতিজার রগ কাটা লাশ : দিনাজপুরের নবাবগঞ্জ উপজেলার নলশীসা নদীর পার থেকে মো. সৌরভ (২৩) নামের এক তরুণের লাশ পায়ের রগ কাটা অবস্থায় উদ্ধার করেছে পুলিশ। জয়পুর ইউনিয়নের চামুণ্ডাই গ্রামের পাশে ওই নদীর পার থেকে বুধবার সকাল সাড়ে ১০টায় লাশটি উদ্ধার করা হয়। সৌরভ ১ নম্বর জয়পুর ইউপির ৭ নম্বর ওয়ার্ডের নবনির্বাচিত ইউপি সদস্য মো. সানোয়ার হোসেনের ভাতিজা এবং ওই গ্রামের মো. আনোয়ার হোসেনের ছেলে। তিনি উপজেলার আফতাবগঞ্জ ডিগ্রি কলেজের এইচএসসি পরীক্ষার্থী ছিলেন। গতকাল বিকেলে নবাবগঞ্জ থানার ওসি ফেরদৌস ওয়াহিদ জানান, লাশের বিভিন্ন স্থানে আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। এ ঘটনায় এখনো কেউ কোনো অভিযোগ দেয়নি।



সাতদিনের সেরা