kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ১৩ মাঘ ১৪২৮। ২৭ জানুয়ারি ২০২২। ২৩ জমাদিউস সানি ১৪৪৩

সবিশেষ

প্রাকৃতিকভাবে এইচআইভি নেগেটিভ!

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

১৭ নভেম্বর, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



প্রাকৃতিকভাবে এইচআইভি নেগেটিভ!

এইচআইভি পজিটিভ হওয়া মানেই একরকম মৃত্যুদণ্ড পাওয়া—এমনটাই ভাবা হয়। তবে আজকাল অ্যান্টিরেট্রোভাইরাল থেরাপির (এআরটি) মাধ্যমে এইচআইভি পজিটিভ অনেকেই তুলনামূলকভাবে স্বাভাবিক জীবন যাপন করতে পারছেন। এ রোগ পুরোপুরি নিরাময় এখনো সম্ভব হয়নি। তবে সেই অসম্ভবকে সম্ভব করতে জোর চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন গবেষকরা।

বিজ্ঞাপন

যুক্তরাষ্ট্রের ম্যাসাচুসেটসের একদল গবেষক সম্প্রতি এমন একজন রোগীর সন্ধান পেয়েছেন যিনি অ্যান্টিভাইরাল চিকিৎসা বা অস্থিমজ্জা প্রতিস্থাপন ছাড়াই এইচআইভি সংক্রমণকে সম্পূর্ণরূপে পরাজিত করেছেন। এই নিয়ে দ্বিতীয়বার এমন রোগীর সন্ধান পাওয়া গেল। গবেষকরা বলেছেন, তাঁদের এই অনুসন্ধান মারণঘাতী এ রোগটি থেকে পুরোপুরি পরিত্রাণে একটি উপায় হয়তো দেখাতে পারবেন।

এইচআইভি নিয়ে গবেষণাকারীদের কাছে এ ধরনের রোগীরা এলিট কন্ট্রোলার বা ‘অভিজাত নিয়ন্ত্রক’ হিসেবে পরিচিত। তাঁদের নিয়ে গবেষকদের বিশেষ আগ্রহের কারণ হচ্ছে, এই রোগীদের এমন ধরনের ইমিউন সিস্টেম আছে, যা ওষুধ ব্যবহার না করেই ভাইরাসটিকে স্বাভাবিকভাবে নিয়ন্ত্রণে রাখতে পারে। ওষুধ সাধারণত ভাইরাসটিকে নিয়ন্ত্রণ করতে দেওয়া হয়। তবে এই ‘অভিজাত নিয়ন্ত্রক’ স্বাভাবিকভাবেই এটি করতে সক্ষম বলে মনে হয়।

যুক্তরাষ্ট্রের ম্যাসাচুসেটস জেনারেল হসপিটাল, ম্যাসাচুসেটস ইনস্টিটিউট অব টেকনোলজি এবং হার্ভার্ড ইউনিভার্সিটির গবেষকদের নিয়ে র‌্যাগন ইনস্টিটিউট এইচআইভি নিয়ে গবেষণা করে আসছে। যে রোগীর কথা বলা হচ্ছে তিনি সাত বছর ধরে এইচআইভি শরীরে নিয়ে বেঁচে আছেন। গবেষকরা তাঁর কাছ থেকে সংগ্রহ করা ২০০ কোটি রক্তকোষ এবং টিস্যু পরীক্ষা করে তাঁকে সম্পূর্ণরূপে নিরাময় ঘোষণা করেন।

ফোনে সংবাদমাধ্যম গিজমোডোর সঙ্গে কথা বলার সময় র‌্যাগন ইনস্টিটিউটের গবেষক জু ইউ বলেন, ‘এই দুটি ক্ষেত্রের উদাহরণ সত্যিই নির্দেশ করে যে এইচআইভি সংক্রমণ নিরাময়ের জন্য আমাদের বর্তমান প্রচেষ্টাগুলো সফলতার খুব কাছাকাছি।

ভাইরাসে প্রাকৃতিক প্রতিরোধ ক্ষমতা কিভাবে কাজ করে তা যদি আমরা শিখি, তাহলে আমরা এটি নিরাময় করতে সক্ষম হব। সূত্র : গিজমোডো।



সাতদিনের সেরা