kalerkantho

মঙ্গলবার । ২৭ বৈশাখ ১৪২৮। ১০ মে ২০২১। ২৭ রমজান ১৪৪২

বাজেটে রেমিট্যান্সে প্রণোদনা বাড়ছে

বরাদ্দ রাখা হচ্ছে চার হাজার কোটি টাকা

সজীব হোম রায়   

৪ মে, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে




বাজেটে রেমিট্যান্সে প্রণোদনা বাড়ছে

দেশের অর্থনীতি চাঙ্গা রাখার ক্ষেত্রে রেমিট্যান্সযোদ্ধাদের অবদান অনেক। আগামী জাতীয় বাজেটে তাঁদের সুখবর দিতে যাচ্ছে সরকার। বৈধ উপায়ে দেশে টাকা পাঠালেই তাঁদের ৩ শতাংশ প্রণোদনা দেওয়ার চিন্তা-ভাবনা করা হচ্ছে। সে ক্ষেত্রে আগামী অর্থবছরে এই প্রণোদনা খাতে বরাদ্দ প্রায় এক হাজার কোটি বাড়িয়ে চার হাজার কোটি টাকা করা হতে পারে। অর্থ মন্ত্রণালয় সূত্রে এসব তথ্য জানা গেছে।

অর্থ মন্ত্রণালয়ের বাজেটসংশ্লিষ্ট এক কর্মকর্তা নাম প্রকাশ না করার অনুরোধ জানিয়ে কালের কণ্ঠকে বলেন, বৈধ পথে রেমিট্যান্স পাঠানোকে আরো উৎসাহী করতে সরকার এই খাতে প্রণোদনা বাড়ানোর চিন্তা-ভাবনা করছে। বাজেটে এ বিষয়ে দিকনির্দেশনা থাকতে পারে।

সূত্র মতে, করোনা মহামারি শুরুর পর অর্থনীতির প্রায় প্রতিটি সূচক ছিল নিম্নমুখী। একমাত্র উড়ন্ত গতি রয়েছে প্রবাসী আয়ে। চলতি অর্থবছরেও প্রবাসী আয়ে নতুন নতুন রেকর্ড হচ্ছে। চলতি অর্থবছরের ১০ মাসে এক লাখ ৭৩ হাজার ৮২৪ কোটি ৭৮ লাখ ৯০ হাজার টাকার বেশি রেমিট্যান্স পাঠিয়েছেন প্রবাসীরা। এটি গত অর্থবছরের চেয়ে প্রায় ৩৯ শতাংশ বেশি। সর্বশেষ গত এপ্রিল মাসেও দেশে রেকর্ড পরিমাণ ১৭ হাজার ৫৫২ কোটি ছয় লাখ ৪০ হাজার ৬০০ টাকা বা ২০৭ কোটি ডলারের রেমিট্যান্স এসেছে।

২০২০ সালেও রেমিট্যান্স আহরণে রেকর্ড গড়ে বাংলাদেশ। গত বছর এক লাখ ৮৪ হাজার ৩৩৯ কোটি ছয় লাখ ৮৯ হাজার ২০০ টাকা পাঠিয়েছেন প্রবাসী রেমিট্যান্সযোদ্ধারা। মূলত রেমিট্যান্সে উড়ন্ত গতির সূচনা হয় গত অর্থবছরে। দেশে রেমিট্যান্স পাঠানোর ক্ষেত্রে ২০১৯-২০ অর্থবছরে সরকার

সর্বপ্রথম ২ শতাংশ নগদ প্রণোদনা ঘোষণা করে। এই প্রণোদনার কারণেই বৈধ পথে রেমিট্যান্সে রেকর্ডের বন্যা বয়ে যাচ্ছে। এ কারণে চলতি ২০২০-২১ অর্থবছরের বাজেটেও এই খাতে ২ শতাংশ নগদ প্রণোদনা বহাল রাখা হয়েছে।

সরকার মনে করছে, প্রণোদনার পরিমাণ বাড়ালে রেমিট্যান্সের গতি আরো বাড়বে। সে জন্য আগামী অর্থবছরে সরকার এই প্রণোদনার পরিমাণ আরো ১ শতাংশ বাড়াতে পারে। সে ক্ষেত্রে প্রণোদনার পরিমাণ হবে ৩ শতাংশ। অর্থাৎ বৈধ পথে রেমিট্যান্স পাঠালেই ৩ শতাংশ প্রণোদনা পাবেন প্রবাসী রেমিট্যান্সযোদ্ধারা। করোনা মহামারির মধ্যে অর্থনীতিতে বিশাল অবদান রাখার পুরস্কারস্বরূপ এই প্রণোদনা বাড়ানোর ঘোষণা দেওয়া হতে পারে বাজেটে। অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল বাজেট বত্তৃদ্ধতায় এ ব্যাপারে বিস্তারিত ঘোষণা দিতে পারেন। প্রসঙ্গত, দেশের অনেক ব্যাংকই বর্তমানে প্রবাসীদের ২ শতাংশের সঙ্গে ১ শতাংশ যোগ করে ৩ শতাংশ প্রণোদনা দেয়।

বিগত ২০১৯-২০ অর্থবছরে রেমিট্যান্সে ২ শতাংশ প্রণোদনার জন্য সরকার তিন হাজার ৬০ কোটি টাকা বরাদ্দ রেখেছিল। চলতি বাজেটেও একই পরিমাণ বরাদ্দ রাখা আছে। আগামী বাজেটে রেমিট্যান্স প্রণোদনা ৩ শতাংশ করার জন্য এই খাতে বরাদ্দ বাড়ানো হচ্ছে। ২০২১-২২ অর্থবছরের বাজেটে এই খাতে বরাদ্দ রাখা হতে পারে চার হাজার কোটি টাকা। সে হিসাবে বরাদ্দ বাড়ছে ৯৪০ কোটি টাকা।

 



সাতদিনের সেরা