kalerkantho

বুধবার । ৫ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৮। ১৯ মে ২০২১। ৬ শাওয়াল ১৪৪

কৃষ্ণাঙ্গ জর্জ ফ্লয়েড হত্যা

পুলিশকর্তা শভিন দোষী সাব্যস্ত

পুলিশের গুলিতে আরেক কৃষ্ণাঙ্গ নিহত

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

২২ এপ্রিল, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ৫ মিনিটে



পুলিশকর্তা শভিন দোষী সাব্যস্ত

যুক্তরাষ্ট্রের মিনিয়াপোলিসের সড়কে কৃষ্ণাঙ্গ জর্জ ফ্লয়েড হত্যার ঘটনায় সাবেক পুলিশ কর্মকর্তা ডেরেক শভিনকে দোষী সাব্যস্ত করেছেন আদালত। তিন সপ্তাহ ধরে বিচার কার্যক্রম চলার পর গত মঙ্গলবার জুরি প্যানেল রায় ঘোষণা করেন। এই রায়ে পৌঁছতে জুরিরা পুরো এক দিন সময় নেন।

শভিনকে তিনটি অভিযোগে দোষী সাব্যস্ত করা হয়েছে। সেগুলো হলো সেকেন্ড ডিগ্রি মার্ডার, থার্ড ডিগ্রি মার্ডার ও নরহত্যা। শাস্তি ঘোষণা না করা পর্যন্ত তিনি পুলিশি হেফাজতে থাকবেন। সাজা হিসেবে কয়েক দশক জেল খাটতে হতে পারে তাঁকে।

গত বছর মে মাসে জাল নোট ব্যবহারের অভিযোগে গ্রেপ্তারের পর ফ্লয়েডের ঘাড়ে শভিনের (৪৫) হাঁটু গেড়ে বসে থাকার ৯ মিনিটের ভিডিও সারা বিশ্বে সমালোচনার ঝড় তোলে। সে সময় ফ্লয়েড বারবারই ‘আমি নিঃশ্বাস নিতে পারছি না’ বলে আকুতি জানালেও তা মন গলাতে পারেনি তাঁকে আটক করা পুলিশ কর্মকর্তার। ওই ঘটনায় ফ্লয়েডের মৃত্যুর পর বর্ণবাদ ও পুলিশের অতিরিক্ত শক্তি ব্যবহারের বিরুদ্ধে শুরু হওয়া ‘ব্ল্যাক লাইভস ম্যাটার’ আন্দোলন যুক্তরাষ্ট্র হয়ে বিশ্বজুড়ে ছড়িয়ে পড়ে। ফ্লয়েড হত্যার রায় ঘোষণার পর উৎসবমুখর পরিবেশের সৃষ্টি হয়। আদালতের বাইরে জড়ো হওয়া কয়েক শ মানুষ রায়ে উচ্ছ্বাস  প্রকাশ করে। ফ্লয়েড পরিবারের আইনজীবী বেন ক্রাম্প বলেন, এই রায় যুক্তরাষ্ট্রের ইতিহাসে মোড় ঘুরিয়ে দেওয়ার মতো একটি ঘটনা। কষ্ট দিয়ে অর্জিত ন্যায়বিচার অবশেষে হাতে এলো। আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীরও যে জবাবদিহি থাকা দরকার, সেটিই এই রায়ের মাধ্যমে পাওয়া গেল।

রায় ঘোষণার পরপরই ফ্লয়েড পরিবারকে টেলিফোন করেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন ও ভাইস প্রেসিডেন্ট কমলা হ্যারিস। বাইডেন বলেন, ‘অবশেষে ন্যায়বিচার হলো। আমাদের আরো অনেক কিছু করতে হবে। পদ্ধতিগত বর্ণবাদের বিরুদ্ধে এটি ছিল প্রথম পদক্ষেপ।’

এরই মধ্যে হ্যারিস আইন প্রণেতাদের জর্জ ফ্লয়েড নামে একটি বিল পাসের নির্দেশ দিয়েছেন, যা যুক্তরাষ্ট্রের পুলিশিং ব্যবস্থায় সংস্কার আনবে। তিনি বলেন, ‘এই বিল জর্জ ফ্লয়েডের লিগ্যাসির অংশ। এটি দীর্ঘদিন ধরে সম্পন্ন হওয়ার অপেক্ষায় ছিল।’

রায় ঘোষণার পর মানুষ চিৎকার করে উচ্ছ্বাস প্রকাশ করছিল। ২১ বছর বয়সী কেনেথ নয়াচি বলেন, ‘মিনিয়াপোলিসে আজ একটি শুভ দিন। এটি একটি আশীর্বাদ।’

অধিকারকর্মীরা বলছেন, ন্যায়বিচার সাধিত হয়েছে এবং তাঁদের কাঁধ থেকে একটি বোঝা নেমে গেছে।

মামলাসংক্রান্ত নথি থেকে জানা গেছে, ২০২০ সালের ২৫ মে মিনিয়াপোলিসের একটি দোকান থেকে এক প্যাকেট সিগারেট কিনেছিলেন ৪৬ বছর বয়সী জর্জ ফ্লয়েড। দোকানের এক কর্মী মনে করেছিলেন যে ফ্লয়েড ২০ ডলার মূল্যের একটি নকল বিল ব্যবহার করছিলেন। এ সময় ফ্লয়েড সিগারেটের প্যাকেটটি ফেরত দিতে না চাইলে দোকানকর্মী পুলিশ ডাকেন। সেখানে পুলিশ পৌঁছার পর তারা ফ্লয়েডকে পার্ক করে রাখা গাড়ি থেকে নামতে বলে। হাতকড়া পরিয়ে পুলিশের গাড়িতে তোলার সময় ফ্লয়েড চিৎকার করার চেষ্টা করলে ধস্তাধস্তি হয়। তারা তাঁকে জোর করে মাটিতে ফেলে দেহের ওজন দিয়ে চেপে ধরে।

শভিন তাঁর হাঁটু ফ্লয়েডের ঘাড়ের ওপর ৯ মিনিট ধরে চেপে বসে থাকেন। এ সময় ফ্লয়েড অন্তত কুড়িবার বলেছিলেন যে তিনি শ্বাস নিতে পারছেন না। যখন অ্যাম্বুল্যান্স এসে পৌঁছে ততক্ষণে ফ্লয়েড নিথর হয়ে গেছেন। এর এক ঘণ্টা পর তাঁকে মৃত ঘোষণা করা হয়।

পুলিশি হেফাজতে মৃত্যুর ঘটনায় পুলিশ কর্মকর্তাদের দোষী সাব্যস্ত হওয়ার ঘটনা বিরল। এমনকি তাঁদের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠনের ঘটনাও কম। তবে ভবিষ্যতে এ ধরনের ঘটনা মার্কিন বিচারব্যবস্থা কিভাবে নেবে, তার একটি উদাহরণ হিসেবে এই রায়কে দেখা হচ্ছে।

পুলিশের গুলিতে আরেক কৃষ্ণাঙ্গ নিহত

এদিকে ফ্লয়েড হত্যার রায় ঘোষণার আধাঘণ্টা আগে যুক্তরাজ্যের ওহাইও অঙ্গরাজ্যে পুলিশের গুলিতে আরেক কৃষ্ণাঙ্গ নিহত হওয়ার ঘটনা ঘটেছে। অঙ্গরাজ্যটির বৃহৎ শহর কলম্বাসে এ ঘটনা ঘটেছে বলে কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে। এ ঘটনায় পুলিশের ভূমিকার প্রতিবাদে কলম্বাসের রাস্তায় বিক্ষোভ হয়েছে।

কলম্বাসে গুলির ঘটনার কয়েক ঘণ্টা পর পুলিশ সদস্যের শরীরে লাগানো ভিডিও ক্যামেরার ফুটেজ প্রকাশ করে শহরটির অন্তর্বর্তীকালীন পুলিশপ্রধান মাইকেল উডস জানান, শহরের দক্ষিণ-পূর্ব অংশের একটি বাড়িতে ছুরিকাঘাতের চেষ্টার খবর পেয়ে পুলিশ কর্মকর্তারা ঘটনাস্থলে ছুটে যান এবং ঘটনাস্থলে পৌঁছার পর তাঁরা বাড়িটির সামনের প্রাঙ্গণে বিশৃঙ্খল পরিস্থিতি দেখতে পান।

ভিডিও ফুটেজে পুলিশ সদস্যরা গাড়ি থেকে নামার পর ছুরি হাতে থাকা এক কিশোরীর তাড়া খেয়ে এক নারীকে পড়ে যেতে দেখা যায়। এরপর কৃষ্ণাঙ্গ কিশোরী আরেক নারীকে ধাওয়া করে; ওই নারী ড্রাইভওয়েতে রাখা একটি গাড়ির সঙ্গে ধাক্কা খাওয়ার পর কিশোরী ছুরি তুললে পুলিশ সঙ্গে সঙ্গে গুলি চালায়।

কলম্বাসের অন্তর্বর্তীকালীন পুলিশপ্রধান বলেছেন, ‘স্বচ্ছতার স্বার্থেই’ তাঁরা ছুরিকাঘাত করার চেষ্টার ভিডিওটি ঘটনার কয়েক ঘণ্টার মধ্যে প্রকাশ করেছেন। ওহাইও ব্যুরো অব ক্রিমিনাল ইনভেস্টিগেশন এ ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে। সূত্র : বিবিসি, এএফপি।



সাতদিনের সেরা