kalerkantho

শুক্রবার । ৪ আষাঢ় ১৪২৮। ১৮ জুন ২০২১। ৬ জিলকদ ১৪৪২

চলে গেলেন জনকণ্ঠ সম্পাদক আতিকউল্লাহ খান

নিজস্ব প্রতিবেদক   

২৩ মার্চ, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ৪ মিনিটে



চলে গেলেন জনকণ্ঠ সম্পাদক আতিকউল্লাহ খান

দৈনিক জনকণ্ঠের সম্পাদক, মুদ্রাকর ও প্রকাশক মোহাম্মদ আতিকউল্লাহ খান মাসুদ আর নেই। গতকাল সোমবার ভোরে তিনি ইন্তেকাল করেন (ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন)। তাঁর মৃত্যুর মধ্য দিয়ে একজন মুক্তিযোদ্ধা ও পত্রিকার সম্পাদককে হারাল দেশ। রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা জনকণ্ঠ সম্পাদকের মৃত্যুতে পৃথক শোক জানিয়েছেন। এ ছাড়া বসুন্ধরা গ্রুপের চেয়ারম্যানসহ দেশের গুরুত্বপূর্ণ রাজনৈতিক দল ও ব্যক্তি, ব্যবসায়ী, গণমাধ্যমসংশ্লিষ্ট ব্যক্তি এবং বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষ তাঁর মৃত্যুতে শোক জানিয়েছেন।

গতকাল ভোরে শ্বাসকষ্টজনিত সমস্যা দেখা দেওয়ার পর আতিকউল্লাহ খান মাসুদকে রাজধানীর এভারকেয়ার হাসপাতালে নেওয়া হলে চিকিৎসকরা মৃত ঘোষণা করেন। তাঁর বয়স হয়েছিল ৭০ বছর। তিনি স্ত্রী, দুই ছেলে ও নাতি-নাতনি রেখে গেছেন।

গতকাল আতিকউল্লাহ খান মাসুদের আত্মীয় আজাদ সোলায়মান জানান, দুই ছেলের একজন বিদেশে থাকায় আতিকউল্লাহ খান মাসুদের মরদেহ শাহবাগে একটি হাসপাতালের হিমঘরে রাখা হয়েছে। ছেলে দেশে ফেরার পর মিরপুরে শহীদ বুদ্ধিজীবী কবরস্থানে তাঁকে সমাহিত করার পরিকল্পনা করা হয়েছে। আতিকউল্লাহ খান মাসুদ গ্লোব জনকণ্ঠ শিল্প পরিবারের প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান। তিনি ১৯৯৩ সালে দৈনিক জনকণ্ঠ প্রকাশ করেন। শুরুতে পত্রিকাটি বেশ সাড়া ফেলে।

আতিকউল্লাহ খান মাসুদ ১৯৫১ সালের ২৯ আগস্ট মুন্সীগঞ্জের মেদিনীমণ্ডল গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। তিনি ১৯৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধে ২ নম্বর সেক্টরে যুদ্ধ করেন। কলেজজীবনেই তিনি ব্যবসায় যুক্ত হন। তৎকালীন পূর্ব পাকিস্তান থেকে পান সংগ্রহ করে পশ্চিম পাকিস্তানে বিক্রি করে বেশ লাভের মুখ দেখেন এবং পুঁজি সঞ্চয় করেন। দেশ স্বাধীন হওয়ার পর তিনি বড় ব্যবসায়ী হিসেবে আত্মপ্রকাশ করেন। তাঁর গড়া গ্লোব জনকণ্ঠ শিল্প পরিবার এখন নির্মাণ, আবাসন, কৃষি, প্রযুক্তি, ওষুধ, কেবল, মেটাল কমপ্লেক্স, প্রকাশনাসহ বিভিন্ন খাতে ব্যবসা বিস্তৃত করেছে।

আতিকউল্লাহ খান মাসুদ আলোচিত এক-এগারোর সময়ে যৌথ বাহিনীর হাতে গ্রেপ্তার হন। বিভিন্ন মামলায় বিচারে তাঁর ৪৮ বছরের কারাদণ্ডও হয়। ২০০৯ সালে আওয়ামী লীগ সরকার গঠন করলে মামলাগুলো থেকে অব্যাহতি পান তিনি।

বসুন্ধরা পরিবারের শোক : দৈনিক জনকণ্ঠের সম্পাদক, মুদ্রাকর, প্রকাশক এবং গ্লোব জনকণ্ঠ শিল্প পরিবারের চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা মোহাম্মদ আতিকউল্লাহ খান মাসুদের মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ করেছেন বসুন্ধরা গ্রুপের চেয়ারম্যান আহমেদ আকবর সোবহান। বসুন্ধরা পরিবারের পক্ষ থেকে তিনি ওই শোক প্রকাশ করেন।

শোকবার্তায় তিনি বলেন, মোহাম্মদ আতিকউল্লাহ খান মাসুদ দীর্ঘ সময় সাহসিকতার সঙ্গে দেশের অন্যতম জনপ্রিয় দৈনিক জনকণ্ঠ সম্পাদনার দায়িত্ব পালন করেছেন। সংবাদপত্র প্রকাশনার জগতে মোহাম্মদ আতিকউল্লাহ খান মাসুদ যুক্ত করেছেন নতুন মাত্রা। তাঁর মৃত্যুতে দেশ সাম্প্রদায়িকতার বিরুদ্ধে সোচ্চার একজন বীর মুক্তিযোদ্ধাকে হারাল। তিনি এই প্রজন্মের সংগঠক ও উদ্যোক্তাদের অনুপ্রেরণা হিসেবে চিরকাল বেঁচে থাকবেন।

বসুন্ধরা গ্রুপের চেয়ারম্যান তাঁর শোকবার্তায় আতিকউল্লাহ খান মাসুদের রুহের মাগফিরাত কামনা করেন এবং শোকসন্তপ্ত পরিবারের প্রতি গভীর সমবেদনা জানান।

বিভিন্ন মহলের শোক : সংসদ সদস্য ও ব্যবসায়ী সালমান এফ রহমান এক শোকবার্তায় বলেন, ‘তিনি ছিলেন স্বাধীনতার সপক্ষের শক্তির বাতিঘর। তাঁর প্রকাশিত পত্রিকাটি সব সময়ই স্বাধীনতাবিরোধীদের বিপক্ষে সরব ছিল।’

বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রী ওবায়দুল কাদের, পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রী শাহাব উদ্দিন, জাতীয় প্রেস ক্লাবের সভাপতি ফরিদা ইয়াসমিন ও সাধারণ সম্পাদক ইলিয়াস খান পৃথক শোকবার্তায় আতিকউল্লাহ খান মাসুদের মৃত্যুতে শোক জানিয়েছেন।

নোয়াবের শোক : দৈনিক জনকণ্ঠের সম্পাদক, মুদ্রাকর ও প্রকাশক আতিকউল্লাহ খান মাসুদের মৃত্যুতে গভীর শোক ও দুঃখ প্রকাশ করেছেন নিউজপেপার ওনার্স অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশের (নোয়াব) সভাপতি এ কে আজাদ।

এক শোকবার্তায় নোয়াবের সভাপতি সম্পাদক আতিকউল্লাহ খান মাসুদের শোকসন্তপ্ত পরিবারের সদস্য এবং জনকণ্ঠ পরিবারের প্রতি গভীর সমবেদনা জানান। একই সঙ্গে তাঁর বিদেহী আত্মার মাগফিরাত কামনা করেন তিনি।

 



সাতদিনের সেরা