kalerkantho

বুধবার । ৮ বৈশাখ ১৪২৮। ২১ এপ্রিল ২০২১। ৮ রমজান ১৪৪২

মুখোমুখি

ইসিকে অপদস্থ করছেন মাহবুব তালুকদার

সিইসি নুরুল হুদা বললেন

নিজস্ব প্রতিবেদক   

৩ মার্চ, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



ইসিকে অপদস্থ করছেন মাহবুব তালুকদার

বর্তমান নির্বাচন কমিশনকে (ইসি) হেয়, অপদস্থ ও নিচে নামানোর জন্য যা যা করা দরকার, নির্বাচন কমিশনার মাহবুব তালুকদার সবই করে চলেছেন বলে মন্তব্য করেছেন প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কে এম নুরুল হুদা। ব্যক্তিগত স্বার্থে ও উদ্দেশ্যপ্রণোদিতভাবে তিনি কমিশনকে হেয় করছেন বলেও সিইসি মাহবুব তালুকদারের কঠোর সমালোচনা করেন।

গতকাল মঙ্গলবার ‘জাতীয় ভোটার দিবস’ উপলক্ষে নির্বাচন ভবনে আয়োজিত আলোচনাসভায় মাহবুব তালুকদার তাঁর বক্তৃতায় নির্বাচনের নানা অসংগতির কথা তুলে ধরে বক্তব্য দেন। তাঁর বক্তব্যে ক্ষোভ প্রকাশ করে একই অনুষ্ঠানে এসব কথা বলেন সিইসি।

নির্বাচনে অনিয়ম নিয়ে এর আগেও খোলামেলা কথা বলেছেন মাহবুব তালুকদার। নির্বাচন কমিশন থেকেও যথাসম্ভব ব্যাখ্যা দেওয়ার চেষ্টা করা হয়েছে। কিন্তু একই মঞ্চে বসে নুরুল হুদা ও মাহবুব তালুকদারের মধ্যে পাল্টাপাল্টি এমন বক্তব্য খুব একটা দেখা যায়নি।

নির্বাচন ভবন মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত ওই আলোচনাসভায় চারজন নির্বাচন কমিশনার, ইসি সচিব, অতিরিক্ত সচিব, জাতীয় পরিচয়পত্র (এনআইডি) শাখার মহাপরিচালক এবং প্রকল্প পরিচালক উপস্থিত ছিলেন।

এর আগে ২০১৭ সালের ১৬ জুলাই ৩৩ জন নির্বাচন কর্মকর্তাকে বদলি নিয়ে মাহাবুব তালুকদারের অফিশিয়াল (ইউও) নোটের পরিপ্রেক্ষিতে সৃষ্ট বিতর্কে তাঁর প্রতি প্রকাশ্যে সিইসির ক্ষোভ জানানোর ঘটনা ঘটে। সেদিন নির্বাচনী রোডম্যাপ বা কর্মপরিকল্পনা প্রকাশ অনুষ্ঠানে বিষয়টি সম্পর্কে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে সিইসি উত্তেজিতভাবে বলেন, ‘এসব মাহাবুব তালুকদারের প্রডাক্ট। তিনি আমাদের উত্যক্ত করছেন।’ গতকাল মাহবুব তালুকদারের বক্তব্য প্রসঙ্গে সিইসি বলেন, ‘ইভিএমে যে ৮৫ শতাংশ ভোট পড়েছে তা তিনি দেখেননি। যেখানে ৬০-৭০ শতাংশ ভোট পড়েছে তা-ও তিনি দেখেননি। তা কোনো দিনও তিনি বলবেন না। তিনি বলেছেন, বলবেন। আর একটা বছর আছে—তিনি বলতে থাকবেন, ধরে নিই।...নির্বাচন কমিশনের যেখানে যতটুকু ভুলত্রুটি, একটা পুরনো কাগজপত্র ঘেঁটেঘুটে কোথাও থেকে, ডাস্টবিন থেকে একটা, ওখান থেকে একটা জোড়াতালি দিয়ে ভুলত্রুটি বের করা সম্ভব।’

মাহবুব তালুকদার ভবিষ্যতে বই লেখার কাজে নানা তথ্য-উপাত্ত সংগ্রহ করছেন উল্লেখ করে সিইসি বলেন, ‘দেশের নির্বাচন কমিশনের স্বার্থে তিনি কাজ করেন না। ব্যক্তিস্বার্থে ও একটা উদ্দেশ্য সাধন করার জন্য এ কমিশনকে অপদস্থ করার জন্য যখন যতটুকু করা দরকার, ততটুকু করেছেন উনি।’

নুরুল হুদা বলেন, ‘এ নির্বাচন কমিশনে তিনি (মাহবুব তালূকদার) যোগ দেওয়ার পর যতগুলো সভা হয়েছে সব সময় এটা করেছেন। ভেবেছিলাম ভোটার দিবস হিসেবে তিনি কিছু বলবেন। কিন্তু তিনি রাজনৈতিক বক্তব্য দিলেন। ইসিকে কতখানি হেয় করা যায়, কতখানি নিচে নামানো যায়, অপদস্থ করা যায়, তা তিনি করে চলেছেন।’

নির্বাচন কমিশনার হিসেবে স্বাধীনভাবে মাহবুব তালুকদার কাজ করতে পারেন বলেও জানান সিইসি।

 

 

মন্তব্য