kalerkantho

সোমবার । ৬ বৈশাখ ১৪২৮। ১৯ এপ্রিল ২০২১। ৬ রমজান ১৪৪২

চাঁদাবাজিতে বন্ধ ট্রাক, খাদ্য সংকটে ব্যাহত রেশনিং

দীঘিনালা (খাগড়াছড়ি) প্রতিনিধি   

২ মার্চ, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



চাঁদাবাজিতে বন্ধ ট্রাক, খাদ্য সংকটে ব্যাহত রেশনিং

পাহাড়ে সরকারি খাদ্যশস্য পরিবহনে চাঁদাবাজি ও হয়রানিতে অতিষ্ঠ হয়ে পরিবহন বন্ধ করে দিয়েছেন ট্রাকচালকরা। এতে খাগড়াছড়ির পাঁচটি ও রাঙামাটির দুটি খাদ্যগুদামে খাদ্যশস্যের সংকট দেখা দিয়েছে। ফলে রেশনিং ব্যাহত হচ্ছে।

গত ১৮ ফেব্রুয়ারি থেকে বন্ধ রয়েছে খাদ্যশস্য পরিবহন।

চট্টগ্রাম বিভাগীয় খাদ্য পরিবহন সমিতির সাধারণ সম্পাদক আব্দুর রশিদ গতকাল সোমবার জানান, পাহাড়ের পথে পথে চাঁদাবাজি, হয়রানি আর নির্যাতনে চালকরা অতিষ্ঠ। তাঁদের অতিরিক্ত ভাড়া দিলেও খাদ্য পরিবহনে রাজি হচ্ছেন না।

তাঁর অভিযোগ, সন্ত্রাসী, চাঁদাবাজরা টাকাও নেয়, আবার চালানের কাগজপত্রও ছিনিয়ে নেয়। নানা অজুহাতে চালক ও হেলপারদের মারধরও করা হয় বলে অভিযোগ  করেন তিনি।

চাঁদাবাজ কারা জানাতে চাইলে আব্দুর রশিদ বলেন, এরা ঠিক কারা, তা তিনিও জানেন না। তবে পাহাড়ের আঞ্চলিক সংগঠনগুলোর নাম ভাঙিয়ে চাঁদাবাজি করা হয়।

খাদ্যশস্যের সংকটে পড়া খাদ্যগুদামগুলো হলো খাগড়াছড়ির মহালছড়ি, পানছড়ি, দীঘিনালা (সদর), দীঘিনালা উপজেলার বাবুছড়া ও মেরুং খাদ্যগুদাম এবং রাঙামাটির বাঘাইছড়ি ও লংগদু খাদ্যগুদাম। উল্লেখ্য, রাঙামাটির বাঘাইছড়ি ও লংগদু উপজেলায় খাদ্য পরিবহনের জন্য খাগড়াছড়ি সদর ও দীঘিনালা হয়ে যেতে হয়।

মেরুং খাদ্যগুদাম কর্মকর্তা বিধান বড়ুয়া গতকাল কালের কণ্ঠকে বলেন, এখানে পাহাড়ি-বাঙালিদের সরকারি রেশনিং পদ্ধতি চালু রয়েছে। গুচ্ছগ্রাম এবং ভারত প্রত্যাগত শরণার্থীদের অনুকূলে ত্রৈমাসিক ডিও (ডেলিভারি অর্ডার) দিয়ে রেশন ছাড় দেওয়া হয়। ফেব্রুয়ারির প্রথম সপ্তাহে চাহিদাপত্র পাঠানো হলেও এখনো খাদ্যশস্য আসেনি। তাই গুদামে খাদ্যশস্য সংকট থাকায় চাহিদার রেশন দেওয়া সম্ভব হচ্ছে না।

দীঘিনালা খাদ্যগুদাম কর্মকর্তা মোহাম্মদ নাসির বলেন, বর্তমান অবস্থা বহাল থাকলে এ মাস থেকে শুরু হতে যাওয়া খাদ্যবান্ধব কর্মসূচির ১০ টাকার বিনিময়ে চালও দেওয়া সম্ভব হবে না। বিষয়টি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাসহ ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে জানানো হয়েছে বলে জানান তিনি।

জানতে চাইলে দীঘিনালা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ উল্লাহ বলেন, লিখিতভাবে বিষয়টি তাদের জানানো হয়েছে। সে অনুযায়ী প্রশাসনিকভাবে ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা