kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ৭ মাঘ ১৪২৭। ২১ জানুয়ারি ২০২১। ৭ জমাদিউস সানি ১৪৪২

চট্টগ্রাম উত্তর জেলা আওয়ামী লীগ

অবশেষে পূর্ণাঙ্গ কমিটি ঘোষণা এ মাসেই

কেন্দ্রের নির্দেশে পদবঞ্চিতদের কয়েকজন স্থান পাচ্ছেন

নূপুর দেব, চট্টগ্রাম   

৩ ডিসেম্বর, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



অবশেষে পূর্ণাঙ্গ কমিটি ঘোষণা এ মাসেই

সম্মেলন-পরবর্তী গোপন ব্যালটে সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হওয়ার মাধ্যমে দেশে নজির সৃষ্টি করেছিল চট্টগ্রাম উত্তর জেলা আওয়ামী লীগ। নতুন নেতৃত্বের পাশাপাশি ৭৫ সদস্যের প্রস্তাবিত নতুন পূর্ণাঙ্গ কমিটিতে যুক্ত হন বেশ কিছু নতুন মুখ। বাদ পড়েন নিষ্ক্রিয় ও বিতর্কিতরা। এক বছরেরও বেশি সময় পার করে অবশেষে চলতি ডিসেম্বরেই পূর্ণাঙ্গ কমিটি ঘোষণা হচ্ছে। তবে কেন্দ্রের নির্দেশে শেষ মুহূর্তে কিছু যোগ-বিয়োগ হতে পারে বলে দলীয় সূত্রগুলো নিশ্চিত করেছে।

নির্ভরযোগ্য একাধিক সূত্র জানায়, এক সপ্তাহ আগে ঢাকার ধানমণ্ডিতে আওয়ামী লীগ সভাপতির কার্যালয়ে যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ও তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহ্মুদ, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুবউল আলম হানিফ, সাংগঠনিক সম্পাদক আহমদ হোসেনের সঙ্গে চট্টগ্রাম উত্তর জেলা আওয়ামী লীগের নবনির্বাচিত সভাপতি ও জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান এম এ সালাম এবং সাধারণ সম্পাদক শেখ আতাউর রহমানের বৈঠক হয়। ওই বৈঠকে কেন্দ্রে অনুমোদনের জন্য পাঠানো ৭৫ সদস্যের কমিটি নিয়ে আলোচনা হয়েছে। কেন্দ্রীয় নেতারা কমিটিতে ত্যাগী ও দীর্ঘদিন রাজনীতিতে রয়েছেন এমন কয়েকজনকে অন্তর্ভুক্ত করার নির্দেশনা দিয়েছেন। তাঁদের অন্তর্ভুক্ত করে কমিটি পাঠানোর পর তা নেতারা দেখে সাধারণ সম্পাদকের মাধ্যমে দলীয় সভাপতির কাছে পাঠানো হবে অনুমোদনের জন্য।

জানা যায়, কেন্দ্রের নির্দেশনা অনুযায়ী প্রস্তাবিত কমিটিতে কয়েকজনের নাম অন্তর্ভুক্ত হতে পারে। তাঁদের মধ্যে রয়েছেন চট্টগ্রাম উত্তর জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক যুব ও ক্রীড়া সম্পাদক এবং জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক মঞ্জুরুল আলম চৌধুরী মঞ্জু, উত্তর জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি নুরুল হুদা, জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক ও বর্তমানে ফটিকছড়ি উপজেলা চেয়ারম্যান এইচ এম আবু তৈয়ব এবং কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সাবেক নেতা সালাউদ্দিন মাহমুদ।

উত্তর জেলা আওয়ামী লীগের নবনির্বাচিত সভাপতি এম এ সালাম গতকাল বুধবার কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘গত বছর দলের জাতীয় সম্মেলনের আগে ৭ ডিসেম্বর কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদকসহ নেতাদের উপস্থিতিতে আমাদের কমিটির সম্মেলন এবং কাউন্সিলরদের ভোটাভুটিতে নেতৃত্ব নির্বাচিত হয়। এরপর আমরা ৭৫ সদস্যের নতুন কমিটি গঠন করে কেন্দ্রে জমা দিয়েছি। কেন্দ্রীয় নেতাদের সঙ্গে গত সপ্তাহে আমাদের বৈঠক হয়েছে। তাঁরা কমিটিতে দুই-একজনকে সংযুক্ত করার নির্দেশনা দিয়েছেন। যেকোনো সময় আমরা কমিটি কেন্দ্রে জমা দেব। আশা করি চলতি মাসেই পূর্ণাঙ্গ কমিটির অনুমোদন হবে।’

প্রস্তাবিত কমিটিতে বাদ পড়া চট্টগ্রাম উত্তর জেলা আওয়ামী লীগ ও ছাত্রলীগের সাবেক নেতা মঞ্জুরুল আলম চৌধুরী মঞ্জু গতকাল কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘প্রস্তাবিত কমিটি থেকে আমাকেসহ আরো কয়েক নেতাকে বাদ দেওয়ায় আমরা দলীয় সভাপতির সঙ্গে দেখা করে তাঁকে বিষয়গুলো অবহিত করেছি। এরপর গত ২৬ নভেম্বর কেন্দ্রীয় নেতাদের বৈঠক থেকে আমাদের কয়েকজনের নাম উল্লেখ করে ত্যাগীদের কমিটিতে অন্তর্ভুক্তির নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে।’

এদিকে নির্ভরযোগ্য সূত্র জানায়, উত্তর জেলা আওয়ামী লীগের গত কমিটিতে বেশ কয়েকজন নিষ্ক্রিয় ও বিতর্কিত নেতা ছিলেন। প্রস্তাবিত কমিটিতে তাঁরাসহ গত কমিটির প্রায় ৪০ শতাংশ নেতা বাদ পড়েছেন। তাঁদের বিপরীতে ত্যাগী, সাংগঠনিকভাবে দক্ষ ও পরীক্ষিত নেতারা স্থান পেতে যাচ্ছেন। আবার পদবঞ্চিতদের কয়েকজন প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে দেখা করে প্রস্তাবিত কমিটির কয়েকজনের বিরুদ্ধে অভিযোগ করেছেন।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা