kalerkantho

শুক্রবার । ১২ অগ্রহায়ণ ১৪২৭। ২৭ নভেম্বর ২০২০। ১১ রবিউস সানি ১৪৪২

অনুষ্ঠান জমায়েতে নিয়ন্ত্রণ আসছে

নিজস্ব প্রতিবেদক   

২৩ নভেম্বর, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ৪ মিনিটে



অনুষ্ঠান জমায়েতে নিয়ন্ত্রণ আসছে

বিয়েসহ নানা সামাজিক অনুষ্ঠান, পিকনিক, দল বেঁধে ভ্রমণ, সভা-সমাবেশ বা যেকোনো ধরনের জনসমাগমের লাগাম টানতে যাচ্ছে সরকার। যেকোনো সময় এ বিষয়ে আসতে পারে নিষেধাজ্ঞা। করোনাভাইরাস মোকাবেলায় সরকার গঠিত জাতীয় কারিগরি পরামর্শক কমিটির সদস্যরা সরকারকে এ ব্যাপারে জোর সুপারিশ করায় বিষয়টিতে বিশেষ গুরুত্ব দেওয়া হচ্ছে বলে সূত্র জানিয়েছে।

সংক্রমণ আগের পর্যায়ে বা তার চেয়েও পরিস্থিতি খারাপ হলে প্রয়োজনে আগের মতোই লকডাউন বা লাল-সবুজ জোনের আদলে ভিন্ন কোনো পদ্ধতি নেওয়ার পদক্ষেপও আসতে পারে। এরই মধ্যে এ বিষয়ে পরিকল্পনা তৈরির কাজ চলছে। স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের আওতাধীন বিশেষ জনস্বাস্থ্য টিম এ কাজ করছে।

এদিকে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের মুখ্য সচিব করোনাভাইরাস মোকাবেলায় আজ এক জরুরি সভা ডেকেছেন। যেখানে সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ের সচিব, অতিরিক্ত সচিব, অধিদপ্তরের মহাপরিচালক ও সংশ্লিষ্ট পরিচালকদের অংশ নিতে বলা হয়েছে। এই সভা থেকে নতুন কোনো সুনির্দিষ্ট নির্দেশনা আসতে পারে বলেও একাধিক সূত্র জানিয়েছেন।

এ ছাড়া জাতীয় কারিগরি পরামর্শক কমিটির গত শুক্রবারের এক বৈঠক থেকে বিদেশফেরত যাত্রীদের ওপর আরো কঠোর নজরদারি, কোয়ারেন্টিন কার্যকর, সনদ ছাড়া কেউ যাতে দেশে না আসে, সনদ থাকলে হোম কোয়ারেন্টিনে থাকার নির্দেশনা দেওয়া, কারো সনদ নিয়ে সন্দেহ হলে তদন্ত করে প্রয়োজনে আইনি ব্যবস্থা, কেউ কোনোভাবে কোনো দেশ থেকে সনদ ছাড়া দেশে এসে পড়লে তাঁকে আটক করে করোনা টেস্ট করে নেগেটিভ হলে হোম কোয়ারেন্টিনে পাঠানো আর পজিটিভ হলে সরকারি তত্ত্বাবধানে আইসোলেশনে পাঠানোসহ আরো বেশ কিছু পরামর্শ দিয়েছে। এ ছাড়া হাসপাতাল ব্যবস্থাপনার ওপরও জোর দেওয়া হয়েছে।

শুক্রবারের পরামর্শক কমিটির বৈঠকে ইউরোপ, আমেরিকাসহ অন্যান্য অঞ্চলের সার্বিক পরিস্থিতি নিয়ে আলোচনা হয়। কোথায় কিভাবে নতুন আঙ্গিকে লকডাউন দেওয়া হচ্ছে, তা কিভাবে পালন হয়, সেসব দেশের মানুষ নতুন আঙ্গিকের লকডাউনকে কিভাবে নিচ্ছে—এসব বিষয়ও বিশ্লেষণ করা হয়। এ ছাড়া যেকোনো মূল্যে মাস্ক ব্যবহার কার্যকর করতে সরকারের প্রতি জোর সুপারিশ করা হয়েছে বলেও বৈঠক সূত্র জানায়। এ ছাড়া টেস্ট সুবিধা আরো বাড়ানো, দ্রুত সময়ের মধ্যে অ্যান্টিজেন টেস্টের তাগিদ দেওয়া হয়।

জাতীয় পরামর্শক কমিটির সদস্যসচিব ও স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক অধ্যাপক ড. মীরজাদী সেব্রিনা ফ্লোরা কালের কণ্ঠকে বলেন, স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের আওতায় একদল জনস্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞ নতুন পরিস্থিতি নিয়ে পরিকল্পনা তৈরি করছেন। সংক্রমণ পরিস্থিতি কোন পর্যায়ে থাকলে কী ধরনের ব্যবস্থা নেওয়া হবে সেই ছক তৈরি হচ্ছে। কোন পরিস্থিতি হলে প্রয়োজনে আবার লকডাউনের আদলে কোনো বিকল্প পদক্ষেপ কিংবা রেড-ইয়োলো বা গ্রিন জোনের আদলে অন্য কিছু ব্যবস্থা নেওয়ার বিষয়ও পরিকল্পনায় রাখা হচ্ছে।

এই কমিটির আরেক সদস্য বলেন, ‘আমরা সরকারের কাছে জোর দিয়ে লিখিত পরামর্শ করেছিলাম সামাজিক সাংস্কৃতিক বা অন্য কোনো অনুষ্ঠান, জনসমাগম-জমায়েতের ওপর নিয়ন্ত্রণ আরোপের। পরিস্থিতি অনুসারে প্রয়োজন মতো নিষেধাজ্ঞারও পরামর্শ দিয়েছি। একটু দেরিতে হলেও এখন সরকার সেই পরামর্শ অনুসারে দ্রুত সময়ের মধ্যেই নতুন কিছু নির্দেশনা দিতে পারে বলে আভাস পেয়েছি।

এদিকে চীনের সিনোভ্যাক ভ্যাকসিনের ট্রায়াল বাংলাদেশে আর হচ্ছে না বলেই প্রায় নিশ্চিত করেছে আইসিডিডিআরবি। তবে এই প্রতিষ্ঠান চীনের আরেকটি ভ্যাকসিনের দ্বিতীয় ধাপের ট্রায়াল করার ব্যাপারে প্রস্তুতি নিয়েছে। এরই মধ্যে ওই কম্পানির সঙ্গে চুক্তিপ্রক্রিয়া নিয়ে আলাপ-আলোচনা অনেকটাই এগিয়েছে বলেও আইসিডিডিআরবির একাধিক সূত্র জানায়। আইসিডিডিআরবিতে ভারতের সরকারি প্রতিষ্ঠান ভারত বায়োটেক, ফ্রান্সের সানোফি পাস্তুর ও বাংলাদেশি গ্লোব বায়োটেকের ভ্যাকসিনের ট্রায়ালের বিষয়ে অগ্রগতিও খুব একটা নেই বলেই জানায় সূত্রগুলো।

আইসিডিডিআরবির জ্যেষ্ঠ বিজ্ঞানী ড. কে এম জামান কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘আমাদের এখানে মোট চারটি টিকার ট্রায়াল নিয়ে কাজ শুরু হয়েছে। যখন এগুলোর বলার মতো অগ্রগতির পর্যায়ে আসবে তখন আইসিডিডিআরবি আনুষ্ঠানিকভাবেই তা জানিয়ে দেবে।’

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি অধ্যাপক ডা. কনক কান্তি বড়ুয়া কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘আর দুই-তিন দিনের মধ্যেই আশা করি আমাদের সঙ্গে সানোফির টিকার ট্রায়াল নিয়ে আনুষ্ঠানিক চুক্তি হবে।’

এদিকে গতকাল রবিবার রাতে জাতীয় পরামর্শক কমিটির পক্ষে পাঠানো সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, ছাত্র-ছাত্রীরা ভ্যাকসিন না পেলে বিশ্ববিদ্যালয় ও কলেজ খোলা কঠিন হবে। করোনাবিষয়ক জাতীয় পরামর্শক কমিটি ১৮ বছরের ওপরের শিক্ষার্থীদের ভ্যাকসিন দেওয়ার সম্ভাব্যতা যাচাই করা প্রয়োজন বলে মতামত দিয়েছে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা