kalerkantho

রবিবার । ১৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৭। ২৯ নভেম্বর ২০২০। ১৩ রবিউস সানি ১৪৪২

আইএফসিকে সুদের হার কমানোর অনুরোধ অর্থমন্ত্রীর

নিজস্ব প্রতিবেদক   

১ নভেম্বর, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



আইএফসিকে সুদের হার কমানোর অনুরোধ অর্থমন্ত্রীর

বাংলাদেশের বন্ড ও ঋণ মার্কেট উন্নয়নে ইন্টারন্যাশনাল ফিন্যান্স করপোরেশনকে (আইএফসি) আহ্বান জানিয়েছেন অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল। পাশাপাশি তিনি সংস্থাটিকে করোনায় আক্রান্ত বেসরকারি খাত চাঙ্গা করতে সুদের হার কমানোর অনুরোধ করেছেন। মন্ত্রী বলেছেন, আইএফসিকে সুদের হার কমানোর অনুরোধ করছি, যাতে বেসরকারি খাত স্বল্প সময়ের মধ্যে প্রত্যাবর্তন করতে পারে। বিশ্বব্যাংক-আইএমএফের বার্ষিক সভা-২০২০-এর অংশ হিসেবে অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামালের নেতৃত্বে বাংলাদেশ প্রতিনিধিদল ও আইএফসির চিফ অপারেটিং অফিসার মিসেস স্টিফানি ফন ফ্রিডবার্গের নেতৃত্বে আইএফসি প্রতিনিধিদলের মধ্যে বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় একটি ভার্চুয়াল সভা অনুষ্ঠিত হয়। সভায় মন্ত্রী এসব কথা বলেন। বাংলাদেশ প্রতিনিধিদলের সদস্য হিসেবে অর্থমন্ত্রী, বিশ্বব্যাংকে বাংলাদেশের বিকল্প নির্বাহী পরিচালক মোহাম্মদ শফিউল আলম, অর্থ বিভাগের সিনিয়র সচিব আব্দুর রউফ তালুকদার ও অর্থনৈতিক সম্পর্ক বিভাগের সচিব ফাতিমা ইয়াসমিন আলোচনায় অংশ নেন। আর আইএফসির পক্ষে মিসেস স্টিফানি ফন ফ্রিডবার্গ ও এশিয়া প্যাসিফিকের ভাইস প্রেসিডেন্ট আলফোনসো গার্সিয়া মোরা এবং বাংলাদেশ, ভুটান ও নেপালের কান্ট্রি ম্যানেজার ওয়েন্ডি ওয়ার্নার আলোচনায় অংশ নেন।

সভায় অর্থমন্ত্রী বলেন, কভিড-১৯ নির্বিচারে বিশ্ব অর্থনীতি ও মানবজীবন হুমকির সম্মুখীন করেছে, বাংলাদেশও এর ব্যতিক্রম নয়। বাংলাদেশ ২০৩০ সালের মধ্যে এসডিজি এবং ২০৪১ সালের মধ্যে একটি উচ্চ আয়ের দেশ অর্জনের প্রত্যাশায় আত্মবিশ্বাসী।

অর্থমন্ত্রী আরো বলেন, গত বছর লন্ডন স্টক এক্সচেঞ্জে বিশ মিলিয়ন ডলার সমমূল্যের বন্ড জারি করতে আইএফসির সহায়তা ও সহযোগিতায় বিশ্বে প্রথমবারের মতো প্রাথমিক ভিত্তিতে ৮০৭ মিলিয়ন টাকা (৯.৫ মিলিয়ন মার্কিন ডলার) সমপরিমাণ বাংলাদেশি ‘টাকা বন্ড’ চালু করা হয়েছিল, যা আগামী এক বছরে প্রায় ৮৫ বিলিয়ন টাকা (এক বিলিয়ন মার্কিন ডলার) মূল্যমানের বন্ডে উন্নীত করার অভিপ্রায় ব্যক্ত করেছিল আইএফসি। করোনার কারণে এটি কিছুটা স্তিমিত হয়ে গেলেও আশা করা যায়, এখন আবার আইএফসি এই খাত সমৃদ্ধ করতে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেবে।

অর্থ বিভাগের সিনিয়র সচিব আব্দুর রউফ তালুকদার বলেন, ‘আমাদের সরকার কভিড-১৯ টিকা ক্রয়ের বিষয়ে অত্যন্ত আগ্রহী এবং বদ্ধপরিকর। অর্থমন্ত্রী ইতিমধ্যে দেশের সকল মানুষকে টিকা আবিষ্কারের সাথে সাথে টিকা বিতরণ নিশ্চিতকরণের আশা ব্যক্ত করেছেন। তাই এই খাতে আমাদের বড় অঙ্কের অর্থের সংস্থানের বিষয়টিও জড়িত। আমাদের দেশীয় তিনটি ওষুধ প্রস্তুতকারী প্রতিষ্ঠান ইতিমধ্যে তাদের প্রতিষ্ঠানকে টিকা তৈরি করার উপযোগী করতে শুরু করেছে। আশা করা যায়, টিকা আবিষ্কারের ছয় মাসের মধ্যেই এ প্রতিষ্ঠানগুলো দেশে টিকা প্রস্তুত করতে সক্ষম হবে।’

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা