kalerkantho

সোমবার । ৬ আশ্বিন ১৪২৭ । ২১ সেপ্টেম্বর ২০২০। ৩ সফর ১৪৪২

সবিশেষ

রোগ বাড়ার সঙ্গে সম্পর্ক নগরায়ণের

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

১০ আগস্ট, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



রোগ বাড়ার সঙ্গে সম্পর্ক নগরায়ণের

গাছ কেটে ফসলি জমি তৈরি কিংবা বসতভিটা গড়ে তোলার কারণে প্রাণী থেকে মানুষের শরীরে সংক্রমিত হওয়া জীবাণু ছড়িয়ে পড়ার আশঙ্কা বাড়ছে। গবেষণায় দেখা গেছে, প্রাকৃতিক বনভূমি উজাড় করার ফলে বন্য পশুপাখি সেখান থেকে পালিয়ে যায়। আর তাদের জায়গায় আসে এমন সব প্রাণী, যার থেকে মানুষের মধ্যে রোগবালাই ছড়িয়ে পড়ে।

বিজ্ঞানীরা হিসাব করে দেখেছেন, নতুন আবিষ্কার হওয়া প্রতি চারটি সংক্রামক ব্যাধির মধ্যে তিনটির উৎপত্তি এভাবে হয়ে থাকে। গবেষণায় বলা হয়েছে, প্রাকৃতিক ভূমি বিনষ্ট করার ফলে ছোঁয়াচে রোগ বহনকারী প্রাণীদেরই বেশি সুবিধা হয়েছে। ইউনিভার্সিটি কলেজ অব লন্ডনের গবেষক রোরি গিবস বলেন, ‘আমাদের গবেষণা থেকে জানতে পেরেছি, যেসব প্রাণী মানুষের নিয়ন্ত্রিত পরিবেশে থাকে, তাদের মধ্য থেকে মানুষের শরীরে রোগের সংক্রমণের ঝুঁকি অনেক বেশি।’ বনভূমি উজাড় করে ক্ষেতখামার এবং বাসাবাড়ি তৈরি করার ফলে বহু বন্য প্রাণী এখন নিশ্চিহ্ন হওয়ার পথে। ইঁদুরজাতীয় প্রাণী, যারা বেশ কয়েক ধরনের রোগের জীবাণু বহন করে, নগর এলাকায় তাদের সংখ্যা বাড়ার কারণ হলো সেখানে অন্য সব প্রজাতি নিশ্চিহ্ন হয়ে পড়েছে। এই গবেষণায় সাত হাজার প্রজাতির ওপর ১৮৪টি গবেষণার উপাত্ত বিশ্লেষণ করে জানা গেছে, এদের মধ্যে ৩৭৬টি প্রজাতি এমন রোগের জীবাণু বহন করে, যেগুলো মানুষে ছড়িয়ে পড়তে পারে।

সূত্র : বিবিসি।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা