kalerkantho

মঙ্গলবার । ২৪ চৈত্র ১৪২৬। ৭ এপ্রিল ২০২০। ১২ শাবান ১৪৪১

প্রাণের মেলা

আছে স্বাস্থ্য-চিকিৎসার বইও

আজিজুল পারভেজ   

২৭ ফেব্রুয়ারি, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ৭ মিনিটে



আছে স্বাস্থ্য-চিকিৎসার বইও

বইমেলা শুধু মনের খোরাক জোগায় না, শরীর-স্বাস্থ্য ভালো রাখার জন্যও মেলায় আসছে স্বাস্থ্য-চিকিৎসার বই। সংখ্যায় বেশি না হলেও প্রতিবছরই স্বাস্থ্য-চিকিৎসার নতুন নতুন বই প্রকাশিত হয়। তবে অন্যান্য বছরের তুলনায় এই বছর এসংক্রান্ত বই প্রকাশিত হয়েছে কম।

এবারের বইমেলায় গত মঙ্গলবার পর্যন্ত যে চার হাজার ৮৩টি নতুন বই এসেছে এর মধ্যে স্বাস্থ্য-চিকিৎসাবিষয়ক বই রয়েছে ২৫টি। গত বছর বেরিয়েছিল ৩৫টি।

মেলায় কথা হয় মনোরোগ বিশেষজ্ঞ এবং কথাসাহিত্যিক মোহিত কামালের সঙ্গে। তিনি জানান, মৌলিক সাহিত্যে মনোযোগ দেওয়ার কারণে এখন আর চিকিৎসাবিষয়ক লেখালেখি হচ্ছে না। তবে যেটুকু খোঁজখবর নিয়েছেন, চিকিৎসাবিষয়ক কিছু প্রয়োজনীয় বই বের হয়েছে। এ বইগুলো মানুষের কাছে পৌঁছানো উচিত।

এবার মেলায় আসা স্বাস্থ্য-চিকিৎসাবিষয়ক নতুন বইয়ের মধ্যে রয়েছে আহমদ রফিকের ‘ফিট থাকুন দেহে মনে’, প্রকাশ করেছে অনিন্দ্য প্রকাশ। এ প্রকাশনী থেকে আরো প্রকাশিত হয়েছে মৃত্যুঞ্জয় রায়ের ‘ঔষধি গাছ’ তৃতীয় খণ্ড, ডা. শাহজাদা সেলিমের ‘ডায়াবেটিস : জানুন নিয়ন্ত্রণ করুন’ এবং ‘শিশু-কিশোরদের হরমোন ও জিনঘটিত সমস্যা’, রাউফুন নাহারের ‘মনের যত্ন’।

অনিন্দ্য প্রকাশের বিক্রয়কর্মী জানান, সাহিত্যের বইয়ের পাশাপাশি স্বাস্থ্য-চিকিৎসাবিষয়ক বইয়েরও চাহিদা রয়েছে। মানুষ খুঁজে খুঁজে এ বইগুলো সংগ্রহ করে।

বিখ্যাত চিকিৎসক ডা. এ বি এম আবদুল্লাহর ‘সুস্থ শরীর, সতেজ মন, সুন্দর জীবন’ প্রকাশ করেছে অনন্যা। এ প্রকাশনী থেকে আরো বেরিয়েছে ফরিদা ইয়াসমিন সুমির ‘নারী স্বাস্থ্য’।

অনুপম প্রকাশনী মেলায় এনেছে ডা. শাহনেওয়াজ চৌধুরীর ‘নানা রোগ প্রতিরোধ’ ও ‘সুস্থ থাকার আছে যে উপায়’ এবং সিদ্দিকা কবীর রিসার্স ফাউন্ডেশনের ‘খাদ্যে পুষ্টি সচেতনতা ও সুস্থ জীবন’।

ডা. প্রণব কামার চৌধুরীর ‘জীবনভর নীরোগ শিশু’ প্রকাশ করেছে পুথিনিলয়। ডা. কামরুল আহসান খানের ‘গল্পে গল্পে স্বাস্থ্যকথা’ প্রকাশ করেছে কথা প্রকাশ। ডা. ফারহানা মোবিনের ‘শরীর স্বাস্থ্য পুষ্টি’ প্রকাশ করেছে বিদ্যা প্রকাশ। ডা. নৃপেন ভৌমিকের ‘স্মৃতিশক্তি ও মস্তিষ্ক’ প্রকাশ করেছে অবসর।

ড. মো. শাহ এমরানের ‘অটিজম’ প্রকাশ করেছে শোভা প্রকাশ। ঐতিহ্য প্রকাশ করেছে অনুবাদ গ্রন্থ ভ. বুইয়ানোভা’র ‘প্রাথমিক চিকিৎসা সাহায্য’। ইত্যাদি গ্রন্থ প্রকাশন মেলায় এনেছে ফিরোজ জামানের ‘তিন খাবারের সমন্বয় : সুস্থ থাকার বিস্ময়’। অন্বেষা প্রকাশন মেলায় এনেছে শিল্পী রহমানের ‘উৎকণ্ঠাহীন নতুন জীবন : অ্যাংজাইটি ও প্যানিক অ্যাটাক’।

মেলায় প্রকাশিত স্বাস্থ্য-চিকিৎসাবিষয়ক নতুন বইয়ের মধ্য থেকে নির্বাচিত চারটি বইয়ের তথ্য তুলে ধরা হলো।

‘ফিট থাকুন দেহে মনে’ : আহমদ রফিক ভাষাসংগ্রামী, কবি, প্রাবন্ধিক। এসব পরিচয়ের আড়ালে চাপা পড়ে গেছে তাঁর চিকিৎসক পরিচয়। কিন্তু তিনি এ বিষয়েও লেখালেখি করেছেন। এ বইয়ে যেমন দেহ-মনের স্বাস্থ্য রক্ষার প্রচলিত টিপস নিয়ে লেখাজোখা আছে, তেমনি আছে চিকিৎসাবিজ্ঞানের সম্ভাব্য ভবিষ্যৎ সাফল্য নিয়ে কিছু কথা। বিশেষ করে কৃত্রিম অঙ্গ সংস্থাপনের সম্ভাবনার কথা। বইটি প্রকাশ করেছে অনিন্দ্য প্রকাশ। মূল্য ৩০০ টাকা।

‘সুস্থ শরীর, সতেজ মন, সুন্দর জীবন’ : বিখ্যাত চিকিৎসক ডা. এ বি এম আবদুল্লাহর এ বইতে সাধারণ জ্বর, পেট ব্যথা, কোষ্ঠকাঠিন্য, বুকে ব্যথা, ম্যালেরিয়াসহ বিভিন্ন ঋতুভিত্তিক স্বাস্থ্য সমস্যার সমাধান যেমন সন্নিবেশিত হয়েছে, তেমনি হৃদেরাগ, ডায়াবেটিসসহ বিভিন্ন অসংক্রামক রোগ নিয়ন্ত্রণে রোগীর জীবনযাত্রার কী কী উল্লেখযোগ্য পরিবর্তন প্রয়োজন, তাও স্থান পেয়েছে। এমনকি চিকুনগুনিয়া, ডেঙ্গু জ্বরের মতো জনস্বাস্থ্যের সঙ্গে সম্পৃক্ত বিষয়ে ডাক্তারদের পাশাপাশি সাধারণ মানুষের করণীয় নিয়েও আলোকপাত করা হয়েছে। বইটি প্রকাশ করেছে অনন্যা। মূল্য ৪০০ টাকা।

‘জীবনভর নীরোগ শিশু’ : জন্মের পর থেকে বেড়ে ওঠার সময়কালে একটি শিশু যেসব সমস্যার মুখোমুখি হয়, শিশুদের যেসব বিষয়ে অভিভাবকদের বিশেষ মনোযোগ দিতে হয় সেসব বিষয় নিয়ে লেখা একটি প্রয়োজনীয় বই। লিখেছেন ডা. প্রণব কামার চৌধুরী। তিনি শিশুরোগ বিশেষজ্ঞ, বর্তমানে চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজের শিশুস্বাস্থ্য বিভাগের বিভাগীয় প্রধান। বইতে সর্পদংশন ও প্রতিকার নিয়ে একটি বিশেষ অধ্যায় সংযোজন করা হয়েছে। এটি প্রকাশ করেছে পুথিনিলয়। বইটির মূল্য ২০০ টাকা।

‘ঔষধি গাছ’ : সুপ্রাচীন কাল থেকে গাছগাছড়া মানুষের স্বাস্থ্য ভালো রাখতে সাহায্য করে আসছে। এ দেশে অন্তত ৫০০ রকমের গাছগাছড়া রয়েছে, যেগুলো ব্যবহার করে স্বাস্থ্যকে ঠিক রাখা যায়। লেখক মৃত্যুঞ্জয় রায় এ দেশের ঔষধি গাছপালার ভাণ্ডার থেকে একের পর এক গাছ নিয়ে লিখে চলেছেন। এরই ধারাবাহিকতায় প্রকাশিত হলো তৃতীয় খণ্ড। এতে ২০টি ঔষধি গাছের পরিচয়, ভেষজ গুণ ও ব্যবহার, চাষাবাদ ইত্যাদি বিষয়ে আলোকপাত করা হয়েছে। প্রকাশ করেছে অনিন্দ্য প্রকাশ। মূল্য ৩০০ টাকা।

গতকালের মেলা : গতকাল বুধবার অমর একুশে গ্রন্থমেলার ২৫তম দিনে নতুন বই এসেছে ১৫৬টি। এর মধ্যে তারিক সুজাতের কাব্যগ্রন্থ ‘সুরের পথে একলা হাঁটি’, সাদিকুর রহমান পরাগের কাব্যগ্রন্থ ‘এক পৃথিবী গল্প’ প্রকাশ করেছে জার্নিম্যান বুকস। মোস্তফা মোহসীনের কাব্যগ্রন্থ ‘মননের মধু’ প্রকাশ করেছে উৎস প্রকাশন। আবদুল হামিদ মাহবুবের ‘অন্য রকম ছড়াগুলো’ এবং তানিয়া সুলতানা হ্যাপি’র ‘শিশু মনে শেখ হাসিনা’ প্রকাশিত হয়েছে এ মেলায়।

বিকেলে মেলার মূল মঞ্চে অনুষ্ঠিত হয় কামরুল হক রচিত ‘বঙ্গবন্ধু ও সংবাদপত্র : ছয় দফা থেকে গণ-অভ্যুত্থান’ শীর্ষক আলোচনা অনুষ্ঠান। প্রবন্ধ পাঠ করেন সোহরাব হাসান। আলোচনায় অংশ নেন মোরশেদ শফিউল হাসান ও হারুন হাবীব। লেখকের বক্তব্য প্রদান করেন কামরুল হক। সভাপতিত্ব করেন কামাল লোহানী।

লেখক বলছি অনুষ্ঠানে নিজেদের নতুন বই নিয়ে আলোচনা করেন শামস আল মমীন, আলমগীর রেজা চৌধুরী, মুম রহমান।

গুণীজন স্মৃতি পুরস্কার ঘোষণা : বাংলা একাডেমির মহাপরিচালক কবি হাবীবুল্লাহ সিরাজী গতকাল গ্রন্থমেলা উপলক্ষে বাংলা একাডেমি পরিচালিত চারটি গুণীজন স্মৃতি পুরস্কার ঘোষণা করেন। ২০১৯ সালে প্রকাশিত বিষয় ও গুণমানসম্মত সর্বাধিকসংখ্যক গ্রন্থ প্রকাশের জন্য কথাপ্রকাশকে চিত্তরঞ্জন সাহা স্মৃতি পুরস্কার-২০২০, ২০১৯ সালে প্রকাশিত গ্রন্থের মধ্যে শৈল্পিক ও গুণমান বিচারে সেরা গ্রন্থ বিভাগে আবুল হাসনাত রচিত ‘প্রত্যয়ী স্মৃতি ও অন্যান্য’ গ্রন্থের জন্য জার্নিম্যান বুকসকে, মঈনুস সুলতান রচিত ‘জোহানেসবার্গের জার্নাল’ গ্রন্থের জন্য প্রথমা প্রকাশনকে এবং রফিকুন নবী রচিত ‘স্মৃতির পথরেখা’ গ্রন্থের জন্য বেঙ্গল পাবলিকেশন্সকে মুনীর চৌধুরী স্মৃতি পুরস্কার-২০২০ প্রদান করা হয়। ২০১৯ সালে প্রকাশিত শিশুতোষ গ্রন্থের মধ্য থেকে গুণমান বিচারে সর্বাধিক গ্রন্থ প্রকাশের জন্য পাঞ্জেরী পাবলিকেশন্স লিমিটেডকে রোকনুুজ্জামান খান দাদাভাই স্মৃতি পুরস্কার-২০২০ এবং ২০২০ সালের অমর একুশে গ্রন্থমেলায় অংশগ্রহণকারী প্রকাশনা প্রতিষ্ঠানগুলোর মধ্য থেকে নান্দনিক অঙ্গসজ্জায় সেরা প্রতিষ্ঠান হিসেবে অভিযান (এক ইউনিট), কুঁড়েঘর প্রকাশনী লিমিটেড (২-৪ ইউনিট), বাংলা প্রকাশ (প্যাভেলিয়ন)-কে শিল্পী কাইয়ুম চৌধুরী স্মৃতি পুরস্কার-২০২০-এর জন্য নির্বাচিত করা হয়েছে। আগামী ২৯ ফেব্রুয়ারি অমর একুশে গ্রন্থমেলা ২০২০-এর সমাপনী অনুষ্ঠানে আনুষ্ঠানিকভাবে এসব পুরস্কার পুরস্কারপ্রাপ্তদের হাতে তুলে দেওয়া হবে।

নীতিমালা লঙ্ঘন করায় ২৩ প্রকাশনীকে শোকজ : বইমেলায় বিদেশি লেখকদের বই প্রকাশ ও বিক্রির মাধ্যমে গ্রন্থমেলার নীতিমালা লঙ্ঘন করায় ২৩টি প্রকাশনা প্রতিষ্ঠানকে কারণ দর্শাও নোটিশ দিয়েছে গ্রন্থমেলার টাস্কফোর্স উপকমিটি। বইমেলা শেষ হওয়ার মাত্র তিন দিন আগে এ পদক্ষেপ নেওয়া হলো। এ বিষয়ে বাংলা একাডেমির মহাপরিচালক হাবীবুল্লাহ সিরাজী বলেন, ‘আমরা ২৩টি প্রকাশনাকে প্রাথমিকভাবে কারণ দর্শানোর নোটিশ দিয়েছি। তারা নীতিমালা লঙ্ঘন করেছেন। প্রকাশনা প্রতিষ্ঠানগুলোর কাছ থেকে জবাব পাওয়ার পর আগামী মেলায় আমরা তাদের বিষয়ে ভেবে দেখব।

নীতিমাল লঙ্ঘনকারী প্রতিষ্ঠানগুলো হলো জয় বাংলা, বঙ্গবন্ধু ফাউন্ডেশন, জয় বাংলা আর্ট গ্যালারি অ্যান্ড স্টুডিও, মাইক্রোস ডিজিটাল, শেখ রাসেল জাতীয় শিশু-কিশোর সংগঠন, শিশু সাহিত্য বইঘর, ছোটদের জ্ঞান বিজ্ঞান একাডেমি, ছোটদের মেলা, জনতা প্রকাশ, বাঁধ পাবলিকেশন্স, কালিকলম প্রকাশনা, নবরাগ প্রকাশনী, মেয়র মোহাম্মদ হানিফ স্মৃতি সংসদ, আলগাজী পাবলিকেশন্স, আবিষ্কার, শিশু-কিশোর প্রকাশন, মুক্ত প্রকাশ, শিশু প্রকাশ, কালধারা, মৌ প্রকাশনী, মেধা পাবলিকেশন্স, নিহাল পাবলিকেশন এবং অভ্র প্রকাশ।

 

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা