kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ২৩ জানুয়ারি ২০২০। ৯ মাঘ ১৪২৬। ২৬ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪১          

মিস ওয়ার্ল্ডের মুকুট জ্যামাইকার টনির

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

১৬ ডিসেম্বর, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



মিস ওয়ার্ল্ডের মুকুট জ্যামাইকার টনির

২০১৯ সালের বিশ্বসুন্দরীর মুকুট কার মাথায় শোভা পাবে?—এই প্রশ্নে সবাই যখন উদ্বেল, তখনই মাইকে এলো সেই কাঙ্ক্ষিত উচ্চারণ—‘অ্যান্ড দ্য অ্যাওয়ার্ড গোজ টু....।’ সঙ্গে সঙ্গে পিনপতন নীরবতা নেমে আসে হলের ভেতরে। আর তার পরই ঘোষিত হলো টনি অ্যান সিংয়ের নাম। সারা বিশ্বের শতাধিক প্রতিযোগীকে পেছনে ফেলে মিস ওয়ার্ল্ড ২০১৯-এর খেতাব জিতে নিয়েছেন জ্যামাইকার টনি। শনিবার যুক্তরাজ্যের লন্ডনে এক্সসেল কনভেনশন সেন্টারে মিস ওয়ার্ল্ডের চূড়ান্ত আসরে টনির মাথায় বিজয়ীর মুকুট পরিয়ে দেন গত বছরের মিস ওয়ার্ল্ড মেক্সিকোর ভেনেসা পন্স দে লিওন। এই নিয়ে চতুর্থবার জ্যামাইকার মাথায় উঠল বিশ্বসুন্দরীর মুকুট।

প্রতিযোগিতায় প্রথম রানার-আপ হয়েছেন ফ্রান্সের ওফেলি মেজিনো এবং দ্বিতীয় রানার-আপ হয়েছেন ভারতের রাজস্থানের মেয়ে সুমন রাও।

২৩ বছর বয়সী টনির জন্ম জ্যামাইকার সেন্ট টমাসে। যুক্তরাষ্ট্রের ফ্লোরিডা ইউনিভার্সিটি থেকে মনোবিজ্ঞান ও উয়োমেনস স্টাডিতে ডিগ্রি নেওয়া টনি ডাক্তার হতে চান। শনিবারের চূড়ান্ত আসরে গান গেয়ে এবং বিভিন্ন প্রশ্নের বুদ্ধিদীপ্ত উত্তর দিয়ে বিচারকদের প্রশংসা কুড়ান তিনি। পড়াশোনা ছাড়াও টনি ভালোবাসেন গান গাইতে, রান্না করতে, ব্লগ লিখতে, স্বেচ্ছাসেবীর কাজ করতে। তাঁর জীবনের ধ্রুবতারা তাঁর মা। মা-ই তাঁর জীবনের সব স্বপ্নপূরণের প্রধান সঙ্গী।

বিজয়ী হওয়ার পর উচ্ছ্বসিত টনি তাঁর বক্তব্যে বলেন, ‘মনে হচ্ছে স্বপ্ন দেখছি। আমি খুবই কৃতজ্ঞ। আমার মধ্যে কিছু খুঁজে পাওয়ার জন্য ধন্যবাদ। আমি কাজ করার জন্য প্রস্তুত আছি।’

পরে এক টুইট বার্তায় তিনি আরো বলেন, ‘জ্যামাইকার সেন্ট টমাসের ছোট মেয়েটি থেকে শুরু করে বিশ্বের সব নারীর উদ্দেশে বলছি, নিজের ওপর বিশ্বাস রাখুন। জেনে রাখুন, আপনি যোগ্য এবং নিজের স্বপ্নপূরণে সক্ষম। এই মুকুট শুধু আমার না, আপনাদেরও। আপনাদের একটি লক্ষ্য আছে।’

টনিকে নিয়ে এ পর্যন্ত জ্যামাইকার চারজন মিস ওয়ার্ল্ড নির্বাচিত হয়েছেন। এ ছাড়া এ বছরই প্রথম মিস ওয়ার্ল্ড, মিস ইউনিভার্স, মিস ইউএসএ, মিস টিন ইউএসএ ও মিস আমেরিকা—সব কটি খেতাব জিতে নিয়ে ইতিহাস তৈরি করেছেন কৃষ্ণাঙ্গ নারীরা।  সূত্র : এএফপি, বিবিসি।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা