kalerkantho

সোমবার । ১৬ ডিসেম্বর ২০১৯। ১ পোষ ১৪২৬। ১৮ রবিউস সানি                         

রাজশাহী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল

বহির্বিভাগের ১০ টাকার টিকিট ৫০ টাকা

নিজস্ব প্রতিবেদক, রাজশাহী   

৫ ডিসেম্বর, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



বহির্বিভাগের ১০ টাকার টিকিট ৫০ টাকা

রাজশাহী মেডিক্যাল কলেজ (রামেক) হাসপাতালের বহির্বিভাগে ১০ টাকার টিকিট ৫০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে বলে অভিযোগ উঠেছে। বহির্বিভাগে চিকিৎসা নিতে আসা রোগীদের দীর্ঘ লাইনে ভোগান্তির সুযোগ নিয়ে একটি দালালচক্র আগে থেকে টিকিট কেটে রেখে সেগুলো কালোবাজারে বিক্রি করছে বেশি দামে। এ নিয়ে রোগীদের মধ্যে ক্ষোভ দেখা দিয়েছে। বহির্বিভাগে চিকিৎসা নিতে যাওয়া রোগীদের সঙ্গে কাউন্টারের কর্মচারীরা অসদাচরণ করছেন বলেও অভিযোগ পাওয়া গেছে।

গত মঙ্গলবার সকাল ৯টা থেকে দুপুর ১টা পর্যন্ত সরেজমিন রামেকে এমন চিত্রই দেখা গেছে। ওই দিন পুরুষ কাউন্টারে ২৬৩টি টিকিট বিক্রি হয়। নারী কাউন্টারে বিক্রি হয় ৩৩৯টি টিকিট। আর কাউন্টারের বাইরে থেকে আরো অন্তত শতাধিক টিকিট সংগ্রহ করা হয় ৫০ টাকা করে। বিশেষ করে নারী ও শিশু যারা চিকিৎসা নিতে এসেছিল, তাদের স্বজনরা কাউন্টারের বাইরে থেকে বেশি দামে এই টিকিট সংগ্রহ করে।

সেবা পেতে রামেকের বহির্বিভাগে রোগীর দীর্ঘ লাইন প্রতিদিনের চিত্র। টিকিটের জন্য ঘণ্টার পর ঘণ্টা দাঁড়িয়ে থাকতে হয়। অথচ কাউন্টারের

 পেছনের জানালা দিয়ে ১০ টাকার টিকিট বিক্রি করা হচ্ছে অধিক মূল্যে। একটি দালালচক্র এভাবে টিকিট সংগ্রহ করে রোগীদের কাছে ৫০ টাকায় বিক্রি করছে।

সকাল ৯টা থেকে দুপুর ১টা পর্যন্ত কাউন্টার থেকে বহির্বিভাগের টিকিট বিক্রির কথা থাকলেও আগেই তা বন্ধ করে দেওয়া হয়। এ অবস্থায় নারী ও শিশু রোগীদের নিয়ে বিড়ম্বনায় পড়ে স্বজনরা।

চিকিৎসা নিতে আসা পুঠিয়ার বানেশ্বর এলাকার বাসিন্দা মুক্তা বেগম বলেন, ‘দুপুর ১২টা পর্যন্ত লাইনে দাঁড়িয়ে ছিলাম। ভিড়ের কারণে টিকিট নিতে পারিনি। এর মধ্যেই কাউন্টার বন্ধ করে দেওয়া হয়। পরে দেখলাম কেউ কেউ ৫০ টাকা করে টিকিট বিক্রি করছে। অতিরিক্ত টাকা না থাকায় আমার অসুস্থ শিশুটার জন্য টিকিট নিতে পারিনি।’ টিকিট না পেয়ে শেষ পর্যন্ত তিনি অসুস্থ শিশুটিকে নিয়ে ফিরে যান।

আরেক রোগীর স্বজন তানিয়া বেগম বলেন, ‘আমরা লাইনে দাঁড়িয়ে আছি। অথচ আমাদের বাদ দিয়ে কাউন্টারের পেছনের জানালা দিয়ে টিকিট বিক্রি করা হচ্ছিল। দালালরা পরে ওই টিকিট ৫০ টাকায় বিক্রি করে। আর লাইনে দাঁড়িয়ে আমরা টিকিট পাইনি।’

রামেক হাসপাতালের টিকিট ইনচার্জ নুর মোহাম্মদ বলেন, ‘একটি দালালচক্র মেডিসিন বিভাগের শিশু ও নারীদের টিকিট বেশি দামে বিক্রি করছে। বিষয়টি হাসপাতাল কর্তৃপক্ষকে জানানো হয়েছে। পুলিশের নজরদারি থাকলে দালালরা এসব টিকিট বাইরে বিক্রি করতে পারবে না।’

 

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা