kalerkantho

বুধবার । ১১ ডিসেম্বর ২০১৯। ২৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ১৩ রবিউস সানি     

আ. লীগের জাতীয় সম্মেলন

স্লোগানে থাকছে দুর্নীতিমুক্ত দেশ উন্নয়নের প্রত্যয়

তৈমুর ফারুক তুষার   

১৬ নভেম্বর, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



স্লোগানে থাকছে দুর্নীতিমুক্ত দেশ উন্নয়নের প্রত্যয়

ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগের ২১তম জাতীয় সম্মেলনের স্লোগানে থাকছে শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশের উন্নয়ন অগ্রযাত্রা ও দুর্নীতিমুক্ত দেশ গড়ার প্রত্যয়। দলটির প্রচার ও প্রকাশনা উপকমিটি আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনার কাছে দুটি স্লোগান প্রস্তাব করবে। এর মধ্য থেকে কোনো একটি হুবহু বা কিছুটা পরিবর্তন করে সম্মেলনের স্লোগান চূড়ান্ত করবেন আওয়ামী লীগ সভাপতি। আওয়ামী লীগের সম্মেলন প্রস্তুতির প্রচার ও প্রকাশনা উপকমিটির একাধিক নেতা এমনটি জানিয়েছেন।

এ ছাড়া সম্মেলন প্রস্তুতির সঙ্গে যুক্ত একাধিক নেতা জানান, এবারের সম্মেলনে গত বছরের মতো সাজসজ্জায় আড়ম্বর থাকছে না। গতবারের মতো হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে সোহরাওয়ার্দী উদ্যান পর্যন্ত লাইটিং বা আলোকসজ্জার আড়ম্বর দেখা যাবে না।

আওয়ামী লীগের সম্মেলন প্রস্তুতির প্রচার ও প্রকাশনা উপকমিটি সূত্রে জানা যায়, সম্মেলনের স্লোগান কী হবে, তা নিয়ে বেশ কয়েকটি প্রস্তাব আসে উপকমিটির কাছে। সেগুলোর মধ্য থেকে দুটি স্লোগান বিবেচনায় নিয়ে তা দলীয় সভাপতি শেখ হাসিনার কাছে প্রস্তাব আকারে

পাঠানোর সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। স্লোগান দুটির একটি হলো, ‘শেখ হাসিনার নেতৃত্বে দুর্বৃত্তায়নমুক্ত রাজনীতি/উন্নয়নের বাংলাদেশে থাকবে না আর দুর্নীতি’। আরেকটি স্লোগান হলো, ‘শেখ হাসিনার নেতৃত্বে, জাতির পিতার স্বপ্ন পূরণে গড়তে সোনার দেশ/এগিয়ে চলেছি দুর্বার, আমরাই তো বাংলাদেশ’।

আওয়ামী লীগের উপপ্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক আমিনুল ইসলাম কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘এবারের সম্মেলনে আওয়ামী লীগের স্লোগান কী হবে, তা এখনো চূড়ান্ত হয়নি। কয়েকটি স্লোগান বিবেচনায় আছে। এগুলো আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনার কাছে প্রস্তাব করা হবে। উনি এ বিষয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত দেবেন।’

আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য ও সম্মেলন প্রস্তুতি অর্থ বিষয়ক উপকমিটির সভাপতি কাজী জাফর উল্যাহ কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘আমরা এবার সম্মেলনের বাজেট অনেক কমিয়ে এনেছি। গতবারের চেয়ে প্রায় অর্ধেক খরচে এবারের সম্মেলন সম্পন্ন করার চেষ্টা করছি। গতবার যেমন বিমানবন্দর থেকে সোহরাওয়ার্দী উদ্যান পর্যন্ত লাইটিং বা অন্যান্য সাজসজ্জা করা হয়েছিল, এবার সেসব হচ্ছে না। বিদেশি অতিথি আমন্ত্রণ না জানানোয় ব্যয় অনেক কমে যাবে।’

দলীয় সূত্র মতে, শেখ হাসিনা যে দুর্নীতিবিরোধী অভিযান শুরু করেছেন, তার একটা প্রতিফলন সম্মেলনের স্লোগানে রাখার পক্ষে দলের অনেক কেন্দ্রীয় নেতা। তাঁদের মতে, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা টানা তৃতীয় মেয়াদে ক্ষমতায় এসে এবার দুর্নীতির বিরুদ্ধে লড়াইকে গুরুত্ব দিচ্ছেন। তিনি শুদ্ধি অভিযান শুরু করেছেন। এ অভিযানে তিনি নিজ দলের নেতাকর্মীদেরও ছাড় দিচ্ছেন না। তিনি দুর্বৃত্তদের হাত থেকে রাজনীতিকে মুক্ত করতে পদক্ষেপ নিয়েছেন। ফলে সম্মেলনের স্লোগানে দুর্নীতির বিরুদ্ধে আওয়ামী লীগের অবস্থান ঘোষণা প্রাসঙ্গিক হবে।

আবার বঙ্গবন্ধুর হাত ধরে বাংলাদেশ স্বাধীন হলেও তিনি এ দেশের মানুষকে অর্থনৈতিক মুক্তি দিয়ে যেতে পারেননি। তিনি যে সোনার বাংলার স্বপ্ন দেখেছিলেন, তা বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনার হাত ধরে পূর্ণতা পাচ্ছে। এ দেশের উন্নয়নযাত্রা বিশ্বের অনেক দেশের কাছেই প্রশংসিত। নানা প্রতিবন্ধকতা দূরে ঠেলে উন্নয়নের এক অনন্য উচ্চতায় যাত্রা শুরু করেছে দেশ। সম্মেলনের স্লোগানে এ বিষয়গুলোর প্রতিফলন ঘটানোর পক্ষেও আওয়ামী লীগের বেশ কয়েকজন কেন্দ্রীয় নেতা।

সম্মেলন প্রস্তুতির কাজে যুক্ত গুরুত্বপূর্ণ একাধিক নেতা জানিয়েছেন, গতবারের তুলনায় এবার আওয়ামী লীগের সম্মেলনে সাজসজ্জার আড়ম্বর অনেক কম হবে। গতবার বিমানবন্দর থেকে সোহরাওয়ার্দী উদ্যান পর্যন্ত এবং নগরীর গুরুত্বপূর্ণ এলাকাগুলোতে লাইটিংসহ নানা সাজসজ্জা ছিল। এবার এসব আড়ম্বর থাকছে না।

 

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা