kalerkantho

রাজস্ব আদায়ে দায়িত্ব পাচ্ছেন ডিসিরা

নিজস্ব প্রতিবেদক   

১৬ জুলাই, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৫ মিনিটে



রাজস্ব আদায়ে দায়িত্ব পাচ্ছেন ডিসিরা

জেলা ও উপজেলাপর্যায়ে রাজস্ব আহরণে নেতৃত্ব দিতে ডিসি-ইউএনওদের নেতৃত্বে কমিটি করার প্রস্তাবকে ইতিবাচক হিসেবে দেখছে সরকার। গতকাল সোমবার জেলা প্রশাসক সম্মেলনের দ্বিতীয় দিনে অর্থ মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত বিভাগগুলোর সঙ্গে আলোচনাকালে ডিসিরা ওই প্রস্তাব দেন। পরে রাজস্ব বিভাগের পক্ষ থেকে প্রস্তাবটি গ্রহণ করা হয়।

কার্য-অধিবেশন শেষে প্রধানমন্ত্রীর অর্থনীতিবিষয়ক উপদেষ্টা মসিউর রহমান সাংবাদিকদের বলেন, জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের (এনবিআর) পক্ষ থেকে বলেছে যে এটা ভালো প্রস্তাব বলে তারা মনে করে। তবে এ প্রস্তাব বাস্তবায়নের আগে বিস্তারিত আলোচনা করা দরকার বলে মনে করেন উপদেষ্টা। তিনি বলেন, রাজস্ব আদায় বাড়াতে জেলা-উপজেলাপর্যায়ে জনবল বাড়ানোর প্রস্তাব রয়েছে এনবিআরের। জেলা প্রশাসকদের প্রস্তাবের সঙ্গে এনবিআরের প্রস্তাবের সমন্বয় প্রয়োজন হবে। তখন হয়তো বিষয়টি আরো বিস্তারিতভাবে পরীক্ষা করা যাবে। মসিউর রহমান জানান, কৃষিঋণ এবং নারী উদ্যোক্তা ঋণের প্রক্রিয়া আরো সহজ করার দাবি জানিয়েছেন ডিসিরা।

এদিকে এমপিওভুক্তসহ অনুমোদনপ্রাপ্ত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে কম শিক্ষার্থী থাকলে সেগুলোর ব্যাপারে জেলা প্রশাসকদের কাছ থেকে প্রতিবেদন চেয়েছেন শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি। প্রয়োজনে এসব প্রতিষ্ঠান আশপাশের স্কুল-কলেজের সঙ্গে সংযুক্ত করার চিন্তা রয়েছে বলেও জানান শিক্ষামন্ত্রী। ডিসিরা ভালো শিক্ষকদের অতিথি করে প্রত্যন্ত অঞ্চলে পাঠানোর প্রস্তাব দিলে শিক্ষামন্ত্রী বলেন, নামি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ভালো শিক্ষকদের পাঠদানের উপকারিতা যাতে অন্য প্রতিষ্ঠানের শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা পেতে পারেন সে জন্য একটি টেলিভিশন চ্যানেল খুলে তাঁদের ক্লাস সম্প্রচারের ভাবনা রয়েছে সরকারের। এতে যাঁরা প্রত্যন্ত অঞ্চলের শিক্ষক আছেন, তাঁরা অন্যদের শেখানোর পদ্ধতি থেকে উপকৃত হবেন। একই সঙ্গে শিক্ষার্থীও যে যেখানেই থাকুক, একই মানের শিক্ষকদের শিক্ষাদান, পাঠদানে তারা উপকৃত হবে। জেলা প্রশাসক সম্মেলনের দ্বিতীয় দিনে গতকাল সচিবালয়ে শিক্ষা এবং প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের কার্য অধিবেশনে ডিসিদের সঙ্গে আলোচনায় এসব কথা বলেন মন্ত্রী।

পরিকল্পিত শিল্প এলাকা ছাড়া গ্যাস-বিদ্যুৎ সংযোগ নয় : এদিকে বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ বলেছেন, পরিকল্পিত শিল্প এলাকার বাইরে কেউ কারখানা করলে তাতে বিদ্যুৎ ও গ্যাস সংযোগ দেওয়া হবে না। ডিসিদের সঙ্গে হওয়া কার্য-অধিবেশ শেষে প্রতিমন্ত্রী সাংবাদিকদের বলেন, ‘যত্রতত্র শিল্প এলাকা না করার বিষয়ে প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশ রয়েছে। আজকে (সোমবার) আমরা জেলা প্রশাসকদের বলে দিয়েছি কেবলমাত্র পরিকল্পিত শিল্প এলাকা ছাড়া কোথাও আমরা গ্যাসের লাইন, বিদ্যুতের সংযোগ দেব না।’ প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘এখন থেকে যাঁরা শিল্প এলাকা করতে চাচ্ছেন বা শিল্প এলাকা করতে যাবেন বা কিছু করে ফেলেছেন, তাঁদের নতুন করে চিন্তাভাবনা করতে হবে। পরিকল্পিত শিল্পাঞ্চল বলতে সরকারের অর্থনৈতিক অঞ্চলগুলো ছাড়াও বিসিক অন্তর্ভুক্ত আছে। তবে এরই মধ্যে যাঁরা অপরিকল্পিতভাবে শিল্পপ্রতিষ্ঠান করে ফেলেছেন তাঁদের পর্যায়ক্রমে পরিকল্পিত শিল্প এলাকায় স্থানান্তরের সুযোগ দেবে সরকার।’

ময়মনসিংহ-গোপালগঞ্জে হবে এফএম বেতারকেন্দ্র : তথ্য মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত অধিবেশনের বিষয়ে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের জনসংযোগ কর্মকর্তা জানিয়েছেন, সম্প্রচার আইন প্রণয়ন ও প্রেস কাউন্সিল আইন সংশোধনের উদ্যোগ নেওয়া হবে। সেই সঙ্গে ময়মনসিংহ ও গোপালগঞ্জে ১০ কিলোহার্টজ ক্ষমতাসম্পন্ন এফএম বেতারকেন্দ্র স্থাপনের উদ্যোগ নেওয়া হবে।

সংস্কৃতিবিষয়ক মন্ত্রণালয়ের কার্য-অধিবেশনে কুয়াকাটায় রাখাইন সাংস্কৃতিক কেন্দ্র স্থাপন, বিপথগামিতা থেকে বাঁচাতে জেলা-উপজেলায় সাংস্কৃতিক কর্মকাণ্ড বাড়াতে বিশেষ থোক বরাদ্দ প্রদান, সব প্রত্নতাত্ত্বিক স্থাপনার দুই শ গজের মধ্যে জনবসতি নিষিদ্ধ করার উদ্যোগ নেওয়ার কথা জানানো হয়েছে। এ ছাড়া বলা হয়েছে, ভাষাসংগ্রামী শহীদ ধীরেন্দ্রনাথ দত্ত, সংগীতজ্ঞ শচীনদেব বর্মণ, কুসুমকুমারীসহ ৪৫ জন গুণী শিল্পীর স্মৃতি সংরক্ষণ ও কালচারাল কমপ্লেক্স নির্মাণের উদ্যোগের সঙ্গে শেরেবাংলা এ কে ফজলুল হক, কবি জীবনানন্দ দাশ ও কবি কামিনী রায়ের জন্ম ও মৃত্যুবার্ষিকী ক্যালেন্ডারভুক্ত করার উদ্যোগ নেওয়া হবে।

শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের মতো সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীদের সন্তানদের জন্য কোটা চালু করার প্রস্তাব করেন ডিসিরা। জবাবে মন্ত্রী বলেন, ‘একটি নিয়ম আছে—সরকারি কর্মকর্তারা যদি কোথাও বদলি হয়ে যান তাঁদের সন্তানরা সেখানকার সরকারি প্রতিষ্ঠানে ভর্তি হতে পারে, ফলে কোটা সংরক্ষণের কোনো বিষয় নেই। তাই শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের সন্তানদের জন্য শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ভর্তিতে কোটা রয়েছে, যেটি খুব একটা ব্যবহার হয় না।’

সরকারি কর্মকর্তাদের জন্য একটি বিশেষায়িত বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠায় ডিসিদের প্রস্তাবের বিষয়ে মন্ত্রী বলেন, ‘বিশ্ববিদ্যালয় করা একটি প্রক্রিয়ার বিষয়। তবে কিভাবে করা যায় সেটা ভেবে দেখব।’

এ ছাড়া শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানসহ সর্বত্র যৌন হয়রানি ঠেকাতে জনসচেতনতা বৃদ্ধি, প্রাইভেট-কোচিং বাণিজ্য বন্ধ, কারিগরি শিক্ষায় শিক্ষার্থীদের আকৃষ্ট করা, মাঠপর্যায়ে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান ভবন নির্মাণে তদারকিসহ যেখানে ডিসিদের কাজ করার সুযোগ রয়েছে সেসব জায়গায় কাজ করার বিষয়ে নির্দেশনা দেন শিক্ষামন্ত্রী।

সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষকরা নিয়মিত ও যথাসময়ে উপস্থিত হন না বলে অভিযোগ করেন একজন জেলা প্রশাসক। তবে আরেকজন ডিসি জানান, এই চিত্র সব জায়গায় নয়। পরে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা সচিব মো. আকরাম-আল-হোসেন ডিসিদের উদ্দেশে বলেন, ‘এডিসির (শিক্ষা) নেতৃত্বে আপনারা এ বিষয়ে একটি কমিটি গঠন করুন। আমাদের কাছে প্রতিবেদন পাঠান। আমরা ব্যবস্থা নেব।’ সচিব আরো বলেন, প্রাথমিক শিক্ষা পরিবারের চলমান অগ্রযাত্রাকে অব্যাহত রাখতে হলে মাঠপর্যায়ে নিয়মিত মনিটরিং বাড়াতে হবে। এ ছাড়া পরিদর্শনকালে প্রাথমিক শিক্ষার সমস্যাদি চিহ্নিত করে মন্ত্রণালয়কে জানালে পরবর্তী প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ সহজ হবে।

মন্ত্রিপরিষদসচিব মোহাম্মদ শফিউল আলমের সভাপতিত্বে আরো বক্তব্য দেন শিক্ষা উপমন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরী প্রমুখ।

গতকাল সচিবালয় ও প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় মিলে মোট পাঁচটি কার্য-অধিবেশন অনুষ্ঠিত হয়েছে। এর মধ্যে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় ও আওতাধীন সংস্থা সম্পর্কিত কার্য-অধিবেশন হয়েছে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে। এর বাইরে অর্থ মন্ত্রণালয়, বিদ্যুৎ জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ মন্ত্রণালয়, শিক্ষা মন্ত্রণালয়, প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়, সংস্কৃতিবিষয়ক মন্ত্রণালয়, তথ্য মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত কার্য-অধিবেশনগুলো চারটি ভাগে সচিবালয়ের মন্ত্রিপরিষদ বিভাগে অনুষ্ঠিত হয়েছে। সন্ধ্যার পর ডিসিরা বঙ্গভবনে রাষ্ট্রপতির সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাৎ করেন।

মন্তব্য