kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ১৪ নভেম্বর ২০১৯। ২৯ কার্তিক ১৪২৬। ১৬ রবিউল আউয়াল ১৪৪১     

দেউলিয়া হচ্ছে জেট এয়ারওয়েজ!

অগ্রিম টিকিটের টাকা ফেরত পাচ্ছে না বাংলাদেশের যাত্রীরাও

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

২২ মার্চ, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



দেউলিয়া হচ্ছে জেট এয়ারওয়েজ!

দেউলিয়া হওয়ার পথে ভারতের দ্বিতীয় বৃহত্তম উড়োজাহাজ প্রতিষ্ঠান জেট এয়ারওয়েজ। একের পর এক বন্ধ হচ্ছে উড়োজাহাজ চলাচল। বাতিল হচ্ছে ফ্লাইট। যাত্রীরা বাতিল ফ্লাইটের টিকিটের টাকা ফেরতের দাবি তুলে ক্ষোভ প্রকাশ করছে। বেতন বাকি পড়ায় কাজ বন্ধের হুমকি দিচ্ছেন হাজারখানেক বৈমানিক।

অর্থের অভাবে শেষমেশ দেউলিয়া ঘোষণার পথেই হঁভাটা নিয়ে উদ্বেগ তৈরি হয়েছে প্রতিষ্ঠানটির কর্মীদের মধ্যে। এ পরিস্থিতিতে কোনো ঝুঁকি না নিয়ে জেটকে বাঁচাতে উদ্যোগ নিচ্ছে নরেন্দ্র মোদি সরকার। আর্থিক সংকট থেকে বের করে আনতে বিভিন্ন রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাংককে এগিয়ে আসার আহ্বান জানিয়েছে সরকার। গত মঙ্গলবার এ নিয়ে প্রতিষ্ঠানটির কর্মকর্তাদের সঙ্গে জরুরি বৈঠক করে সরকার।

এদিকে জেটা এয়ারওয়েজের ফ্লাইট বন্ধ হয়ে যাওয়ায় ভোগান্তিতে পড়েছে বাংলদেশি যাত্রীরাও। ভারতে চিকিৎসা, পর্যটনসহ বিভিন্ন কাজে যাঁরা আগেই ভারতের এই এয়ারলাইনসটির টিকিট কেটেছিলেন তাঁরা টিকিটের টাকা ফেরত পাচ্ছেন না বলে জানা গেছে।

জ্বালানির মূল্য বৃদ্ধি এবং ডলারপ্রতি রুপির দামের পতনে প্রতিযোগিতায় ক্রমশ পিছিয়ে পড়ছে তারা। পাইলট ও ইঞ্জিনিয়ারদেরও নিয়মিত বেতন দিতে পারছে না। এর জেরে সম্প্রতি ৬০টি উড়োজাহাজ বসিয়ে দিতে বাধ্য হয় তারা, যা তাদের মোট উড়োজাহাজের প্রায় অর্ধেক। বিভিন্ন সংস্থা থেকে উড়োজাহাজ ভাড়া করে পরিষেবা দেয় জেট এয়ারওয়েজ। পাওনা না মেটাতে পারায় অনেক উড়োজাহাজ চলাচল বন্ধের সিদ্ধান্ত নিতে হয় প্রতিষ্ঠানটিকে।

বুধবার স্টেট ব্যাংক অব ইন্ডিয়ার চেয়ারম্যান রজনীশ কুমার সাংবাদিকদের জানান, জেট এয়ারওয়েজকে দেউলিয়া ঘোষণা করাটাই এখন ঋণদাতাদের কাছে শেষতম বাছাই। যদিও, বিমান সংস্থাটি যাতে ফের উঠে দাঁড়াতে পারে, সে জন্য সব রকম চেষ্টা চালাচ্ছেন তাঁরা। তিনি বলেন, ‘জেট এয়ারওয়েজ ফের উঠে দাঁড়াক এবং সংস্থাটির বিমানগুলো উড়ে চলুক, সেটা সবাই চায়।’ তিনি আরো বলেন, জেট এয়ারওয়েজকে দেউলিয়া ঘোষণা করার অর্থ হলো সংস্থাটির কফিনে শেষ পেরেকটি পুঁতে দেওয়া। তিনি জানান, আবুধাবির বিমান সংস্থা ‘ইতিহাদ’-এর সঙ্গে এ বিষয়ে কথা চলছে। ইতিহাদ জেট এয়ারওয়েজের সবচেয়ে বড় শেয়ারহোল্ডার। এ ছাড়া অন্য কোনো বিনিয়োগকারীও এগিয়ে আসতে পারেন।

রজনীশ কুমার জানান, জেট এয়ারওয়েজকে বাঁচানোর সব সিদ্ধান্তই বাণিজ্যিকভাবে নেওয়া হবে। এখানে সরকারের সঙ্গে কোনো যোগাযোগ নেই। ২৫ বছরের পুরনো এই বিমান সংস্থার মাথায় এখন ১ বিলিয়ন ডলার ঋণের বোঝা।

দেউলিয়া যাতে না হয়ে পড়ে জেট এয়ারওয়েজ, সেদিকে লক্ষ্য রাখতে রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাংকগুলোকে নির্দেশ দিয়েছে কেন্দ্রীয় সরকার। সামনেই লোকসভা নির্বাচন। কোনোভাবেই যাতে এই সময় কয়েক হাজার মানুষের চাকরি চলে না যায়, তা নিশ্চিত করতে চান প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। জেট এয়ারওয়েজের দুই কর্মকর্তা এ কথা জানান।

মোদিকে চিঠি জেট এয়ারওয়েজর পাইলটদের : বকেয়া বেতন যত তাড়াতাড়ি সম্ভব মিটিয়ে দেওয়ার জন্য এবার প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিকে চিঠি লিখেছেন জেট এয়ারওয়েজের পাইলটরা। পাইলট ও ইঞ্জিনিয়াররা বেতন পাচ্ছেন না তিন মাস ধরে। ৩১ মার্চের মধ্যে তাঁদের বেতন না মেটালে ১ এপ্রিল থেকে তাঁরা বিমান চালাবেন না বলে হুমকি দিয়েছেন কয়েক দিন আগে। আর এয়ারলাইন্সটি বন্ধ হলে কর্মহীন হয়ে পড়বেন কয়েক হাজার কর্মচারী। এর জেরে কমবে বিমানের সংখ্যা। যাত্রীরা পড়বেন দুর্ভোগে। কয়েকবার অনুরোধ করা সত্ত্বেও বকেয়া মেটানো হয়নি তাঁদের। এর পরও যাত্রীদের দুর্ভোগের কথা ভেবে পাইলটরা বিমান চালিয়ে যাচ্ছেন। সূত্র : হিন্দুস্তান টাইমস, এনডিটিভি।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা