kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ১১ আগস্ট ২০২২ । ২৭ শ্রাবণ ১৪২৯ । ১২ মহররম ১৪৪৪

ওয়াকফ আইনে মুতাওয়াল্লির কর্মপরিধি ও ক্ষমতা

মো. আবদুল মজিদ মোল্লা   

১ জুলাই, ২০২২ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



ওয়াকফ আইনে মুতাওয়াল্লির কর্মপরিধি ও ক্ষমতা

মুসলিম আইন অনুসারে মুতাওয়াল্লি ওয়াকফ সম্পত্তির ব্যবস্থাপক। ইসলামী আইনানুসারে ওয়াকফ সম্পত্তিতে মুতাওয়াল্লির ওপর সম্পত্তি ন্যস্ত নয়। মুতাওয়াল্লি একজন ব্যবস্থাপক বা পরিচালক মাত্র। আধুনিক আইনের ‘ট্রাস্টি’র সঙ্গে মুতাওয়াল্লির প্রায়োগিক পার্থক্য আছে।

বিজ্ঞাপন

কারা মুতাওয়াল্লি হতে পারবেন : যেকোনো সুস্থ, প্রাপ্ত বয়স্ক ও ওয়াকফ ব্যবস্থাপনায় নির্ধারিত দায়িত্ব পালনে সক্ষম ব্যক্তি মুতাওয়াল্লি হিসেবে নিয়োগ পেতে পারেন। অবশ্য একজন অপ্রাপ্ত শিশুও মুতাওয়াল্লি হতে পারে যদি ওয়াকফ সম্পত্তি বংশীয় ধারায় পরিচালিত হয়ে আসে অথবা ওয়াকফ দলিলে উত্তরাধিকারীদের তত্ত্বাবধানের শর্তারোপ করা হয়। এমন পরিস্থিতিতে ওয়াকফ সম্পত্তি পরিচালনার ভার শিশুর ওপর ন্যস্ত হবে। নারীদের মুতাওয়াল্লি হওয়ার ক্ষেত্রে আইনত কোনো বাধা নেই। কিন্তু যেখানে মুতাওয়াল্লিকে নানামুখী ধর্মীয় দায়িত্ব পালন করতে হয় সেখানে নারী ও অমুসলিমরা মুতাওয়াল্লি হতে পারে না।

মুতাওয়াল্লি কে নিয়োগ দেবে : নিম্নোক্ত ব্যক্তি বা কর্তৃপক্ষ মুতাওয়াল্লি নিয়োগ ও প্রত্যাহারের ক্ষমতা রাখেন। তাঁরা হলেন—

১. প্রতিষ্ঠাতা : ওয়াকফ প্রতিষ্ঠাতা মুতাওয়াল্লি নিয়োগের পূর্ণাঙ্গ ক্ষমতা রাখেন। তিনি নিজেকেও প্রথম মুতাওয়াল্লি ঘোষণা করতে পারেন। তিনি পরবর্তী মুতাওয়াল্লি নিয়োগে বিধি-নিষেধ প্রণয়ন করতে পারেন। মৃত্যুশয্যায় তিনি একজন অপরিচিত ব্যক্তিকেও মুতাওয়াল্লি নিয়োগ দিতে পারেন।

২. মুতাওয়াল্লি : যদি কোথাও প্রতিষ্ঠাতা বা ওয়াকিফ (ওয়াকফকারী) মারা যান এবং আগে থেকে মুতাওয়াল্লি নিয়োগে কোনো নীতিমালা না থাকে, তবে বর্তমান মুতাওয়াল্লি তাঁর মৃত্যুশয্যায় বা শারীরিক সামর্থ্য হারানোর পর তাঁর উত্তরসূরি নির্ধারণ করতে পারবেন। যদি যৌথ মুতাওয়াল্লিদের একজন মারা যান এবং ওয়াকফনামায় এই বিষয়ে কোনো নির্দেশনা না থাকে, তবে অবশিষ্টদের একজন ওফাকফ পরিচালনার দায়িত্ব গ্রহণ করতে পারবেন।

৩. আদালত : যখন প্রতিষ্ঠাতা বা ওয়াকিফ কোনো মুতাওয়াল্লি নিয়োগ না দেন অথবা তিনি মুতাওয়াল্লি হওয়ার যোগ্যতা না রাখেন, তখন আদালত একজন মুতাওয়াল্লি নিয়োগ দিতে পারবেন। জেলা আদালতের ওপরই মুতাওয়াল্লি নিয়োগের দায়িত্ব বর্তাবে। মুতাওয়াল্লি নিয়োগের সময় আদালত নিম্নোক্ত বিষয়গুলো অনুসরণ করবেন—ক. আদালত নিয়ন্ত্রণকারীদের নির্দেশনা উপেক্ষা করবেন। খ. তবে অপরিচিত ব্যক্তির ওপর বর্তমান ব্যবস্থাপনার সঙ্গে যুক্ত কোনো ব্যক্তিকে অগ্রাধিকার দেবেন।

৪. সংঘবদ্ধ মানুষ : মসজিদ ও কবরস্থানের মতো যেসব ওয়াকফ সম্পদ পুরোপুরি স্থানীয়, সেখানে সংঘবদ্ধ স্থানীয় মানুষ মুতাওয়াল্লি নিয়োগ দিতে পারবে।

মুতাওয়াল্লির ক্ষমতা : মুতাওয়াল্লি ওয়াকফ সম্পত্তি ব্যবস্থাপনা ও পরিচালনার ক্ষমতা রাখেন। যে উদ্দেশ্যে সম্পদ ওয়াকফ করা হয়েছে, সেই উদ্দেশ্যে তিনি সম্পত্তি ব্যবহারের পূর্ণ ক্ষমতা রাখেন। আদালতের পূর্বানুমতি সাপেক্ষে তিনি সম্পত্তি বিচ্ছিন্ন (বিক্রি বা দান) করার ক্ষমতা রাখেন। আদালতের পূর্বানুমতি ছাড়া এমনটি করলে তা বাতিল বলে গণ্য হবে। ওয়াকফ আইন ১৯৫৪ কার্যকর হওয়ার আগে মুতাওয়াল্লি ওয়াকফ বিষয়ে মামলা দায়ের করার ক্ষমতা রাখতেন। কিন্তু বর্তমান আইনে এই ক্ষমতা কেবল ওয়াকফ বোর্ডকেই দেওয়া হয়েছে।

মুতাওয়াল্লিকে বরখাস্ত করা : মুতাওয়াল্লি হিসেবে নিয়োগ পাওয়ার পর প্রতিষ্ঠাতা কোনো ব্যক্তিকে বরখাস্ত করার অধিকার রাখেন না। যদি না, ওয়াকফনামায় তাঁকে এই ক্ষমতা দেওয়া হয়। কোর্ট মুতাওয়াল্লি বরখাস্ত করার ক্ষমতা রাখেন। আদালত ভুলভ্রান্তি, বিশ্বাসভঙ্গ, অযোগ্যতা অথবা যেকোনো গ্রহণযোগ্য কারণে মুতাওয়াল্লি বরখাস্ত করতে পারেন।

লয়ার্স জ্ঞান ডটকম অবলম্বনে



সাতদিনের সেরা