kalerkantho

শনিবার । ১ অক্টোবর ২০২২ । ১৬ আশ্বিন ১৪২৯ ।  ৪ রবিউল আউয়াল ১৪৪৪

কানে ইয়ারফোন ট্রেনের ধাক্কায় যুবকের মৃত্যু

সীতাকুণ্ড ( চট্টগ্রাম) প্রতিনিধি   

১২ আগস্ট, ২০২২ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



কানে ইয়ারফোন ট্রেনের ধাক্কায় যুবকের মৃত্যু

কানে ইয়ারফোন লাগিয়ে গান শুনতে শুনতে অসতর্কভাবে পথ চলতে গিয়ে নানা ধরনের বিপত্তির চিত্র নতুন নয়। তবে কানে ইয়ারফোন লাগিয়ে গান শুনতে শুনতে অসতর্কভাবে রেললাইন ধরে চলতে গিয়ে ট্রেনের ধাক্কায় প্রাণ হারানো বড় মর্মান্তিক। তেমনি এক মর্মান্তিক ঘটনা ঘটেছে চট্টগ্রামের সীতাকুণ্ডে। গত বুধবার রাত ৯টার দিকে সীতাকুণ্ড উপজেলার সিরাজ ভূইয়া রাস্তার মাথা (রহমতনগর) এলাকার রেললাইন ধরে চলতে গিয়ে ট্রেনের ধাক্কায় নিহত হন এক যুবক।

বিজ্ঞাপন

তাঁর নাম সাইফুল ইসলাম (২০)।

জানা গেছে, দুর্ঘটনার পরে কাপড়ে পেঁচিয়ে ওই যুবকের দেহ ট্রেনের ইঞ্জিনের সঙ্গে আটকে যায়। এই ৃঅবস্থায় তাঁর দেহ ট্রেনের ইঞ্জিনের সঙ্গে ১৫ কিলোমিটার দূরে কুমিরা স্টেশনে চলে আসে। সেখানে চালক ইঞ্জিন পরীক্ষা করে ওই যুবকের মৃতদেহ উদ্ধার করেন। সাইফুল সীতাকুণ্ডের বাড়বকুণ্ড ইউনিয়নের ভুলাইপাড়ার মৃত শারাফাতুল্লাহ ছেলে। তিনি স্থানীয় একটি কারখানার শ্রমিক ছিলেন।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, বুধবার রাতে কারখানা ছুটির পর কানে ইয়ারফোন লাগিয়ে গান শুনতে শুনতে রেললাইন ধরে হাঁটছিলেন সাইফুল। এ সময় ঢাকা থেকে ছেড়ে আসা চট্টলা এক্সপ্রেস ট্রেনটি তাঁকে ধাক্কা দেয়। কাপড়ে পেঁচিয়ে ট্রেনের ইঞ্জিনের সঙ্গে তাঁর দেহ আটকে যায়। কুমিরা স্টেশনে ট্রেন থামার পর মৃতদেহটি উদ্ধার করে জিআরপি পুলিশ।

কুমিরা রেলওয়ে স্টেশনের সহকারী স্টেশন মাস্টার আজিজুল হক বলেন, যুবকটি কানে ইয়ারফোন লাগিয়ে রেললাইন ধরে হাঁটছিলেন। এ সময় ধাক্কা লেগে ট্রেনের সামনের অংশ ইঞ্জিনের সঙ্গে আটকে যায় তাঁর দেহ। জিআরপি পুলিশ নিহত যুবকের মরদেহ উদ্ধার করেছে।

সীতাকুণ্ড রেলওয়ে পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ ইসমাইল হোসেন জানান, মৃতদেহটি উদ্ধারের পর ময়নাতদন্তের জন্য চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজ (চমেক) হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে। আইনি প্রক্রিয়া শেষে মরদেহ তাঁর স্বজনদের কাছে হস্তান্তর করা হবে।

এর আগে গত মঙ্গলবার রাতে সীতাকুণ্ডের সলিমপুর এলাকায় রেললাইনে বসে গিটার বাজানোর সময় ট্রেনে কাটা পড়ে নিহত হন ওমর ফারুক নামের এক যুবক।

ট্রেনের ধাক্কায় পুলিশ সদস্যের মৃত্যু

রাজধানীর কুড়িল বিশ্বরোড এলাকায় ট্রেনের ধাক্কায় ইয়ামিন আহম্মদ (৩৫) নামের এক পুলিশ সদস্যের মৃত্যু হয়েছে। পাবলিক অর্ডার ম্যানেজমেন্ট  মিরপুর পুলিশলাইনে তিনি কনস্টেবল পদে কর্মরত ছিলেন। গতকাল বৃহস্পতিবার দুপুরে কুড়িল বিশ্বরোড ও খিলক্ষেতের মধ্যবর্তী স্থানের রেললাইনে কিশোরগঞ্জ এক্সপ্রেস ট্রেনের ধাক্কায় তাঁর মৃত্যু হয়।

বিমানবন্দর রেলস্টেশনের পুলিশ ফাঁড়ির উপপরিদর্শক (এসআই) কামরুল হাসান বলেন, প্রত্যক্ষদর্শীরা জানিয়েছে, ইয়ামিন মোবাইলে কথা বলতে বলতে রেললাইন ধরে হাঁটছিলেন। এ সময় ট্রেনটি এসে তাঁকে ধাক্কা দেয়। নিহতের মরদেহ ময়নাতদন্তের জন্য ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে।

 

 

 



সাতদিনের সেরা