kalerkantho

শনিবার । ২০ আগস্ট ২০২২ । ৫ ভাদ্র ১৪২৯ । ২১ মহররম ১৪৪৪

শিক্ষক হত্যা-লাঞ্ছনা

বান্ধবীর সামনে হিরো সাজতে খুন করে জিতু

নড়াইলে রনির রিমান্ড শুনানি ৩ জুলাই

নিজস্ব প্রতিবেদক ও নড়াইল প্রতিনিধি   

১ জুলাই, ২০২২ ০০:০০ | পড়া যাবে ৪ মিনিটে



 বান্ধবীর সামনে হিরো সাজতে খুন করে জিতু

সাভারের আশুলিয়ার হাজী ইউনুছ আলী স্কুল অ্যান্ড কলেজের শিক্ষক উৎপল কুমার সরকারকে হত্যার প্রধান আসামি ওই শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থী আশরাফুল আহসান জিতু ওরফে জিতু দাদা। বুধবার গাজীপুরের শ্রীপুর থেকে তাকে গ্রেপ্তার করে র‌্যাব। গতকাল বৃহস্পতিবার দুপুরে রাজধানীর কারওয়ান বাজারে র‌্যাব মিডিয়া সেন্টারে এক সংবাদ সম্মেলনে এ সম্পর্কে বিস্তারিত তুলে ধরেন র‌্যাবের লিগ্যাল অ্যান্ড মিডিয়া উইংয়ের পরিচালক কমান্ডার খন্দকার আল মঈন।

তিনি বলেন, ‘স্কুলের এক ছাত্রীর সঙ্গে ঘটনার কয়েকদিন আগে ঘোরাফেরা করেছিল জিতু।

বিজ্ঞাপন

শিক্ষক উৎপল তাকে এ থেকে বিরত থাকতে বলেন। এ ঘটনায় জিতু শিক্ষক উৎপলের ওপর ক্ষুব্ধ হয় এবং ওই ছাত্রীর কাছে নিজের হিরোগিরি দেখাতেই উৎপলের ওপর হামলা চালায়। ’

গত ২৫ জুন ক্রিকেট স্টাম্প নিয়ে স্কুলে শ্রেণিকক্ষের পেছনে লুকিয়ে রাখে জিতু। পরে কলেজ মাঠে ছাত্রীদের ক্রিকেট টুর্নামেন্ট চলাকালে শিক্ষক উৎপল কুমারকে মাঠের এক কোণে একা দাঁড়িয়ে থাকতে দেখে জিতু স্টাম্প দিয়ে তাঁর ওপর হামলা চালায়। পরে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় পরদিন উৎপল কুমার সরকার মারা যান।

র‌্যাব জানায়, শিক্ষাজীবনে জিতু প্রথমে স্কুলে, পরে মাদরাসা এবং সব শেষ ফের স্কুলে ভর্তি হয়। দশম শ্রেণির ছাত্র জিতু স্কুলে সবার কাছে একজন উচ্ছৃঙ্খল ছাত্র হিসেবে পরিচিত। বিভিন্ন সময় শৃঙ্খলা ভঙ্গ, মারামারিসহ স্কুলের পরিবেশ নষ্টের অভিযোগ রয়েছে তার বিরুদ্ধে। স্কুলে যাওয়া-আসার পথে ও স্কুল চলাকালে ছাত্রীদের ইভ টিজিং ও বিরক্ত করত জিতু। স্কুল প্রাঙ্গণে সবার সামনে ধূমপান, স্কুল ইউনিফর্ম ছাড়া স্কুলে আসা-যাওয়া, মোটরসাইকেল নিয়ে বেপরোয়াভাবে চলাফেরা করত।

জিতু তার নেতৃত্বে এলাকায় ‘জিতু দাদা’ নামে একটি কিশোর গ্যাং গড়ে তোলে। গ্যাং সদস্যদের নিয়ে মাইক্রোবাসে ঘুরে আধিপত্য বিস্তার করত। পরিবারের কাছে তার বিরুদ্ধে অভিযোগ করলে জিতু তার অনুসারী গ্যাং সদস্যদের নিয়ে অভিযোগকারীর ওপর চড়াও হতো। জিতুর জেএসসির সার্টিফিকেট অনুযায়ী তার বছর ১৯ বছর। কিন্তু মামলার এজাহারে তার বয়স ১৬ উল্লেখ করা হয়েছে বলে জানান র‌্যাব কর্মকর্তা খন্দকার আল মঈন।

পাঁচ দিনের রিমান্ডে জিতু 

এদিকে শিক্ষক উৎপল কুমার সরকার হত্যার ঘটনায় দায়ের করা মামলায় অভিযুক্ত আশরাফুল আহসান জিতুর পাঁচ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন আদালত। গতকাল বৃহস্পতিবার ঢাকার সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট রাজিব হাসানের আদালত এ রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

গতকাল আসামি জিতুকে আদালতে হাজির করে ১০ দিনের রিমান্ড আবেদন করেন মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা উপপরিদর্শক এমদাদুল হক। রাষ্ট্রপক্ষ রিমান্ডের পক্ষে শুনানি করে। আসামি জিতুর পক্ষে কোনো আইনজীবী ছিলেন না। এ সময় কেন হত্যা করা হয়েছে জানতে চাইলে জিতু বিচারককে বলে, ‘রিমা নামের এক মেয়ের সঙ্গে আমার সম্পর্ক ছিল। শিক্ষক আমার প্রেমে বাধা হয়ে দাঁড়িয়েছিলেন। আমার বাসায় গিয়ে দুর্নাম ছড়িয়েছেন। এ ছাড়া আরেক মেয়ের কথা বলে আমার বাসায় দুর্নাম ছড়িয়েছেন। আমি এতে ক্ষিপ্ত হয়ে তাঁকে স্টাম্প দিয়ে আঘাত করি। ’

শুনানি শেষে আদালত জিতুর পাঁচ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন। এদিকে রিমান্ড আবেদনে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা জিতুর বয়স ১৯ নির্ধারণ করেছেন। এর আগে মামলার এজাহারে তার বয়স ১৬ বছর উল্লেখ করা হয়েছিল।

নড়াইলে প্রধান আসামি রনির রিমান্ড শুনানি ৩ জুলাই

নড়াইলে কলেজের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষকে জুতার মালা পরিয়ে হেনস্তার ঘটনার প্রধান আসামি রহমতউল্লাহ বিশ্বাস রনিকে গতকাল দুপুরে আদালতে হাজির করা হয়। পুলিশের পক্ষ থেকে আদালতে পাঁচ দিনের রিমান্ড চেয়ে আবেদন করা হয়। আসামির রিমান্ড শুনানি আগামী ৩ জুলাই হবে বলে জানিয়েছেন আদালত। এ নিয়ে নড়াইলের ঘটনায় অজ্ঞাতপরিচয় ১৮০ জন আসামির মধ্যে চারজনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

 



সাতদিনের সেরা