kalerkantho

বুধবার ।  ২৫ মে ২০২২ । ১১ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯ । ২৩ শাওয়াল ১৪৪৩  

ফল ঘোষণার পর তৈমূর

ইভিএম কারচুপির কারণে হেরেছি

নিজস্ব প্রতিবেদক   

১৭ জানুয়ারি, ২০২২ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



ইভিএম কারচুপির কারণে হেরেছি

তৈমূর আলম খন্দকার

নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশন নির্বাচনের বেসরকারি ফল ঘোষণার পর রাতে তাত্ক্ষণিক প্রতিক্রিয়ায় স্বতন্ত্র প্রার্থী তৈমূর আলম খন্দকার দাবি করেন, “আইভী কোনো ফ্যাক্টর নয়। খেলা হয়েছে সরকার বনাম তৈমূর’। প্রধানমন্ত্রীর দৃষ্টি আকর্ষণ করে বলেছিলাম সুষ্ঠু নির্বাচন দিতে। এতে তাঁর ভাবমূর্তি বৃদ্ধি পেত।

বিজ্ঞাপন

তিনি বিবেচনায় নেননি। তাই এমন ফলাফল। প্রশাসনিক ইঞ্জিনিয়ারিং ও ইভিএম কারচুপির কারণে আমার পরাজয় হয়েছে। ইভিএম চুরির বাক্স। নারায়ণঞ্জের নির্বাচনের ফলাফল কী হয়েছে, সেই বিবেচনার ভার আমি প্রধানমন্ত্রীকে দিলাম। ”

স্বতন্ত্রপ্রার্থী তৈমূর আলম বলেন, ভোটে জনগণের স্বতঃস্ফূর্ত অংশগ্রহণ ছিল। তবে জনগণ ভোট দিতে পারেনি। তিন ঘণ্টা দাঁড়িয়ে ভোট দিতে পারেনি। না হলে ভোটের ব্যবধান এত হতো না। তৈমূর অভিযোগ করেন, ইভিএম স্লো থাকার কারণে অনেকে দীর্ঘক্ষণ লাইনে দাঁড়িয়ে থেকে চলে গেছেন। কোথাও কোথাও অকেজো ও হ্যাং হয়ে গেছে। তা ছাড়া ভেতর থেকেও ইঞ্জিনিয়ারিং হয়েছে। তা না হলে ব্যবধান এত বেশি হতো না।

কর্মী-সমর্থকদের ধরপাকড়ের অভিযোগ করে তৈমূর আরো বলেন, নির্বাচনের আগে আমার লোকজন বাড়িতে থাকতে পারেনি। মহানগর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক এ টি এম কামালের মতো মানুষের বাসায় নির্বাচনের আগের দিন অভিযান চালানো হয়েছে। তাঁর গাড়িচালককে আটক করা হয়েছে। এমন কোনো কর্মী নেই, যার বাড়িতে পুলিশ যায়নি, যাকে ভয় দেখানো হয়নি।

সিটি করপোরেশন চালাতে আইভীকে সহযোগিতা করবেন কি না জানতে চাইলে তৈমূর বলেন, ‘আমি  তাঁকে সহযোগিতা করি কি না, তা তাঁকেই জিজ্ঞেস করুন। ’

ভবিষ্যতে বিএনপির রাজনীতি করবেন কি না জানতে চাইলে দলের চেয়ারপারসনের সাবেক উপদেষ্টা বলেন, ‘রাজনীতি করতে দল লাগে। পদ-পদবি লাগে না। তৈমূর আলম খন্দকারের পদ লাগবে না। বিএনপি আমার রক্তের সঙ্গে মিশে গেছে। এটা নিয়েই মরতে চাই। ’

 

 



সাতদিনের সেরা