kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ১৩ মাঘ ১৪২৮। ২৭ জানুয়ারি ২০২২। ২৩ জমাদিউস সানি ১৪৪৩

মুরাদের বিরুদ্ধে মামলা করবে বিএনপি

নিজস্ব প্রতিবেদক   

৮ ডিসেম্বর, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



মুরাদের বিরুদ্ধে মামলা করবে বিএনপি

সাবেক তথ্য ও সম্প্রচার প্রতিমন্ত্রী মুরাদ হাসানের বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা নেবে বিএনপি। গত সোমবার রাতে দলের জাতীয় স্থায়ী কমিটির ভার্চুয়াল সভায় এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। গতকাল মঙ্গলবার বিএনপির পক্ষ থেকে গণমাধ্যমে পাঠানো এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।

নারীদের নিয়ে ‘বিতর্কিত’ ও ‘অসম্মানজনক’ বক্তব্যের পর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশে গতকাল মন্ত্রিসভা থেকে পদত্যাগ করেন মুরাদ হাসান।

বিজ্ঞাপন

খালেদা জিয়া, তারেক রহমান এবং জিয়া পরিবারের সদস্যদের নিয়ে ‘অশালীন’ বক্তব্যের নিন্দা ও  প্রতিবাদ জানিয়ে সভায় বলা হয়, মুরাদ হাসানকে প্রকাশ্যে জনগণের কাছে ক্ষমা চাইতে হবে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক সভায় উপস্থিত এক নেতা কালের কণ্ঠকে বলেন, মুরাদের বিরুদ্ধে ৬৪ জেলায় মানহানির মামলা করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, সভায় খালেদা জিয়ার মুক্তি এবং উন্নত চিকিৎসার জন্য বিদেশে পাঠানোর দাবিতে আগামী ২০ ডিসেম্বর থেকে জেলা পর্যায়ে সমাবেশ করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। এসব সমাবেশে কেন্দ্রীয় নেতারা উপস্থিত থাকবেন।

গতকাল সকালে নয়াপল্টনের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে বিএনপির জ্যেষ্ঠ যুগ্ম মহাসচিব রিজভী আহমেদ বলেন, মুরাদ হাসানের পদত্যাগই যথেষ্ট নয়, তাঁকে শাস্তির আওতায় আনতে হবে। তাঁকে গ্রেপ্তার করে বিচার করতে হবে।  

বিএনপিপন্থী আইনজীবীদের আলটিমেটাম : বিএনপি সমর্থক আইনজীবীরা খালেদা জিয়াকে আগামী চার দিন অর্থাৎ শনিবারের মধ্যে চিকিৎসার জন্য বিদেশে পাঠাতে সরকারের প্রতি সময় বেঁধে দিয়েছেন।

গতকাল বিকেলে জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে আইনজীবীদের সমাবেশ থেকে জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ফোরামের সদস্যসচিব সুপ্রিম কোর্টের জ্যেষ্ঠ আইনজীবী ফজলুর রহমান আলটিমেটাম দিয়ে কর্মসূচি ঘোষণা করেন।

সমাবেশে বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন, ‘আমাদের আইনজীবীরা বলেছেন, আইন দেখাচ্ছেন। কোন আইন? ৪০১ ধারা আইন দেখাচ্ছেন। সেখানে পরিষ্কার করে বলা আছে, শুধু সরকারই পারে তাঁকে বিদেশে চিকিৎসার জন্য পাঠাতে। এখানে আইন কোনো বাধা নয়, বাধা হচ্ছে সরকার। ’ মির্জা ফখরুল অভিযোগ করেন, সরকার শুধু প্রতিহিংসায় খালেদা জিয়াকে মিথ্যা মামলায় সাজা দিয়ে বন্দি করে রেখেছে।

বিজয় দিবসের কর্মসূচি ঘোষণা : সংবাদ সম্মেলনে মহান বিজয় দিবস ও শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবস উপলক্ষে ঢাকায় বিজয় শোভাযাত্রাসহ পাঁচ দিনের কর্মসূচি ঘোষণা করেন রিজভী। কর্মসূচির মধ্যে রয়েছে—ভোরে দলীয় সব কার্যালয়ে জাতীয় ও দলীয় পতাকা উত্তোলন, সকাল সাড়ে ৭টায় সাভারে জাতীয় স্মৃতিসৌধে পুষ্পস্তবক অর্পণ, সেখান থেকে শেরেবাংলানগরে সাবেক রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের কবরে শ্রদ্ধা নিবেদন, ১৭ ডিসেম্বর সকাল ১১টায় নয়াপল্টনের কার্যালয় থেকে শোভাযাত্রা এবং ১৯ ডিসেম্বর দুপুর ২টায় মহানগর নাট্যমঞ্চে আলোচনাসভা।

১৪ ডিসেম্বর কর্মসূচির মধ্যে রয়েছে—ওই দিন ভোরে কেন্দ্রীয় কার্যালয়সহ সারা দেশে কালো পতাকা উত্তোলন ও দলীয় পতাকা অর্ধনমিতকরণ, সকাল ৯টায় শহীদ বুদ্ধিজীবী স্মৃতিস্তম্ভে পুষ্পস্তবক অর্পণ এবং ১৫ ডিসেম্বর দুপুর ২টায় ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউশনে আলোচনাসভা।



সাতদিনের সেরা