kalerkantho

সোমবার । ১৪ মাঘ ১৪২৮। ১৭ জানুয়ারি ২০২২। ১৩ জমাদিউস সানি ১৪৪৩

গাংনীতে দুই ভাইকে কুপিয়ে হত্যা

► কক্সবাজারে সদস্য পদপ্রার্থী গুলিবিদ্ধ
► পটুয়াখালীতে জখম স্বতন্ত্রপ্রার্থী
► যশোরে সংঘর্ষ আহত ১২

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

৯ নভেম্বর, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ৬ মিনিটে



গাংনীতে দুই ভাইকে কুপিয়ে হত্যা

দুই ছেলেকে হারিয়ে আহাজারি করছেন মা হাজেরা খাতুন। গতকাল মেহেরপুরের গাংনী উপজেলার লক্ষ্মীনারায়ণপুর ধলা গ্রামে। ছবি : কালের কণ্ঠ

ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) নির্বাচন ঘিরে মেহেরপুরের গাংনীর কাথুলীতে দুই ভাইকে কুপিয়ে হত্যা করা হয়েছে। কাথুলী ইউনিয়নের ৭ নম্বর ওয়ার্ডের মেম্বার (ইউপি সদস্য) পদপ্রার্থী আতিয়ার রহমানের নেতৃত্বে তাঁর কর্মীরা লক্ষ্মীনারায়ণপুর ধলা গ্রামে গতকাল সোমবার সকাল ৯টার দিকে এ ঘটনা ঘটান।

নিহত ব্যক্তিরা হলেন জাহারুল ইসলাম (৫৭) ও সাহাদুল ইসলাম (৫৫)। তাঁরা মৃত সুলতান ফকিরের ছেলে এবং বর্তমান মেম্বার ও প্রার্থী আজমাইন হোসেন টুটুলের মামাতো ভাই। ওই সংঘর্ষে উভয় পক্ষের আরো ১০ জন আহত হয়েছেন। আহতদের মধ্যে মেম্বার আজমাইন হোসেন, জাহারুলের স্ত্রী শেফালি খাতুন, মেয়ে চম্পা খাতুন, সাহাদুলের মেয়ে সুবর্ণা খাতুন রয়েছেন। তাঁদের গাংনী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ও কুষ্টিয়া মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। গত রাতে এই প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত থানায় মামলা করা হয়নি। আগামী বৃহস্পতিবার কাথুলী ইউনিয়নের ৭ নম্বর ওয়ার্ডের ভোটগ্রহণ হওয়ার কথা রয়েছে।

পুলিশ জানিয়েছে, লাশ দুটি ময়নাতদন্তের জন্য মেহেরপুর জেনারেল হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে। ঘটনাস্থলে পুলিশ মোতায়েন রয়েছে। এলাকার পরিস্থিতি এখনো থমথমে। এ ঘটনায় আতিয়ারের ভাই মহাব্বত হোসেনসহ ১২ জনকে থানায় নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে। কারো সম্পৃক্ততা পাওয়া গেলে তাদের আটক দেখানো হবে। সংঘর্ষের পর র‌্যাবের একটি দল আতিয়ারের ভাইয়ের বাড়ি থেকে ১১টি ধারালো অস্ত্র, দুটি টেঁটা, একটি বল্লম ও তিনটি মাথাল উদ্ধার করেছে।

হামলায় নেতৃত্ব দেওয়া আতিয়ার রহমান গাংনী উপজেলা কৃষক লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সাবেক মেম্বার। তিনি আজমাইন হোসেনের ভাই এনামুল হক নইলু হত্যা মামলার প্রধান আসামিও। এ ঘটনার ব্যাপারে জানতে আতিয়ার রহমানের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তাঁর মোবাইল ফোন বন্ধ পাওয়া যায়।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, আতিয়ারের নেতৃত্বে মাঝপাড়ার তামাল, জামাল, কামাল, জালাল, মানা, হানা, মহাব্বতসহ ১৫ থেকে ১৬ জনের একটি দল দেশি অস্ত্র নিয়ে জাহারুল ও সাহাদুলের ওপর হামলা চালায়। ঘটনাস্থলেই তাঁরা মারা যান। এ সময় উভয় পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ বাধে। নিহত সাহাদুলের মেয়ে সুবর্ণা খাতুন জানান, আজমাইনের সমর্থকরা সকালে ভোট চাইতে গেলে আতিয়ারের লোকজন অতর্কিত হামলা করেন।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, আধিপত্য বিস্তার নিয়ে বর্তমান ইউপি সদস্য আজমাইন হোসেন ও কৃষক লীগ নেতা আতিয়ার রহমানের মধ্যে দীর্ঘদিন ধরে দ্বন্দ্ব চলছিল। এবার তাঁরা দুজনই নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। ২০১৭ সালে দ্বন্দ্বের জেরে আজমাইনের ভাই এনামুল হক নইলুকে আতিয়ারের লোকজন কুপিয়ে হত্যা করে। সেই মামলার প্রধান আসামি আতিয়ার। এর আগে ২০০৯ সালে আজমাইনের ভাই সেন্টুকেও আতিয়ারের লোকজন হত্যা করেছিল।

ঘটনার পর গতকাল সরেজমিনে লক্ষ্মীনারায়ণ ধলা গ্রামে গিয়ে দেখা যায়, আটক এড়াতে গ্রামটি প্রায় পুরুষশূন্য। আতিয়ার গ্রুপের কোনো নারী-পুরুষকে বাড়িতে পাওয়া যায়নি। ঘটনার পরপরই তারা বিভিন্ন স্থানে আত্মগোপনে চলে গেছে। দেয়ালে আজমাইন হোসেনের নির্বাচনী পোস্টারগুলো ছেঁড়া দেখা গেছে। তবে আতিয়ার রহমানের পোস্টারগুলো ছিল অক্ষত।

আজমাইন হোসেনের ভাবি বিলকিছ আরা জানান, আজমাইনের সঙ্গে ভোটে জিততে না পেরে তাঁর সঙ্গে দ্বন্দ্বে জড়িয়েছেন আতিয়ার। এ কারণে ২০১৭ সালে তাঁর স্বামী এনামুলকেও হত্যা করেন আতিয়ার। এবারও ভোটে জিততে পারবে না ভেবে আজমাইনসহ তাঁর পুরো বংশকে খুন করার জন্য আজ এই হত্যাযজ্ঞ চালিয়েছে।

মেহেরপুরের পুলিশ সুপার রাফিউল আলম বলেন, ঘটনা তদন্তে পুলিশের বিভিন্ন ইউনিট কাজ শুরু করেছে।

কক্সবাজারে আরেক মেম্বার প্রার্থী গুলিবিদ্ধ : ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে কক্সবাজারে আরেকজন মেম্বার প্রার্থী গুলিবিদ্ধ হয়েছেন। রেজাউর রহমান নামের ওই মেম্বার প্রার্থীকে জেলা সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। 

পুলিশ ও এলাকাবাসী জানায়, গতকাল রাত সাড়ে ৯টার দিকে পিএমখালী ইউনিয়নের তুতকখালী এলাকার বটতলী স্টেশনের একটি চায়ের দোকানের বাইরে ১০-১২ জন লোক নিয়ে তিনি নির্বাচনী প্রচারণা চালাচ্ছিলেন। এ সময় মোটরসাইকেলে এসে দুর্বৃত্তরা তাঁকে গুলি করে দ্রুত পালিয়ে যায়। গুলিবিদ্ধ মিজানুর কক্সবাজার সদর উপজেলার পিএমখালী ইউনিয়ন পরিষদের ৩ নম্বর ওয়ার্ডের মেম্বার প্রার্থী।

গত শুক্রবার রাতে ঝিলংজা ইউনিয়নের মেম্বারপ্রার্থী কুদরত উল্লাহ সিকদার ও তাঁর ভাই জহিরুল ইসলাম সিকদার গুলিবিদ্ধ হন।

শার্শায় স্বতন্ত্র প্রার্থীর সমর্থকদের হামলায় নৌকা প্রার্থীর ১২ কর্মী আহত : যশোরের শার্শার বাগআঁচড়ার সোনাতনকাটি বামুনিয়া বাজারে গত রবিবার রাতে স্বতন্ত্র প্রার্থী আব্দুল খালেক সমর্থকদের হামলায় নৌকার প্রার্থী ইলিয়াছ কবির বকুলের ১২ কর্মী আহত হয়েছেন। এ ঘটনায় রাতেই আব্দুল খালেকসহ ২০ জনের নামে অভিযোগ করা হয়েছে। প্রতিবাদে বাগআঁচড়া বাজারে বিক্ষোভ করেছেন আওয়ামী লীগ, যুবলীগ ও ছাত্রলীগ নেতাকর্মীরা।

বাউফলে স্বতন্ত্র প্রার্থীকে কুপিয়ে জখম : পটুয়াখালীর বাউফলের নওমালা ইউনিয়নে গত রবিবার রাতে স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী আরিফুল ইসলামকে (৩৫) নৌকার প্রার্থী কামাল হোসেন বিশ্বাসের কর্মীরা কুপিয়ে আহত করেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। তাঁকে আশঙ্কাজনক অবস্থায় ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। এ খবর তাঁর (আরিফুল) কর্মীদের মধ্যে ছড়িয়ে পড়লে দুই পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষে ১০ জন আহত হয়।   

এদিকে বাউফলে এমপি আ স ম ফিরোজের সফর বাতিল চেয়ে গতকাল নির্বাচন কমিশনের সচিব এবং পটুয়াখালী জেলা প্রশাসকের কাছে লিখিত আবেদন করেছেন নওমালা ইউনিয়ন পরিষদের বর্তমান চেয়ারম্যান ও স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী শাহজাদা হাওলাদার।

দুর্গাপুরে স্বতন্ত্র প্রার্থীর সমর্থককে মারধর : নেত্রকোনার দুর্গাপুরের কুল্লাগড়া ইউনিয়নে স্বতন্ত্র প্রার্থী আবদুল আউয়ালের সমর্থক রুবেল পাঠানকে রবিবার রাতে পিটিয়ে আহত করার অভিযোগ উঠেছে আওয়ামী লীগ প্রার্থী সুব্রত সাংমার সমর্থকদের বিরুদ্ধে। এদিকে সদর উপজেলার বাংলাবাজারে প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থীর পোস্টার আগুনে পুড়িয়েছে দুর্বৃত্তরা।

সালথায় দেশীয় অস্ত্র উদ্ধার : ইউপি নির্বাচন সামনে রেখে ফরিদপুরের সালথার বিভিন্ন এলাকায় অভিযান চালিয়ে বিপুল পরিমাণ দেশীয় অস্ত্র উদ্ধার করেছে পুলিশ। নির্বাচনে সহিংসতা রোধে পুলিশের বিশেষ অভিযানে এসব দেশীয় অস্ত্র উদ্ধার করা হয়। এ ঘটনায় আটজনকে আটক করেছে পুলিশ।

[প্রতিবেদনে তথ্য দিয়ে সহায়তা করেছেন সংশ্লিষ্ট এলাকার প্রতিনিধিরা।]



সাতদিনের সেরা