kalerkantho

শনিবার । ২৫ বৈশাখ ১৪২৮। ৮ মে ২০২১। ২৫ রমজান ১৪৪২

চট্টগ্রামে বেপরোয়া হুইপপুত্র শারুন

যেখানে অপরাধ সেখানেই তাঁর নাম, বিব্রত আওয়ামী লীগ, তবু ধরাছোঁয়ার বাইরে

নিজস্ব প্রতিবেদক, চট্টগ্রাম   

১৬ এপ্রিল, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ৯ মিনিটে



চট্টগ্রামে বেপরোয়া হুইপপুত্র শারুন

চট্টগ্রামে যেখানেই অপরাধ-অপকর্ম, সেখানেই তাঁর নাম। হুমকি-ধমকি, চাঁদাবাজি, দখলবাজি, প্রতারণা, মাদক ও জুয়া থেকে হেন কোনো অপরাধ নেই যেখানে তাঁর নাম উঠে আসে না। এই গুণধর ব্যক্তি হুইপপুত্র শারুন।

একসময়ের বিএনপি-জাতীয় পার্টির নেতা এখন আওয়ামী লীগের মনোনয়নে এমপি বাবা সামশুল হক চৌধুরী সরকারদলীয় হুইপ হওয়ার পর থেকেই বেপরোয়া হয়ে ওঠেন শারুন। ক্ষমতার দাপট দেখিয়ে দলের সিনিয়র নেতাদেরও বিন্দুমাত্র পাত্তা দেন না তিনি।

চট্টগ্রাম-১২ (পটিয়া) আসনের সংসদ সদস্য সামশুল হক চৌধুরীর ছেলে নাজমুল হক চৌধুরী শারুন নিজের সামনে দামি মদের বোতল ছড়িয়ে রেখে ছবি তুলে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে দিয়েছিলেন। একে-৪৭ রাইফেল দিয়ে গুলিবর্ষণ করার ভিডিওতেও দেখা গেছে তাঁকে। ওই ভিডিও ছড়িয়ে পড়ার পর রাজনৈতিক অঙ্গনে তীব্র প্রতিক্রিয়া শুরু হয়।

করোনাভাইরাসের প্রকোপের আগে দেশজুড়ে জুয়া, ক্যাসিনো বন্ধে শুরু হওয়া অভিযান সম্পর্কে বিতর্কিত মন্তব্য করে আলোচনার জন্ম দেন শারুনের বাবা সামশুল হক চৌধুরী। তাঁর বিরুদ্ধে আবাহনী ক্লাবে জুয়ার আসর বসিয়ে ১৮০ কোটি টাকা আয়ের অভিযোগ তোলেন এক পুলিশ কর্মকর্তা। এ কারণে ওই পুলিশ কর্মকর্তাকে অদৃশ্য শক্তির চাপে বরখাস্ত করা হয়। বাবার পক্ষ নিয়ে এ খবরও দাম্ভিকতার সঙ্গে প্রচার করতে দেখা গেছে শারুনকে। হুইপবিরোধী জনমত ঠেকাতে ওই সময় চট্টগ্রাম শাহ আমানত বিমানবন্দরে ও পটিয়ার কিছু নেতাকর্মী নিয়ে শোডাউন পর্যন্ত করেন সামশুল ও শারুন।

নিজের ও ছেলের কাণ্ডে বারবারই বিতর্কের মুখে পড়েছেন জাতীয় সংসদের হুইপ সামশুল হক চৌধুরী। দলের গুরুত্বপূর্ণ পদে থেকে তাঁর ও ছেলের এ ঔদ্ধত্যপূর্ণ আচরণে ক্ষুব্ধ দলের নেতারাও।

আওয়ামী লীগে হুইপ সামশুল হক চৌধুরীর অবস্থান পাকাপোক্ত হতেই ছেলে শারুন তাঁদের নিকটাত্মীয় ও ঘনিষ্ঠদের নিয়ে পটিয়ায় গড়ে তোলেন একচ্ছত্র আধিপত্য। পটিয়ার ভূমি দখল, থানা-কোর্ট, ভূমি অফিস, টেন্ডার নিয়ন্ত্রণ, শিল্প জোনের নিয়ন্ত্রণ—সব জায়গায়ই শারুন সিন্ডিকেটের দাপট।

কৈশোরেই বিতর্কে জড়ান হুইপপুত্র নাজমুল হক চৌধুরী শারুন। খেলোয়াড় সেজে আবাহনীর হয়ে বাবার আদম পাচারে সংযুক্তি নিয়ে শুরুতেই হয় সমালোচনা। এরপর এলাকায় প্রভাব, কখনো বাবার ক্যাসিনোকাণ্ডে বিতর্কের মধ্যেও সহযোগী হিসেবে প্রকাশ, প্রকাশ্যে একে-৪৭ উঁচিয়ে মহড়ার প্রকাশ ভালোভাবে নেয়নি সাধারণ মানুষ। গোপন আখড়ায় মদ পানে আকণ্ঠ ডুবে থাকার ছবি ভাইরাল হলে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে শুরু হয় তীব্র সমালোচনা। এর মধ্যে বাবার বয়সী ব্যবসায়ী ও আওয়ামী লীগ নেতা সেলিম নবীকে হুমকি এবং বাবার চেয়েও বেশি বয়সী মুক্তিযোদ্ধা ও বঙ্গবন্ধুর স্নেহধন্য আওয়ামী লীগ নেতা দিদারুল আলম চৌধুরীকে ‘থাপ্পড় মেরে দাঁত ফেলে দেওয়ার হুমকি’ বিতর্কে ব্যাপক সমালোচনার মুখে পড়েন শারুন। এবার ব্যাংকার মোরশেদের অনুপস্থিতিতে তাঁর স্ত্রী-কন্যার অবস্থানরত বাসায় হামলার নেতৃত্বদানে এলো শারুন চৌধুরীর নাম। মোরশেদের স্ত্রী ইশরাতের বক্তব্যে উঠে এসেছে নতুন তথ্য, যা সামগ্রিক মামলা তদন্তে সহায়ক হতে পারে।

দুই বছর আগেই ব্যাংকার মোরশেদের অনুপস্থিতিতে তাঁর বাসায় লোকবল নিয়ে হামলা চালান হুইপপুত্র শারুন চৌধুরী, সাবেক ছাত্রলীগ নেতা আরসাদুল আলম বাচ্চু, পারভেজ, জাবেদ ইকবাল, সাকিবসহ অন্যরা। ওই সময়ই এ ঘটনা নিয়ে নিরাপত্তা চেয়ে থানায় জিডি করা হয়েছিল। কিন্তু ‘সেই জিডিতেও যাতে হুইপপুত্র শারুনের নাম না লেখা হয় সে জন্য সামাজিকভাবে অনেকটা চাপ প্রয়োগ করা হয়েছিল’—এমন তথ্য জানিয়ে মোরশেদের স্ত্রী ইশরাত জাহান চৌধুরী বলেন, ‘আশা করেছিলাম, পুলিশি তদন্তে পরবর্তী সময়ে সব কিছু বের হয়ে আসবে, অপরাধীরা শাস্তি পাবে। কিন্তু সেটি দূরে থাক, উপর্যুপরি চাপ প্রয়োগে মানসিক যন্ত্রণায় ভুগেছে মোরশেদ। শেষ পর্যন্ত তাকে আর রক্ষা করা গেল না।’

মামলা দায়েরের এক সপ্তাহ পরও আসামি গ্রেপ্তার না হওয়ায় উদ্বেগ জানিয়ে মোরশেদের স্ত্রী বলেন, ‘অভিযুক্ত সাকিবের পক্ষ নিয়ে পাসপোর্ট কেড়ে নিয়েছিলেন তাঁরা। পারভেজ, জাবেদ ও সাকিবদের দেওয়া চাপ, অপমান এবং হুইপপুত্র শারুন ও বাচ্চুদের উপস্থিতিতে বাসায় হামলার পর নিরাপত্তার জন্য আমরা দেশের বাইরে, জাপানে চলে যেতে চেয়েছিলাম। সেই খবর পেয়ে আমাদের পাসপোর্ট কেড়ে নেওয়া হয়।’

ইশরাত জাহান চৌধুরী বলেন, ‘২০১৮ সালে এ ঘটনা ঘটে। সাকিবরা উপর্যুপরি বাড়তি পাওনা টাকা দাবি করে। সাকিবের বাবা মহসিন তাঁদের পাঁচলাইশের এমএম টাওয়ারে মোরশেদকে ডেকে নিয়ে যান। যেন টর্চার সেলে পরিণত সেই বাড়ি। সেখানে অস্ত্রের মুখে জিম্মি করে শারীরিক নির্যাতন করা হয়। হুমকির মুখে আমাকে ডেকে নিয়ে অতিরিক্ত টাকা দাবি করে জোরপূর্বক স্ট্যাম্প ও চেকে সই নেওয়া হয়েছিল। আমার স্বামীকে বাঁচাতে আমি, আমার ভাশুর, ননদ, ননদের হাজব্যান্ডসহ আমরা ছুটে যাই। সে সময় আসামি পারভেজ, জাবেদ, সাকিব সবাই ছিল। আমাদের মোবাইল ফোন তারা কেড়ে নিয়েছিল। আমি মোবাইল ফোন দিতে না চাইলে আমারটাও কেড়ে নেয়। শেষ পর্যন্ত স্ট্যাম্পে স্বাক্ষর নিয়ে সবার মোবাইল ফোন ফিরিয়ে দেওয়া হলেও আমার মোবাইল ফোনটি তারা রেখে দেয় এবং আমাদের সেই পাসপোর্ট এখনো ফেরত দেওয়া হয়নি।’

পুলিশ কেন ঘটনার আড়ালে থাকা ব্যক্তিদের বিষয়ে পদক্ষেপ নিচ্ছে না তাতে উদ্বেগ জানান ইশরাত। তিনি বলেন, ‘মামলায় অভিযুক্ত ব্যক্তি ছাড়াও নেপথ্যে যাঁরা থেকেছেন, তাঁদের ব্যাপারেও ব্যবস্থা গ্রহণ করা প্রয়োজন।’

প্রসঙ্গক্রমে ইশরাত বলেন, ‘ওই ব্যবসায়ী (এস এম আবুল মহসিন) আমাদের নিকটাত্মীয়। আমার স্বামীর একটি চাকরির জন্য স্ট্যান্ডার্ড চার্টার্ড ব্যাংকে তার সুপারিশও নেওয়া হয়েছিল। কিন্তু কী এক রহস্যজনক কারণে হঠাৎ তিনি তাঁর ছেলের হয়ে এমন পৈশাচিক আচরণ করেছেন, তা ভেবে পাই  না।’

ব্যাংকার মোরশেদের স্ত্রী মনে করেন, ‘সাকিবকে কথিত লগ্নি টাকা আদায়ে যেভাবে অমানবিকভাবে হস্তক্ষেপ শুরু করেন তা সত্যি অবিশ্বাস্য।’

ইশরাত বলেন, ‘মিথ্যা মামলা করে ওই ব্যবসায়ীপুত্র সাকিব একটি মামলায় আসামি করেছিলেন আমাকে। তাঁর প্রতিটিতেই আমি নির্দোষ হিসেবে আদালত কর্তৃক ছাড় পেয়েছি।’ মামলাটি ডিবিতে স্থানান্তরের পর সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা এসে জিজ্ঞাসাবাদ করলেও কোনো আসামি গ্রেপ্তার না হওয়ায় উদ্বেগ জানান তিনি।

মুঠোফোনে পাওয়া না গেলেও সামাজিক মাধ্যমে অবশ্য হুইপপুত্র শারুন চৌধুরী এসব অস্বীকার করেই চলেছেন।

মামলা দায়েরের পর থেকে আসামি সাকিব, জাবেদ, পারভেজসহ অন্যদের মুঠোফোনে সংযোগ পাওয়া যাচ্ছে না।

চাঞ্চল্যকর এ মামলাটির তদন্ত ও অপরাধী গ্রেপ্তার প্রক্রিয়া সম্পর্কে জানতে চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশের (সিএমপি) ডিসিডিবি (নর্থ) এম সালাম কবিরকে প্রশ্ন করা হলে বলেন,  ‘মামলার ডকেট বুঝে পেয়েছি। বিধি-বিধান অনুযায়ী তদন্ত কর্মকর্তা (আইও) নিয়োগ দিয়ে তাঁকে আসামি গ্রেপ্তারের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।’ অন্যদিকে আইও পরিদর্শক মঈনুর রহমানকে এ প্রসঙ্গে জানতে মুঠোফোনে দফায় দফায় চেষ্টা করা হলেও রেসপন্স মেলেনি!

মানবিক মূল্যবোধসম্পন্ন চট্টগ্রামবাসী অপরাধী গ্রেপ্তার প্রক্রিয়ায় আরো বলিষ্ঠ পদক্ষেপ আশা করছে।

প্রধানমন্ত্রী যেখানে মাঠের কর্মীদের মূল্যায়নের পুনঃ পুনঃ তাগাদা দিয়ে চলেছেন, সেখানে আওয়ামী লীগে হিজরত করা এই হাইব্রিডদের পুত্রদের আস্ফাালন সহজভাবে নিচ্ছে না মানুষ। হুইপপুত্রের ক্ষমতার প্রভাবের বিরুদ্ধেও দৃষ্টান্তমূলক পদক্ষেপ আশা করছে সাধারণ মানুষ।  হুইপপুত্রের গোপন ব্যবসার বলি তরুণ ব্যাংকার ও ব্যবসায়ী আবদুল মোরশেদ চৌধুরীর স্ত্রী শিক্ষিকা ইশরাত জাহান চৌধুরী ও মা নুর নাহার প্রধানমন্ত্রীর কাছে বিচার দাবি করেছেন।

শারুনসহ তাঁর কয়েকজন বন্ধুর গোপন ব্যবসায় জড়িয়ে পুঁজি খাটিয়ে আসল ও সুদসহ বিপুল টাকা পরিশোধ করেও সরল বিশ্বাসের বলি হন ওই ব্যাংকার। সরল বিশ্বাসে জমা দেওয়া জামানতের চেক ফিরিয়ে নেননি তিনি। এতে ওই সব চেকের বিপরীতে বারবার লাভের টাকা চেয়ে বসে চক্রটি। অব্যাহত রাখে বাসায় হামলা, উপর্যুপরি মামলা, অপহরণসহ নানা হুমকি।

আত্মহত্যার ঘটনায় চারজনকে আসামি করে স্ত্রী ইশরাত জাহান চৌধুরী বাদী হয়ে পাঁচলাইশ থানায় মামলা করেন। মামলায় নির্যাতন-আত্মহত্যার প্ররোচনার অভিযোগ উঠেছে যুবলীগের কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক শহীদুল হক চৌধুরী রাসেল, চিটাগাং চেম্বারের সাবেক দুই পরিচালক জাবেদ ইকবাল, তাঁর ভাই পারভেজ ইকবাল এবং নাইম উদ্দিন সাকিব নামে চারজনের বিরুদ্ধে।

অফিস ও বাড়িতে দফায় দফায় হামলা, মামলা ও অপহরণের হুমকির অভিযোগ এনেছেন স্বামীহারা অসহায় এই নারী। অভিযোগে প্রকাশ, ২০১৯ সালের ২৯ মে হুইপপুত্র শারুন চৌধুরী ও চিটাগাং চেম্বারের সাবেক দুই পরিচালক দুটি গাড়িতে করে ১০-১২ জন যুবককে সঙ্গে নিয়ে মোরশেদের বাসভবনে প্রবেশ করেন। পারভেজ ইকবাল দলের অন্যদের নিয়ে লিফট বেয়ে ওপরে উঠে বাসার দরজা ধাক্কাতে থাকেন। এ সময় দরজা খুলতে না চাইলে লাথি মারতে থাকেন তিনি। ‘লাথি মেরে দরজা ক্র্যাক করে দেওয়া হয়’ বলে জানান ব্যাংকারের স্ত্রী। এ সময় ভবনটির নিচে নেমপ্লেটবিহীন গাড়িতে হুইপপুত্র শারুন ও সাবেক ছাত্রনেতা আরসাদুল আলম বাচ্চু বসা ছিলেন বলেও জানান তিনি। আক্রমণের ভয়াবহতায় ভীতসন্ত্রস্ত হয়ে ব্যাংকার মোরশেদ তাঁর স্ত্রী-সন্তানসহ পালিয়ে নিকটাত্মীয়ের বাসায় আশ্রয় নেন। সহযোগিতা চেয়ে দ্বারস্থ হন পুলিশের। থানায় জিডি করেন। কিন্তু শেষ পর্যন্ত রক্ষা পাননি মোরশেদ। পরিবারটি এখনো চরম নিরাপত্তাহীনতায় দিনাতিপাত করছে।

ইশরাত জানান, সিএমপির ডিসি অফিসে সমঝোতা বৈঠক ও  চুক্তি হয়। সেখানে বাচ্চুও ছিলেন। এ ঘটনার প্রায় দুই বছর পর দফায় দফায় আসল ও সুদ (মতান্তরে লভ্যাংশ) পরিশোধের পরও অতিরিক্ত টাকার জন্য টেলিফোনে চাপ প্রয়োগ করেন তাঁরা। পারভেজ ও জাবেদের হয়ে কড়া ভাষায় ফোনালাপের এক দিন পরই ব্যাংক কর্মকর্তা মোরশেদ আত্মহত্যা করেন।

মোরশেদের স্ত্রী ইশরাত এক প্রশ্নের জবাবে বলেন, ‘মোরশেদের সঙ্গে সরাসরি লেনদেন না থাকলেও শারুন চৌধুরী,  বাচ্চু ও কেন্দ্রীয় যুবলীগ নেতা রাসেল কেন এ রকম টর্চার করল, এর জবাব মিলছে না।’

অন্যদিকে ইশরাতের তথ্যের অভিন্নতা ও সত্যতা মেলে নিকটাত্মীয় এমপি দিদারুল আলমের বক্তব্যে। এমপি দিদারুল সমঝোতা করার চেষ্টা করেছিলেন। ‘কিন্তু শেষ পর্যন্ত জাবেদ ইকবালের ভাই পারভেজের অনাগ্রহে এমপি দিদারের সেই উদ্যোগ ভেস্তে যায়’ বলে জানান মোরশেদের স্ত্রী।

ব্যাংকার মোরশেদ চৌধুরীর সঙ্গে এই বিনিয়োগ, বাসায় হামলা, টাকা উদ্ধার প্রক্রিয়ায় সমঝোতা বৈঠকে শারুন-বাচ্চুর উপস্থিত থাকার তথ্য পাওয়া যায়। তবে নিজের সম্পৃক্ততার বিষয়টি অস্বীকার করেন বাচ্চু।

মোরশেদ সুইসাইড নোটে উল্লেখ করে গেছেন, ‘আর পারছি না। সত্যি আর নিতে পারছি না। প্রতিদিন একবার করে মরছি। কিছু লোকের অমানুষিক প্রেসার আমি আর নিতে পারছি না। প্লিজ, সবাই আমাকে ক্ষমা করে দিয়ো। আমার জুমকে (মেয়ে) সবাই দেখে রেখো। আল্লাহ হাফেজ।’



সাতদিনের সেরা