kalerkantho

সোমবার । ২৩ ফাল্গুন ১৪২৭। ৮ মার্চ ২০২১। ২৩ রজব ১৪৪২

পাপুলের আসন শূন্য ঘোষণা

নিজস্ব প্রতিবেদক   

২৩ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ৪ মিনিটে



পাপুলের আসন শূন্য ঘোষণা

চার বছরের কারাদণ্ড পেয়ে কুয়েতের কারাগারে বন্দি লক্ষ্মীপুর-২ আসনের সংসদ সদস্য মোহাম্মদ কাজী শহিদ ইসলাম পাপুলের সংসদীয় আসন শূন্য ঘোষণা করে গেজেট প্রকাশ করা হয়েছে। জাতীয় সংসদ সচিবালয়ের সিনিয়র সচিব ড. জাফর আহমেদ খানের স্বাক্ষরে গতকাল সোমবার এই গেজেট প্রকাশ করা হয়েছে। গেজেটে গত ২৮ জানুয়ারি থেকে ওই আসন শূন্য দেখানো হয়েছে। এই গেজেটের কপি পাওয়ার পর ওই আসনে উপনির্বাচন করতে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেবে নির্বাচন কমিশন (ইসি)।

গেজেটে বলা হয়, ‘কুয়েতের ফৌজদারী আদালত কর্তৃক গত ২৮-০১-২০২১ খ্রি: তারিখে ঘোষিত রায়ে নৈতিক স্খলনজনিত ফৌজদারী অপরাধে ০৪ (চার) বছর সশ্রম কারাদণ্ডে দণ্ডিত হওয়ায় ২৭৫ লক্ষ্মীপুর-২ হইতে নির্বাচিত সংসদ-সদস্য জনাব মোহাম্মদ শহিদ ইসলাম গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশের সংবিধানের ৬৬(২)(ঘ) অনুচ্ছেদের বিধান অনুযায়ী সংসদ-সদস্য থাকিবার যোগ্য নহেন। সেই কারণে সংবিধানের ৬৭(১)(ঘ) অনুচ্ছেদ অনুযায়ী রায় ঘোষণার তারিখ ২৮-০১-২০২১ খ্রি: হইতে তাঁহার আসন (২৭৫ লক্ষ্মীপুর-২) শূন্য হইয়াছে। গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশের জাতীয় সংসদের কার্যপ্রণালী-বিধির ১৭৮(৪) বিধি অনুযায়ী ২৭৫ লক্ষ্মীপুর-২ হইতে নির্বাচিত সংসদ সদস্যের আসন শূন্য সংক্রান্ত বিজ্ঞপ্তি জারি করা হইল।’

ঘুষ দেওয়ার দায়ে কুয়েতের আদালত সংসদ সদস্য শহিদ ইসলাম পাপুলকে চার বছরের কারাদণ্ডের পাশাপাশি ৫৩ কোটি ১৯ লাখ ৬২ হাজার টাকা জরিমানা করেন। এখনো মানব ও অর্থপাচারের অভিযোগ সে দেশের আদালতে বিচারাধীন। গত বছর ৬ জুন কুয়েতের অপরাধ তদন্ত বিভাগ (সিআইডি) পাপুলকে কুয়েতে গ্রেপ্তার করে। সেই থেকে তিনি কুয়েতের কারাগারে বন্দি। এই সাজা হওয়ার ফলে বাংলাদেশের সংবিধানের ৬৬(২)(ঘ) এবং ৬৭(১)(ঘ) অনুচ্ছেদ অনুযায়ী পাপুলের সদস্য পদ বাতিল ও তাঁর সংসদীয় আসন শূন্য হয়ে যায়। কিন্তু কুয়েতের আদালতের রায়ের কপি না পাওয়ায় এত দিন তাঁর বিষয়ে বাংলাদেশের জাতীয় সংসদ কোনো পদক্ষেপ নিতে পারেনি। কয়েক দিন আগে ওই রায়ের কপি হাতে পান জাতীয় সংসদের স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী। এরপরই তা বাংলায় অনুবাদ করে আসন শূন্য ঘোষণার পদক্ষেপ নেওয়া হয়। এরই ধারাবাহিকতায় ওই আসন শূন্য ঘোষণা করে গতকাল গেজেট প্রকাশ করা হয়েছে। গত ২৮ জানুয়ারি থেকে আসন শূন্য হয়ে গেলেও আইনের বাধ্যবাধকতার কারণে আসনটি শূন্য ঘোষণা করে জাতীয় সংসদ সচিবালয় থেকে গেজেট প্রকাশ করতে হয়েছে।

এখন এই গেজেটের কপি ইসিতে পাঠানো হবে। কপি পাওয়ার পর ইসি ওই আসনে উপনির্বাচন করতে তফসিল ঘোষণাসহ প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেবে।

এর আগে রবিবার এ বিষয়ে স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী কালের কণ্ঠকে বলেন, সংসদ সদস্য মোহাম্মদ শহিদ ইসলাম পাপুলের বিষয়টি নিয়ে কাজ চলছে। দ্রুতই সবাইকে সংসদের সিদ্ধান্ত জানিয়ে দেওয়া হবে। স্পিকারের এই বক্তব্যের পরদিনই আসন শূন্য ঘোষণা করে গেজেট প্রকাশ করেছে সংসদ সচিবালয়।

সংবিধানের ৬৬ অনুচ্ছেদের ২ নম্বর উপ-অনুচ্ছেদে বলা হয়েছে ‘কোন ব্যক্তি সংসদের সদস্য নির্বাচিত হইবার বা সংসদ-সদস্য থাকিবার যোগ্য হইবেন না, যদি—(ঘ) তিনি নৈতিক স্খলনজনিত কোন ফৌজদারী অপরাধে দোষী সাব্যস্ত হইয়া অন্যূন দুই বৎসরের কারাদণ্ডে দণ্ডিত হন এবং তাঁহার মুক্তিলাভের পর পাঁচ বৎসরকাল অতিবাহিত না হইয়া থাকে।’ আর সংবিধানের ৬৭ অনুচ্ছেদে সংসদ সদস্যের আসন শূন্য হওয়া প্রসঙ্গে বলা আছে। এই অনুচ্ছেদের উপ-অনুচ্ছেদ (১)-এ বলা হয়েছে ‘কোন সংসদ-সদস্যের আসন শূন্য হইবে, যদি—(ঘ) তিনি এই সংবিধানের ৬৬ অনুচ্ছেদে (২) দফার অধীন অযোগ্য হইয়া যান।’

এদিকে শিক্ষাগত যোগ্যতা নিয়ে জাতীয় সংসদের নির্বাচনী হলফনামায় মিথ্যা তথ্য দেওয়ার অভিযোগে পাপুলের সংসদীয় আসন কেন শূন্য ঘোষণা করা হবে না, তা জানতে চেয়ে জারি করা রুলের ওপর বিচারপতি গোবিন্দ চন্দ্র ঠাকুর ও বিচারপতি মোহাম্মদ উল্লাহর হাইকোর্ট বেঞ্চে গতকাল শুনানির জন্য দিন ধার্য ছিল। গতকাল সকালে রিট আবেদনকারীর আইনজীবী সালাহউদ্দিন রিগ্যানের সময়ের আবেদনে আগামী ২৫ ফেব্রুয়ারি পরবর্তী শুনানির দিন ধার্য করা হয়েছে। এ সময় আদালত আইনজীবীকে উদ্দেশ করে বলেন, পাপুলকে নির্বাচিত ঘোষণা করে নির্বাচন কমিশন গেজেট প্রকাশ করেছে। তাই তাদের কিছুই করার নেই। বড়জোর স্পিকারকে বলা যায়, ‘আপনাদের আবেদনটি যেন নিষ্পত্তি করা হয়।’

যদিও বিকেলে পাপুলের আসন শূন্য ঘোষণা করে সংসদ সচিবালয় গেজেট প্রকাশ করেছে। ফলে এই রিট আবেদনটি অকার্যকর হয়ে গেল বলে মনে করেন আইনজীবীরা।

 

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা