kalerkantho

শনিবার। ২ মাঘ ১৪২৭। ১৬ জানুয়ারি ২০২১। ২ জমাদিউস সানি ১৪৪২

পুলিশের ওপর জঙ্গি হামলার পরিকল্পনা

ফয়সালের খোঁজ জানতে সিঙ্গাপুরে যোগাযোগ করছে সিটিটিসি

নিজস্ব প্রতিবেদক   

২৮ নভেম্বর, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



ফয়সালের খোঁজ জানতে সিঙ্গাপুরে যোগাযোগ করছে সিটিটিসি

সিঙ্গাপুর থেকে বাংলাদেশে ফিরে পুলিশের ওপর হামলা চালানোর পরিকল্পনার অভিযোগে গ্রেপ্তার হওয়া আহমেদ ফয়সাল সম্পর্কে খোঁজ নিতে শুরু করেছে ঢাকা মহানগর পুলিশের কাউন্টার টেররিজম ও ট্রান্সন্যাশনাল ইউনিট (সিটিটিসি)।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে সিটিটিসির উপকমিশনার (ডিসি) সাইফুল ইসলাম গতকাল শুক্রবার কালের কণ্ঠকে বলেন, জঙ্গিবাদে সম্পৃক্ততার পাশাপাশি সিঙ্গাপুর থেকে দেশে ফিরে পুলিশের ওপর হামলার পরিকল্পনা করেছিলেন আহমেদ ফয়সাল। এই অভিযোগে তাঁকে গ্রেপ্তার করেছে সিঙ্গাপুর পুলিশ। এমন তথ্যের ভিত্তিতে তাঁর সম্পর্কে খোঁজ জানতে সিঙ্গাপুরে বাংলাদেশি দূতাবাসের সহযোগিতা নেওয়া হচ্ছে। এরই মধ্যে তারা যোগাযোগ শুরু করেছে।

সিটিটিসি সূত্রে জানা গেছে, আহমেদ ফয়সাল সম্পর্কে এখন পর্যন্ত যে তথ্য পাওয়া গেছে, তা প্রাথমিক পর্যায়ে রয়েছে। যে অভিযোগে ফয়সাল গ্রেপ্তার হয়েছেন, তার সত্যতা কতটুকু, তিনি জঙ্গিবাদে জড়িত কি না, তাঁর সঙ্গে আরো কাদের যোগাযোগ রয়েছে, বিশেষ করে আরো যেসব বাংলাদেশি সিঙ্গাপুরে কাজের উদ্দেশ্যে গিয়েছেন, তাঁদের কেউ ফয়সালের ঘনিষ্ঠ কি না, বিদেশি কোনো জঙ্গি সংগঠনের সঙ্গে তাঁর যোগাযোগ আছে কি না, দেশে ফিরলে তিনি কাদের সঙ্গী করে পুলিশের ওপর হামলা চালাতেন, তাঁর গ্রামের বাড়ি, পরিবারের সদস্য—এ সব বিষয়ে খোঁজ নিচ্ছে তারা। তবে এখনো এসবের কোনো উত্তর খুঁজে পায়নি তারা। সিঙ্গাপুর কর্তৃপক্ষের দাবি অনুযায়ী, জঙ্গিবাদে জড়ানোর অভিযোগে এরই মধ্যে ১৫ জন বাংলাদেশিকে তারা দেশে ফেরত পাঠিয়েছে, এমন প্রশ্নের জবাবে সিটিটিসির ডিসি সাইফুল ইসলাম বলেন, এ বিষয়ে তাঁর জানা নেই।  

গত মঙ্গলবার সিঙ্গাপুরের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এক বিবৃতির বরাত দিয়ে দেশটির সংবাদমাধ্যম স্ট্রেট টাইমসের এক প্রতিবেদনে জঙ্গি সন্দেহে বাংলাদেশি যুবক আহমেদ ফয়সালকে (২৬) গ্রেপ্তারের তথ্য জানানো হয়েছে। প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, শুধু বাংলাদেশে সংখ্যালঘু হিন্দু পুলিশ সদস্যদের ওপর হামলা চালানোই নয়, কাশ্মীরে যাওয়ারও পরিকল্পনা ছিল গত ২ নভেম্বর গ্রেপ্তার হওয়া ফয়সালের।

সিঙ্গাপুরের অভ্যন্তরীণ নিরাপত্তা বিভাগের প্রাথমিক তদন্তের বরাত দিয়ে প্রতিবেদনে বলা হয়, ফয়সাল ধর্মীয় চরমপন্থায় উদ্বুদ্ধ হয়ে সহিংস কর্মকাণ্ড ঘটাতে চেয়েছিলেন। ২০১৭ সালের প্রথম দিকে নির্মাণ শ্রমিক হিসেবে কাজ করতে বাংলাদেশ থেকে সিঙ্গাপুরে গিয়েছিলেন ফয়সাল। মধ্যপ্রাচ্যভিত্তিক আইএসের অনলাইন প্রচারণায় প্ররোচিত হয়ে পরের বছর (২০১৮ সাল) তিনি চরমপন্থার দিকে ঝুঁকে পড়েন। তবে তদন্তে দেখা গেছে, তিনি সিঙ্গাপুর নয়, বাংলাদেশে ফিরে হামলা চালানোর পরিকল্পনা করছিলেন। হামলার জন্য বিশেষভাবে তিনি লক্ষ্য ঠিক করছিলেন হিন্দু পুলিশ কর্মকর্তাদের।

ফয়সাল সহিংসতায় উসকানিমূলক তথ্য প্রচারের জন্য সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমগুলোতে ভুয়া অ্যাকাউন্ট খুলেছিলেন জানিয়ে প্রতিবেদনে আরো বলা হয়, ভাঁজ করে সহজে বহন করা যায়, এমন একটি ছুরিও তিনি সংগ্রহ করেছিলেন। জিজ্ঞাসাবাদে তিনি স্বীকার করেছেন, সহিংসতার কাজে ব্যবহারের জন্যই তিনি ছুরিটি সংগ্রহ করেছিলেন।

ইউরোপে সাম্প্রতিক সহিংসতার পটভূমিতে সিঙ্গাপুর কর্তৃপক্ষ সন্দেহভাজন অন্তত ৩৭ জনের ব্যাপারে তদন্ত চালিয়েছে। তাদের মধ্যে ২৩ জন বিদেশি। বাকিরা সিঙ্গাপুরের নাগরিক। সিঙ্গাপুরের গণমাধ্যমের তথ্য অনুযায়ী, সন্দেহভাজন ১৫ বাংলাদেশি ও মালয়েশিয়ার একজনকে এরই মধ্যে নিজ নিজ দেশে ফেরত পাঠানো হয়েছে। ওই বাংলাদেশিরা নির্মাণ শ্রমিক হিসেবে সিঙ্গাপুরে কাজ করতেন। তাঁরাও ওই পরিকল্পনার সঙ্গে যুক্ত বলে প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে।

 

মন্তব্য