kalerkantho

রবিবার । ১৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৭। ২৯ নভেম্বর ২০২০। ১৩ রবিউস সানি ১৪৪২

সাক্ষাৎকার

করোনায় বিঘ্নিত উন্নয়নকাজ স্বচ্ছভাবে দ্রুত শেষ করা হচ্ছে

কাজী শাহরিয়ার হোসেন, প্রধান প্রকৌশলী, সড়ক ও জনপথ

নিজস্ব প্রতিবেদক   

২২ অক্টোবর, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



করোনায় বিঘ্নিত উন্নয়নকাজ স্বচ্ছভাবে দ্রুত শেষ করা হচ্ছে

করোনাভাইরাস সংক্রমণে সৃষ্ট পরিস্থিতিতে দেশে রাস্তাঘাটের উন্নয়নকাজ বিঘ্নিত হয়েছে। পরিস্থিতির কিছুটা উন্নতি হওয়ায় সেসব কাজে গতি এসেছে। বিশেষত বড় প্রকল্পগুলো যথাসম্ভব দ্রুত শেষ করার উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে।

সড়ক ও জনপথ অধিদপ্তরের প্রধান প্রকৌশলী কাজী শাহরিয়ার হোসেন কালের কণ্ঠকে এক সাক্ষাৎকারে এসব কথা বলেন। তিনি বলেন, সরকারি সব নিয়ম-কানুন যথাযথভাবে অনুসরণ করেই সড়ক ও জনপথ অধিদপ্তরের সব প্রকল্পের কাজ বাস্তবায়ন করা হচ্ছে। উন্নয়নকাজগুলো সরকারের নির্দেশনা অনুযায়ী স্বচ্ছভাবে দ্রুত শেষ করতে আমরা বদ্ধপরিকর।

কাজী শাহরিয়ার হোসেন চলতি বছরের ১২ এপ্রিল সড়ক ও জনপথ অধিদপ্তরের প্রধান প্রকৌশলী হিসেবে যোগদান করেন। অধিদপ্তরের কার্যক্রম সম্পর্কে জানতে চাইলে তিনি বলেন, সড়ক ও জনপথ অধিদপ্তরের আওতায় প্রায় ২২ হাজার ৩৬২ দশমিক ৮২১ কিলোমিটার সড়ক, তিন হাজার ৫৪৮টি সেতু, ৮৫৬টি বেইলি সেতু ও ১৪ হাজার ৮১৪টি কালভার্ট রয়েছে। বর্তমানে জাতীয়, আঞ্চলিক, জেলা সড়কসহ সারা দেশে গুরুত্বপূর্ণ সেতু ও কালভার্ট উন্নয়ন এবং রক্ষণাবেক্ষণের কাজ চলছে।

তিনি বলেন, বর্তমান সরকার যোগাযোগব্যবস্থার উন্নয়ন কার্যক্রম জোরদারভাবে অব্যাহত রেখেছে। এ জন্য নতুন নতুন পরিকল্পনা ও প্রকল্প নেওয়া হচ্ছে। সরকারের এসব উন্নয়ন কার্যক্রম যথাযথভাবে সম্পাদনের মাধ্যমে সড়ক ও জনপথ বিভাগ তার ঐতিহ্য ধরে রাখবে।

সড়ক বিভাগের বিভিন্ন প্রকল্পের কাজে প্রকৌশলীদের বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগ প্রসঙ্গে সড়ক ও জনপথ অধিদপ্তরের এই প্রধান প্রকৌশলী বলেন, সড়ক ও জনপথের প্রতিটি কাজ সঠিকভাবে বাস্তবায়ন করা হচ্ছে। এখানে দুর্নীতির কোনো সুযোগ নেই। সরকারের নির্দেশনা অনুযায়ী দুর্নীতির বিরুদ্ধে কঠোর অবস্থান নেওয়া হচ্ছে। কারো বিরুদ্ধে কোনো ধরনের অনিয়মের অভিযোগ পেলে তাত্ক্ষণিক ব্যবস্থা নেওয়া হবে। সড়ক, সেতু, কালভার্ট ইত্যাদি নির্মাণের ক্ষেত্রে কঠোরভাবে মান নিয়ন্ত্রণ করা হচ্ছে।

শাহরিয়ার হোসেন বলেন, বর্তমান সরকারের রূপকল্প ২০২১ এবং সময়াবদ্ধ কর্মপরিকল্পনা ২০৪১ বাস্তবায়নের লক্ষ্যে সড়ক ও জনপথ অধিদপ্তর নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছে। এই অধিদপ্তরের নেটওয়ার্ক আগের যেকোনো সময়ের তুলনায় এখন অনেক উন্নত। মহাসড়ক নেটওয়ার্ক ব্যবহার করে জনগণ নির্বিঘ্নে ও স্বল্প সময়ে গন্তব্যে আসা-যাওয়া করতে পারছে। পণ্য পরিবহনও সহজতর হয়েছে।

 

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা