kalerkantho

বুধবার । ২১ শ্রাবণ ১৪২৭। ৫ আগস্ট  ২০২০। ১৪ জিলহজ ১৪৪১

বিশেষ লেখা

এমন গানপাগল দেখিনি

সৈয়দ আব্দুল হাদী

৭ জুলাই, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



এমন গানপাগল দেখিনি

দীর্ঘদিনের সম্পর্ক আমাদের। একসঙ্গে অনেক স্মরণীয় সময় কাটিয়েছি। আমাকে খুব ভালোবাসত এন্ড্রু। দেখলেই হাসিমাখা মুখ। একসঙ্গে কয়েকটি গানও গেয়েছি আমরা। সর্বশেষ সিঙ্গাপুরে এন্ড্রুর সঙ্গে দেখা হয়েছে। ওর জন্যই একটা অনুষ্ঠান করেছিলাম আমরা। তখন খুব অসুস্থ ছিল। কিন্তু আমাদের দেখে সে যেন সুস্থ হয়ে গেল। এখনো চোখের সামনে জ্বলজ্বল করে ভাসছে, হুইলচেয়ারে এন্ড্রু স্টেজে এলো। আমাদের সঙ্গে গানও গাইল। তখনই মনে হয়েছিল ও ফিরবে, ও পারবে জিততে। কিন্তু আজ যখন খবরটা শুনলাম কিছুই বুঝতে পারছি না। এত দ্রুত কি যাওয়ার ডাক ছিল ওর! ওকে হারানোর বেদনা ভোলার নয়। গত দুই-তিন বছর আমরা একের পর এক শিল্পীকে হারাচ্ছি। সুবীর নন্দী চলে যাওয়ার শোক এখনো কাটিয়ে উঠতে পারলাম না। এর মধ্যে আবার এন্ড্রু! কী হচ্ছে আমাদের? কী হবে আমাদের। এন্ড্রুর সঙ্গে আমার প্রথম পরিচয় স্টুডিওতেই। খুব বিনয়ী ছিল। আমাদের মধ্যে অনেক হাসি-ঠাট্টার ঘটনা রয়েছে। কিন্তু সেগুলো তো এখন বলার সময় নয়। আমি ভাই হারানোর এই ব্যথা সহ্য করব কিভাবে? বাংলা গানের কী হবে ভবিষ্যতে! এন্ড্রুর কণ্ঠ মানেই সিনেমার দর্শক নড়েচড়ে বসত। তার কোটি কোটি দর্শককে কে সান্ত্বনা দেবে এখন? আমি এমন গানপাগল মানুষ দেখিনি বললেই চলে। শেষ কয়েকটা দিন শুনেছি অনেক কষ্ট পেয়েছে। রোগের সঙ্গে যুদ্ধ করে আর পেরে উঠছিল না। এই কথা মনে হলে একবার ভাবছি চলে গিয়ে ভালোই করেছে। তারপর আবার মনটা খারাপ হয়ে যাচ্ছে। কিছুতেই মানতে পারছি না। এন্ড্রুর মতো এমন জাতশিল্পী আর কবে পাবে বাঙালি তা জানি না। এন্ড্রুর লাশ ঢাকায় না আনার সিদ্ধান্ত নিয়েছে তার পরিবার। এই করোনাভাইরাসের সময়ে আমিও যেতে পারছি না রাজশাহীতে। শেষবারের মতো প্রিয় ভাইটাকে দেখতে পাব না ভেবে খুব খারাপ লাগছে। অসহায়ত্ব পেয়ে বসেছে ভেতরে ভেতরে। আশা করছি ওপারে এন্ড্রু ভালো থাকবে। আমাদের কোনো ভুলত্রুটি থাকলে ক্ষমা করবে—তার কাছে শেষ চাওয়া এটাই।

মন্তব্য