kalerkantho

বুধবার । ৩১ আষাঢ় ১৪২৭। ১৫ জুলাই ২০২০। ২৩ জিলকদ ১৪৪১

এক দিনে ৬৪ মৃত্যু

নিজস্ব প্রতিবেদক   

১ জুলাই, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



এক দিনে ৬৪ মৃত্যু

দেশে করোনাভাইরাস সংক্রমণে প্রথম মৃত্যুর পর ১০৪ দিনের মাথায় এক দিনের হিসাবে সর্বোচ্চ ৬৪ জনের মৃত্যু হয়েছে সর্বশেষ ২৪ ঘণ্টায়। মৃতদের মধ্যে ৮০ শতাংশই পঞ্চাশোর্ধ্ব। এর আগে গত ১৬ জুন ছিল সর্বোচ্চ ৫৩ জন। গত দুই সপ্তাহ টানা মৃত্যুর সংখ্যা ছিল ৩০-৪৫ এর মধ্যে।

আগের দিন সোমবারের তথ্যে মৃত্যুর সংখ্যা ৪৫। সে হিসাবে ওই দিন সকাল ৮টা থেকে গতকাল মঙ্গলবার সকাল ৮টা পর্যন্ত ২৪ ঘণ্টায় মৃত্যু বেড়েছে ১৯ জনের।

এক দিনের ব্যবধান মৃত্যু এত বেশি হওয়ার বিষয়ে জানতে চাইলে সরকারের রোগতত্ত্ব, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা ইনস্টিটিউটের (আইইডিসিআর) পরিচালক অধ্যাপক ড. মীরজাদী সেব্রিনা ফ্লোরা কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘তথ্যগুলো বিশ্লেষণ চলছে, হয়তো এর মধ্যে আগের কোনো মৃত্যুর তথ্য যুক্ত থাকতে পারে, যেটা হয় পরীক্ষার চূড়ান্ত রিপোর্ট না পাওয়ায় আগে যুক্ত করা যায়নি। আবার এক দিনেরও হতে পারে।’

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের নিয়মিত বুলেটিনে গতকাল অধিদপ্তরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. নাসিমা সুলতানা জানান, শেষ ২৪ ঘণ্টায়

নমুনা সংগ্রহ হয়েছে ১৮ হাজার ৮৬৩টি এবং পরীক্ষা হয়েছে ১৮ হাজার ৪২৬টি। এ পর্যন্ত পরীক্ষা হয়েছে সাত লাখ ৬৬ হাজার ৪৬০টি নমুনা। গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন শনাক্ত তিন হাজার ৬৮২। শনাক্তের হার ১৯.৯৮ শতাংশ। এ পর্যন্ত মোট শনাক্ত এক লাখ ৪৫ হাজার ৪৮৩। মোট পরীক্ষার তুলনায় শনাক্তের হার ১৮.৯৮ শতাংশ।

গত ২৪ ঘণ্টায় মৃত্যু হয়েছে ৬৪ জনের। এ পর্যন্ত মোট মৃত্যু এক হাজার ৮৪৭ জন। শনাক্ত বিবেচনায় মৃত্যুহার ১.২৭ শতাংশ। মৃতদের মধ্যে ৫২ জন পুরুষ ও ১২ জন নারী। বয়স বিভাজনে ৩১-৪০ বছরের মধ্যে সাতজন, ৪১-৫০ বছরের মধ্যে ছয়জন, ৫১-৬০ বছরের মধ্যে ২১ জন, ৬১-৭০ বছরের মধ্যে ১৬ জন, ৭১-৮০ বছরের মধ্যে ১১ জন এবং ৮১-৯০ বছরের মধ্যে তিনজন। মৃত ব্যক্তিদের মধ্যে ঢাকা বিভাগে ৩১, চট্টগ্রাম বিভাগে ১২, খুলনা বিভাগে সাত, রাজশাহী বিভাগে সাত, বরিশাল বিভাগে তিন, সিলেট বিভাগে দুই এবং ময়মনসিংহ বিভাগে দুইজন। হাসপাতালে মারা গেছেন ৫১ এবং বাড়িতে ১৩ জন।

সুস্থ হওয়ার তথ্যে জানানো হয়েছে, ২৪ ঘণ্টায় সুস্থ হয়েছেন এক হাজার ৮৪৪ জন। এ পর্যন্ত মোট সুস্থ হয়েছেন ৫৯ হাজার ৬২৪ জন। শনাক্ত বিবেচনায় সুস্থতার হার ৪০.৯৮ শতাংশ।

হাসপাতালের তথ্য সম্পর্কে জানানো হয়, ঢাকা মহানগরীতে কভিড রোগীদের জন্য সাধারণ শয্যা আছে ছয় হাজার ৭৫টি এবং নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্রের (আইসিইউ) শয্যা আছে ১৩৪টি। সব বিভাগ মিলে সাধারণ শয্যাসংখ্যা ১৪ হাজার ৭৫০টি। আর আইসিইউ শয্যা ৩৭৪টি। এসব হাসপাতালে মোট অক্সিজেন সিলিন্ডার আছে ১১ হাজার ১০৮টি। হাই-ফ্লো ন্যাজাল ক্যানোলা আছে ১০৪টি এবং অক্সিজেন কনসেনট্রেটর ৯৮টি। সারা দেশে সাধারণ শয্যায় ভর্তিকৃত রোগীর সংখ্যা চার হাজার ৫৩৯। আইসিইউতে ভর্তিকৃত রোগী ২০৪ জন। সারা দেশে গত ২৪ ঘণ্টায় ভর্তি হয়েছে ৫৪৭ জন। আর হাসপাতাল থেকে ছাড়া পেয়েছে ৭২৭ জন।

 

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা