kalerkantho

শুক্রবার । ২২ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭ । ৫ জুন ২০২০। ১২ শাওয়াল ১৪৪১

করোনাযুদ্ধে জাগ্রত অনন্য মানবতা

নিজস্ব প্রতিবেদক   

১ এপ্রিল, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ৪ মিনিটে



করোনাযুদ্ধে জাগ্রত অনন্য মানবতা

করোনা জয়! এখনো বহুদূর। কিন্তু করোনার ছোবলে ক্ষতবিক্ষত খেটে খাওয়া দুস্থ মানুষের রক্তক্ষরণ যে থামছেই না। করনোভাইরাস কেড়ে নিয়েছে গরিবের অসহায় মুখের ‘দুর্লভ’ হাসিও। ফিকে হওয়া হাসি গরিবের মুখে ফেরাতে কাঁধে কাঁধ রেখে দেশজুড়ে এখন চলছে মানবিক মানুষগুলোর অনন্য এক লড়াই! পেটে ক্ষুধা নিয়ে ঘরবন্দি গরিব মানুষের জন্য সরকারের পক্ষ থেকে সহযোগিতা তো আছেই। সঙ্গে ব্যক্তি উদ্যোগ, সামাজিক ও রাজনৈতিক সংগঠন, জনপ্রতিনিধিদের মানবিকতাও জাগ্রত। করোনা পরিস্থিতিতে ভিড় এড়াতে গভীর রাতে ‘খাদ্য উপহার’ পৌঁছে যাচ্ছে গরিবের বাড়ি বাড়ি।

কর্মহীন অসহায় দরিদ্র মানুষের মাঝে খাদ্যসামগ্রী পৌঁছে দিচ্ছে মাগুরা সদরের হাজরাপুর ইউনিয়নে রাউতড়া গ্রামের মানুষ। তরুণ সংঘ নামের স্থানীয় একটি সংগঠনের উদ্যোগে তারা এ কাজ চালিয়ে যাচ্ছে। সংগঠনের ৩৩ তরুণ সচ্ছল মানুষের বাড়ি বাড়ি গিয়ে সংগ্রহ করেছে চাল, ডাল, সবজি, তেলসহ নানা সামগ্রী।

নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁয় ঘরবন্দি শ্রমজীবী ২২০ পরিবারকে খাদ্য সহায়তা করেছেন স্থানীয় সাত যুবক। রাতে সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে ঘরে ঘরে এ খাবার পৌঁছে দেন তাঁরা।

এদিকে করোনায় খাদ্যসংকটে ভুগতে থাকা মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আখাউড়ার ‘আমরা ৯৫’ নামে একটি সংগঠন। আখাউড়া থেকে ১৯৯৫ সালে এসএসসি পরীক্ষা দেওয়া শিক্ষার্থীদের নিয়ে গড়া ওই সংগঠন উপকারভোগীদের নিজ ইচ্ছামতো নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্য কেনার সুযোগ দিচ্ছে।

করোনা সংক্রমণ রোধে কর্মজীবী সাধারণ মানুষ কর্মহীন হয়ে পড়ায় তাদের পাশে দাঁড়িয়েছে খুলনার বিভিন্ন স্তরের মানুষ। এসব মানুষের কাছে চাল, ডাল, লবণ, পেঁয়াজ, তেল, আলু কোনো কোনো ক্ষেত্রে সাবান, স্যানিটাইজার সামগ্রী পৌঁছে দেওয়া হচ্ছে। এদিকে সরকারিভাবে খুলনা প্রশাসনের পক্ষ থেকেও জেলার বিভিন্ন উপজেলার প্রত্যন্ত এলাকায় সহায়তা সামগ্রী দেওয়া হচ্ছে।

ময়মনসিংহের হালুয়াঘাটের কলেজছাত্ররা করোনা ঝুঁকি মোকাবেলায় উপজেলার বিভিন্ন দোকানের সামনে বৃত্ত এঁকে ক্রেতাদের নিরাপদ দূরত্ব দেখিয়ে দিচ্ছে। তারা এরই মধ্যে উপজেলার শতাধিক ফার্মেসি ও নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যের দোকানের সামনে তিন ফুট দূরত্ব রেখে নিরাপত্তা চিহ্ন এঁকেছে। এদিকে করোনা সংকটে এলাকার দরিদ্র, বেকার ও অসহায় পরিবারগুলোর পাশে দাঁড়াতে সরকারের বরাদ্দের বাইরে নিজেদের বেতন এবং ব্যক্তি তহবিলের টাকা দিয়ে ফান্ড গঠন করেছে ময়মনসিংহ সদর উপজেলা পরিষদ।

এদিকে কালের কণ্ঠ শুভসংঘ কক্সবাজারের চকরিয়া উপজেলা শাখার উদ্যোগে গতকাল মঙ্গলবার ঘরবন্দি কর্মহীন শ্রমজীবী মানুষের মধ্যে খাদ্য সহায়তা দেওয়া হয়েছে। পৌরসভার বিভিন্ন ওয়ার্ড ছাড়াও উপজেলার সাহারবিল, বরইতলী, বদরখালী, লক্ষ্যারচর, ফাঁসিয়াখালীর হাজিয়ান ও দিগরপানখালীসহ বিভিন্ন এলাকার বাড়ি বাড়ি গিয়ে ১৩০ পরিবারের মাঝে এই খাদ্যসামগ্রী তুলে দেওয়া হয়। ময়মনসিংহের ফুলবাড়িয়ার শুভসংঘের সদস্যরা উপজেলা পরিষদের সামনে পথাচারীদের মাঝে মাস্ক, হ্যান্ড স্যানিটাইজার ও সাবান বিতরণ করেছেন। নওগাঁর বদলগাছীতেও শুভসংঘের বন্ধুরা খাদ্যসামগ্রী বিতরণ করেছেন।

নড়াইলের সংসদ সদস্য মাশরাফি বিন মর্তুজার ব্যক্তিগত অর্থায়নে চিকিৎসকদের জন্য চিকিৎসা সরঞ্জাম দেওয়া হয়েছে। গতকাল দুপুরে নড়াইলের সিভিল সার্জনের হাতে এসব সামগ্রী তুলে দেন মাশরাফির বাবা গোলাম মোর্তজা স্বপন। এ সময় নড়াইলে কর্মরত সাংবাদিকদের জন্যও নিরাপত্তাসামগ্রী দেওয়া হয়।

বিপন্ন সময়ে দেশের মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছে রাঙামাটির ছাত্রসংগঠনগুলো। নিজ নিজ সামর্থ্যের সর্বোচ্চ নিয়ে মাঠে নেমেছে তারা। এরই মধ্যে কার্যক্রম চোখে পড়েছে ছাত্রলীগ, ছাত্রদল ও ছাত্র ইউনিয়নের।

করোনায় কর্মহীন নারায়ণগঞ্জের অর্ধশত ঘাট শ্রমিককে খাদ্যসামগ্রী বিতরণ করেছে বিআইডাব্লিউটিএ নারায়ণগঞ্জ নদীবন্দর কর্তৃপক্ষ।

এদিকে রাজশাহী সিটি করপোরেশনের মেয়র ও মহানগর আওয়ামী লীগ সভাপতি এ এইচ এম খায়রুজ্জামান লিটন বলেছেন, সরকারি ও সমাজের বিত্তবানদের সহযোগিতায় পর্যায়ক্রমে এক লাখ পরিবারকে খাদ্য সহায়তা দেওয়া হবে।

এ ছাড়া চুয়াডাঙ্গা, মুন্সীগঞ্জ, ঢাকার ধামরাই ও কেরানীগঞ্জ, নোয়াখালী, শরীয়তপুর, নীলফামারী, শেরপুর, নাটোর, ঝালকাঠি, গাজীপুরের কালিয়াকৈর, কিশোরগঞ্জের ভৈরব, সিরাজগঞ্জের উল্লাপাড়া, শাহজাদপুর ও তাড়াশ, টাঙ্গাইল সদর ও সখীপুর, ঠাকুরগাঁওয়ের রানীশংকৈল, রংপুরের বদরগঞ্জ, দিনাজপুরের পার্বতীপুর, বিরামপুর, বোচাগঞ্জ, হিলি ও হাকিমপুর, গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জ, কুমিল্লার নাঙ্গলকোট, মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জ ও কুলাউড়া, ময়মনসিংহের ভালুকা, ত্রিশাল ও গফরগাঁও, চট্টগ্রামের সীতাকুণ্ড, মাদারীপুরের শিবচর, গোপালগঞ্জের কোটালীপাড়া, নওগাঁ সদর, রাণীনগর, সাপাহার ও ধামইরহাট, কুড়িগ্রামের ভূরুঙ্গামারী, পিরোজপুরের ইন্দুরকানী, নেত্রকোনার দুর্গাপুর ও বারহাট্টা, বরগুনার বামনা, বাগেরহাটের শরণখোলা, যশোরের বাঘারপাড়া, খাগড়াছড়ির পানছড়ি, সাতক্ষীরার তালা, হবিগঞ্জ সদর ও নবীগঞ্জ, বগুড়ার শাজাহানপুর ও লালমনিরহাটের পাটগ্রামেও স্থানীয় প্রশাসন, স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন ও ব্যক্তিগত উদ্যোগে হতদরিদ্র মানুষের মাঝে খাদ্যসামগ্রী বিতরণ করা হয়েছে।

[প্রতিবেদন তৈরিতে তথ্য দিয়ে সহায়তা করেছেন কালের কণ্ঠ’র নিজস্ব প্রতিবেদক ও প্রতিনিধিরা]

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা