kalerkantho

শনিবার । ৯ ফাল্গুন ১৪২৬ । ২২ ফেব্রুয়ারি ২০২০। ২৭ জমাদিউস সানি ১৪৪১

ভিক্ষুকের কাছে নবজাতক রেখে পালালেন নারী

ভৈরব (কিশোরগঞ্জ) প্রতিনিধি   

২৬ জানুয়ারি, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



ভিক্ষুকের কাছে নবজাতক রেখে পালালেন নারী

উদ্ধারের পর নার্সের কোলে নবজাতক। খবর পেয়ে অনেকেই দত্তক নিতে হাসপাতালে ভিড় করছেন। ছবি : কালের কণ্ঠ

কিশোরগঞ্জের ভৈরবে এক দিনের নবজাতককে ভিক্ষুকের কাছে ফেলে লাপাত্তা হয়েছেন অচেনা এক নারী। কন্যাশিশুটি বর্তমানে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে সুস্থ অবস্থায় আছে। তাকে দত্তক নিতে এরই মধ্যে বেশ কয়েকজন আগ্রহ দেখিয়েছেন। গতকাল শনিবার সকালে হাসপাতালে গিয়ে ওই শিশুর খোঁজখবর নিয়েছেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও)।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, শুক্রবার সন্ধ্যা সাড়ে ৬টার দিকে ভৈরব বাসস্ট্যান্ড এলাকায় বাস থেকে নামেন শিশুসহ এক নারী। এরপর তিনি শৌচকর্মের কথা বলে সড়কের পাশে অবস্থান করা এক নারী ভিক্ষুকের কাছে শিশুটিকে দেন। তারপর থেকে ওই নারী লাপাত্তা। ওই ভিক্ষুক মিনিট বিশেক অপেক্ষা করে ওষুধ দোকানি আশরাফুল ইসলাম মুকুলের হাতে শিশুটিকে তুলে দেন। মুকুল বিষয়টি ফোনে ইউএনও লুবনা ফারজানাকে জানান। এরপর ইউএনও ওই শিশুকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করাতে পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. বুলবুল আহম্মেদকে নির্দেশ দেন। রাত ৯টার দিকে ওই শিশুকে মুকুলের কাছ থেকে এনে হাসপাতালে ভর্তি করেন ডা. বুলবুল। এ সময় তিনি ওই শিশুর শারীরিক পরীক্ষা-নিরীক্ষাও করেন।

শুক্রবার রাত ১১টায় সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, হাসপাতালের মা ও শিশু ওয়ার্ডের ১ নম্বর বেডে ভর্তি আছেন সুমি বেগম নামের এক রোগী। সঙ্গে তাঁর মা মাজেদা খাতুনও আছেন। ওই নবজাতককে কাঁদতে দেখে কোলে তুলে নেন মাজেদা। এরপর শিশুটির কান্না থেমে যায়। পরে প্যাকেট দুধ, ফিডার ও বিভিন্ন উপকরণ কিনে নিয়ে আসেন মাজেদা। এরপর তাঁর পরশে শিশুটি ঘুমিয়ে পড়ে।

মাজেদা খাতুন বলেন, ২৫-২৬ বছর আগে তাঁর বড় মেয়ে রুমার বিয়ে হয়েছে ভৈরবের ভৈরবপুরে। রুমার কোনো সন্তান নেই। ওই নবজাতককে দত্তক নিতে চান রুমা।

উপজেলা পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. বুলবুল আহম্মেদ বলেন, শুক্রবার কোনো এক সময়ে শিশুটির জন্ম হয়েছে। তার শারীরিক অবস্থা ভালো আছে।

ইউএনও লুবনা ফারজানা বলেন, ‘নবজাতককে হাসপাতালে গিয়ে দেখে এসেছি। তাকে দত্তক নিতে আমার কাছে ৮-১০ জন আগ্রহ প্রকাশ করেছেন। আমরা নবজাতকটিকে সমাজসেবা অধিদপ্তরের মাধ্যমে কিশোরগঞ্জ আদালতে হস্তান্তর করব। আদালতের নির্দেশে নবজাতকের লালন-পালনের ভার নির্ধারণ হবে।’

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা