kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ১৪ ফাল্গুন ১৪২৬ । ২৭ ফেব্রুয়ারি ২০২০। ২ রজব জমাদিউস সানি ১৪৪১

বাবার সহায়তায় কিশোরীকে ধর্ষণ!

বিভিন্ন স্থানে আরো পাঁচজন নির্যাতনের শিকার স্বামীকে আটকে স্ত্রীকে সংঘবদ্ধ ধর্ষণ

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

১৬ জানুয়ারি, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ৬ মিনিটে



বাবার সহায়তায় কিশোরীকে ধর্ষণ!

মেয়েটির বয়স তখন ১৩ বছর। হঠাৎ একদিন তাদের বাসায় আসেন বাবার মহাজন মো. আবুল (৩৫)। তিনি এসে বারান্দার কক্ষে শুয়ে থাকেন। এ সময় কিশোরী মেয়েটিকে আবুলের কাছে যেতে বলেন তার বাবা। সে যেতে না চাইলে মারধর করে তাকে পাঠানো হয়। আর সেদিন আবুল ধর্ষণ করেন মেয়েটিকে। এরপর বিভিন্ন সময় তাকে ধর্ষণ করেন আবুল। সব শেষ ধর্ষণ করেন গত শনিবার। এক বছর ধরে রাজধানীর কামরাঙ্গীর চরে ঘটেছে এ ঘটনা। গত মঙ্গলবার রাতে মেয়েটিকে উদ্ধার এবং তার বাবাকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

এ ছাড়া মৌলভীবাজার সদর উপজেলায় সংঘবদ্ধ ধর্ষণের শিকার হয়েছেন এক কলেজছাত্রী ও তাঁর বান্ধবী। দিনাজপুরের চিরিরবন্দর ও হবিগঞ্জে দুই শিশু এবং টাঙ্গাইলের সখীপুরে স্কুলছাত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগ পাওয়া গেছে। ঢাকার আশুলিয়ায় বাসাভাড়া পরিশোধ করতে না পারায় মঙ্গলবার রাতে স্বামীকে আটকে রেখে পোশাক শ্রমিককে সংঘবদ্ধ ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে বাসার মালিক ও তাঁর সঙ্গীদের বিরুদ্ধে। সাভারে গত রবিবার ভাড়াটিয়ার শিশুসন্তানকে (৮) ধর্ষণচেষ্টার অভিযোগে সোমবার বাড়ির মালিকের বিরুদ্ধে মামলা করেছেন শিশুটির বাবা।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্র জানায়, মেয়েটি কামরাঙ্গীর চরে বাবার সঙ্গে একটি বাসায় থাকে। বাবা মো. আবুলের দোকানে কাজ করেন। বছরখানেক আগে আবুলের কাছ থেকে ছয় হাজার টাকা ঋণ নেন মেয়েটির বাবা। সেই ঋণ শোধ করতে পারছিলেন না তিনি। একদিন তাঁকে আবুল বলেন, তাঁর মেয়ের সঙ্গে প্রেম করার সুযোগ দিলে টাকা ফেরত দিতে হবে না। এতে রাজি হন মেয়েটির বাবা। সেদিনই আবুল তাঁর বাড়িতে গিয়ে তাঁর সহায়তায় মেয়েটিকে ধর্ষণ করেন। এভাবে মেয়েটিকে তার বাবার সহায়তায় এক বছর ধরে নির্যাতন করে আসছিলেন আবুল। বিষয়টি সহ্য করতে না পেরে গত মঙ্গলবার প্রতিবেশী এক ভাবিকে জানায় মেয়েটি। পরে ভাবির স্বামী পুলিশের জরুরি সেবা ৯৯৯ নম্বরে ফোন করে সহযোগিতা চান। ওই দিন রাতে কামরাঙ্গীর চর থানার পুলিশ গিয়ে মেয়েটিকে উদ্ধার করে এবং তার বাবাকে আটক করে থানায় নেয়। রাত ২টার দিকে মেয়েটিকে শারীরিক পরীক্ষার জন্য ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালের ওসিসিতে ভর্তি করা হয়।

কামরাঙ্গীর চর থানার উপপরিদর্শক মো. মোর্শেদ আলী কালের কণ্ঠকে জানান, এ ঘটনায় মেয়েটির ওই ভাবির স্বামী বাদী হয়ে থানায় মামলা করেছেন। মামলায় তার বাবাকে পুলিশ গ্রেপ্তার দেখিয়ে গতকাল বুধবার আদালতে পাঠান। আদালত তাঁকে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন। অভিযুক্ত মো. আবুলকে গ্রেপ্তারে মাঠে নেমেছে পুলিশ।

তিন শিশুসহ আরো ছয়জনকে ধর্ষণ

কলেজ থেকে ফেরার পথে মৌলভীবাজার শহরের রঘুনন্দনপুরে স্টেডিয়াম এলাকায় গত মঙ্গলবার বিকেলে কলেজছাত্রী ও তাঁর বান্ধবী ধর্ষণের শিকার হন। এ ঘটনায় এক সিএনজিচালিত অটোরিকশার চালকসহ পাঁচজনকে অভিযুক্ত করে মৌলভীবাজার সদর মডেল থানায় মামলা করেছেন কলেজছাত্রী। অভিযুক্ত তিন যুবককে মঙ্গলবার রাতে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। তাঁরা হলেন মোস্তফাপুর ইউনিয়নের উত্তর জগন্নাথপুর এলাকার ইসমাইল মিয়ার ছেলে মুন্না মিয়া (২৬), হাসিব উদ্দিনের ছেলে আকাশ (২২) এবং ছুরফ মিয়ার ছেলে হুমায়ুন (২০)। নির্যাতিত দুই তরুণীকে মৌলভীবাজার ২৫০ শয্যাবিশিষ্ট হাসপাতালে ভর্তি করেছে পুলিশ।

থানা সূত্রে জানা যায়, মঙ্গলবার বিকেলে কলেজ থেকে বাড়ি ফেরার পথে কোর্ট রোডে মৌলভীবাজার প্রেস ক্লাবের সামনে একটি সিএনজিচালিত অটোরিকশায় ওঠেন কলেজছাত্রী ও তাঁর বান্ধবী। কিছুক্ষণ পর পূর্বপরিচয়ের সূত্রে চার যুবক অটোরিকশাটিতে ওঠেন। চালক চার যুবকের কথামতো অটোরিকশাটি চালিয়ে রঘুনন্দনপুরে স্টেডিয়াম এলাকায় গিয়ে থামেন। এরপর পূর্বপরিকল্পনা অনুযায়ী চার যুবক দুই তরুণীকে স্টেডিয়ামের পেছনে ঝোপে নিয়ে ধর্ষণ করেন। পরে তরুণীরা এসে বিষয়টি পুলিশকে জানান।

মৌলভীবাজারের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) মো. জিয়াউর রহমান ও সদর মডেল থানার ওসি মো. আলমগীর হোসেন গতকাল বুধবার জানান, গ্রেপ্তার হওয়া তিনজনই অটোরিকশাচালক। অন্য দুই আসামিকে গ্রেপ্তারে অভিযান চলছে।

ঢাকার আশুলিয়ায় পোশাক শ্রমিককে নির্যাতনে প্রধান অভিযুক্ত বাড়ির মালিক ফার্মেসি ব্যবসায়ী মো. কালামকে (৪৫) গতকাল আটক করেছে পুলিশ। ভুক্তভোগীর অভিযোগ, মঙ্গলবার রাত ১২টার দিকে কালাম তার পাঁচ সঙ্গীকে নিয়ে ডিসেম্বর মাসের বকেয়া দুই হাজার টাকা ভাড়ার জন্য ওই নারীর কক্ষে যান। কারখানায় তাঁদের বেতন পরিশোধ করা হয়নি বলে কালামকে জানান তিনি। এ সময় কালামের দুই সহযোগী তাঁর স্বামীকে পাশের কক্ষে আটকে রাখেন। পরে তাঁরা তাঁর সোনার গয়না খুলে নেন। এরপর ভোর ৪টা পর্যন্ত তাঁকে সবাই ধর্ষণ করে চলে যান। পরদিন সকালে তিনি আশুলিয়া থানায় গিয়ে অভিযোগ করেন। থানার উপপরিদর্শক সেলিম রেজা জানান, এ ঘটনায় বাকি অভিযুক্তদের আটকের পাশাপাশি মামলা প্রক্রিয়াধীন।

শিশুর ঘটনায় অভিযুক্ত বৃদ্ধ নয়ন মোল্লা (৭৫) সাভার পৌর এলাকার কামাল গার্মেন্ট রোডের বাসিন্দা। তাঁর মেয়ে পৌর মহিলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক রাহিমা বেগম বলেন, ভাড়াটিয়া ওই পরিবারের কাছে ছয় মাসের বকেয়া বাসাভাড়ার জন্য চাপ দেওয়ায় তাঁর বাবার বিরুদ্ধে মিথ্যা অভিযোগ করা হয়েছে। এ ছাড়া একটি মহল তাঁকে ও পরিবারকে রাজনৈতিকভাবে হেয় করতে এ হীন চক্রান্ত করছে। থানার ওসি এ এফ এম সায়েদ গতকাল বলেন, আসামিকে গ্রেপ্তারে অভিযান চলছে।

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা সাভার মডেল থানার উপপরিদর্শক পলি আক্তার বলেন, ঢাকার জ্যেষ্ঠ মুখ্য বিচারিক হাকিম কামরুন্নাহার তাঁর খাসকামরায় মঙ্গলবার শিশুটির জবানবন্দি রেকর্ড করেন। এর আগে শিশুটিকে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসা দেওয়া হয়। প্রাথমিক তদন্তে অভিযোগের সত্যতা মিলেছে।

দিনাজপুরের চিরিরবন্দর উপজেলার অমরপুর ইউনিয়নে মঙ্গলবার দুপুরে এক শিশু (৫) ধর্ষণের শিকার হয়। এ ঘটনায় শিশুটির বাবা চিরিরবন্দর থানায় মামলা করলে আসামি মরসালিনকে (২১) বিকেলে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। মরসালিন অমরপুরের মথুরাপুর গ্রামের নুর হোসেনের ছেলে। অসুস্থ শিশুটি দিনাজপুরের এম আব্দুর রহিম মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন।

হবিগঞ্জ শহর এলাকার একটি গ্রামে মঙ্গলবার সকালে এক শিশুকে (৮) চকোলেট খাওয়ানোর কথা বলে ডেকে নিয়ে ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে। অসুস্থ অবস্থায় তাকে মঙ্গলবার রাতে হবিগঞ্জ আধুনিক জেলা সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। এ ঘটনায় রাতেই অভিযুক্ত শাহিন মিয়াকে আটক করেছে পুলিশ। শাহিন শহরের উমেদনগর গ্রামে ভাড়া বাড়িতে থাকেন।

টাঙ্গাইলের সখীপুর উপজেলার কাহারতা উচ্চ বিদ্যালয়ের ধর্মীয় শিক্ষক মো. নাসির উদ্দিনের বিরুদ্ধে গত ৮ জানুয়ারি এক ছাত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে। ঘটনার তিন দিন পর মেয়েটির কাছ থেকে বিষয়টি জেনে পরিবারের লোকজন নাসিরকে মারধর করে এবং বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষকে জানায়। তবে তিনি কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘এসব আমার বিরুদ্ধে সাজানো ষড়যন্ত্র।’ সখীপুর থানার ওসি আমির হোসেন বলেন, অভিযোগ পেলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

[প্রতিবেদন তৈরিতে তথ্য দিয়েছেন কালের কণ্ঠ’র নিজস্ব প্রতিবেদক, ঢাকা, সাভার ও মৌলভীবাজার এবং দিনাজপুর, হবিগঞ্জ ও সখীপুর (টাঙ্গাইল) প্রতিনিধি]

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা