kalerkantho

শুক্রবার । ১৪ কার্তিক ১৪২৭। ৩০ অক্টোবর ২০২০। ১২ রবিউল আউয়াল ১৪৪২

ভারত সফরে চিনপিং

কাশ্মীর ইস্যু এড়িয়ে যেতে চান মোদি

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

১২ অক্টোবর, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



কাশ্মীর ইস্যু এড়িয়ে যেতে চান মোদি

ছবি: ইন্টারনেট

কাশ্মীর ইস্যুতে চলমান অস্থিরতার মধ্যেই ভারত সফরে গেলেন চীনের প্রেসিডেন্ট শি চিনপিং। আজ শনিবার প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির সঙ্গে বৈঠক করবেন তিনি। ভারতীয় গণমাধ্যম বলছে, পাকিস্তান চাইলেও বৈঠকে কাশ্মীর ইস্যু নিয়ে ভারত কোনো কথা বলতে চায় না। বরং চীন-ভারতের কূটনৈতিক ও বাণিজ্যিক সম্পর্কের দিকেই বেশি মনোযোগ দিতে চান নরেন্দ্র মোদি।

দুই দিনের সফরে গতকাল শুক্রবার স্থানীয় সময় দুপুর ২টার দিকে চেন্নাই বিমানবন্দরে অবতরণ করেন চিনপিং। সেখানে তাঁকে স্বাগত জানান তামিলনাড়ুর রাজ্যপাল ও মুখ্যমন্ত্রী। আজ শনিবার ‘তাজ ফিশারম্যানস কোভ’ রিসোর্টে মোদির সঙ্গে বৈঠকে বসবেন তিনি। ওই দিনই তিনি রওনা হবেন নেপালের উদ্দেশে।

দুই দেশের কূটনৈতিক সূত্রের বরাত দিয়ে আনন্দবাজার পত্রিকা জানিয়েছে, আজকের বৈঠকে কাশ্মীর নিয়ে দিল্লি কথা বলতে আগ্রহী নয়। তবে সংবিধানের ৩৭০ অনুচ্ছেদ বাতিলের প্রভাব নিয়ন্ত্রণরেখায় পড়বে কি না, তা নিয়ে বেইজিং খোলাখুলি কথা বলতে চায়। এ ছাড়া অনেক কূটনৈতিক মনে করেন, বিভিন্ন ইস্যুতে ভারতকে চাপে রাখতে পাকিস্তানকে তুরুপের তাস হিসেবে ব্যবহার করে চীন। ফলে চিনপিংয়ের সফরে ভারত চাইলেও শেষমেশ কাশ্মীর ইস্যু এড়িয়ে চলতে পারবে কি না, তা নিয়ে সন্দেহ রয়েছে।

গতকাল ভারতে পৌঁছার পরই চিনপিংকে টুইটার বার্তার মাধ্যমে স্বাগত জানান নরেন্দ্র মোদি। ভারতের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের একটি সূত্র জানিয়েছে, সন্ত্রাস ও পরিবেশদূষণ দমনে বাড়তি সহযোগিতা, সর্বোপরি দ্বিপক্ষীয় বাণিজ্যে ভারতের ঘাটতি কমানোর বিষয়গুলোর প্রতিই মোদি বেশি মনোযোগ দিতে চান।

সম্প্রতি চীন সফরে যান পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান। সেখানে যৌথ বিবৃতিতে চিনপিং বলেন, পাকিস্তান যেসব ইস্যুকে মৌলিক মনে করে, সেগুলোর প্রতি চীনের সমর্থন রয়েছে এবং কাশ্মীরের দিকে বেইজিং নজর রেখেছে।

এই বিবৃতির পরই পাল্টা বিবৃতি দেয় ভারতের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়। তাতে বলা হয়, ‘ভারতের অবস্থান সম্পর্কে চীন ভালোভাবেই জানে এবং ভারতের অভ্যন্তরীণ বিষয়ে অন্য কোনো দেশের মন্তব্য করা উচিত নয়।’

এ অবস্থায় চিনপিং ভারতে পৌঁছানোর ঘণ্টা কয়েক আগে কাশ্মীর ইস্যুতে ইমরান খান বলেন, ‘কাশ্মীর নিয়ে ভারত ভুল সিদ্ধান্ত নিয়েছে।’ আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যম কেন কাশ্মীরের খবর তুলে ধরছে না, তা নিয়েও সমালোচনা করেন তিনি।

এনডিটিভির খবরে বলা হয়, মোদি ও চিনপিংয়ের আজকের বৈঠকে কোনো চুক্তি স্বাক্ষরিত হবে না। দেওয়া হবে না কোনো যৌথ বিবৃতিও।

গত বছর চীনের উহানে মোদি ও চিনপিংয়ের প্রথম শীর্ষ সম্মেলন হয়। ডোকলামে দুই দেশের সেনাবাহিনীর মধ্যে প্রায় আড়াই মাস ধরে চলা উত্তেজনা প্রশমনের লক্ষ্যে ওই বৈঠকে বসেন তাঁরা। সূত্র : এনডিটিভি, আনন্দবাজার পত্রিকা।

 

 

মন্তব্য