kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ৬ অক্টোবর ২০২২ । ২১ আশ্বিন ১৪২৯ ।  ৯ রবিউল আউয়াল ১৪৪৪

দশম শ্রেণি অধ্যায়ভিত্তিক প্রশ্ন বাংলা প্রথম পত্র

আতাউর রহমান সায়েম, সিনিয়র সহকারী শিক্ষক, আইডিয়াল স্কুল অ্যান্ড কলেজ, মতিঝিল, ঢাকা

১৯ আগস্ট, ২০২২ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



কবিতা

সেইদিন এই মাঠ

জীবনানন্দ দাশ

অনুধাবন স্তরের প্রশ্নোত্তর

[পূর্ব প্রকাশের পর]

৮।   ‘পৃথিবীর এইসব গল্প বেঁচে রবে চিরকাল’ বলতে কবি কী বোঝাতে চেয়েছেন?  

     উত্তর : ‘পৃথিবীর এই সব গল্প বেঁচে থাকবে চিরকাল’ বলতে প্রকৃতির বহমানতা চিরকাল বেঁচে থাকবে তা বোঝানো হয়েছে।

     পৃথিবীর প্রবহমানতা চিরন্তন। ব্যক্তিমানুষ একসময় পৃথিবী ছেড়ে চলে যায়।

বিজ্ঞাপন

কিন্তু চালতা ফুল আগের মতোই ভিজে শিশিরের জলে, লক্ষ্মীপেঁচা গান গায়। খেয়ানৌকার যাতায়াত, পৃথিবীর কলরব—সবই চলতে থাকে প্রকৃতির নিয়মে। তাই কবি বলেছেন, ‘পৃথিবীর এইসব গল্প বেঁচে রবে চিরকাল’। অর্থাৎ পৃথিবীর এই বহমানতা কালক্রমে চলতেই থাকে।

৯।   ‘লক্ষ্মীপেঁচা গান গাবে নাকি তার লক্ষ্মীটির তরে?’—চরণটির অর্থ ব্যাখ্যা করো।

     উত্তর : ‘লক্ষ্মীপেঁচা গান গাবে নাকি তার লক্ষ্মীটির তরে?’—চরণটির অর্থ হচ্ছে প্রকৃতিতে মায়া-মমতা, স্নেহ-ভালোবাসার ধারা অনন্তকাল ধরে বহমান থাকবে।

     ‘সেইদিন এই মাঠ’ কবিতায় বলা হয়েছে, মানুষের মৃত্যু ঘটলেও প্রকৃতির চিরবহমানতায় কোনো ছন্দঃপতন হয় না। এ ক্ষেত্রে জীবনানন্দ দাশ প্রকৃতির নানান চিত্রের বর্ণনা দিয়েছেন। লক্ষ্মীপেঁচার মমত্বের অনুভাবনাও তিনি তুলে ধরেছেন অসাধারণ এক তাৎপর্যে। লক্ষ্মীপেঁচা এখানে প্রকৃতিরই এক প্রতিনিধি। ব্যক্তিমানুষের অস্তিত্ব হারিয়ে যায়। কিন্তু প্রকৃতির নিয়মে লক্ষ্মীপেঁচার কণ্ঠে চিরকাল ধ্বনিত হবে মঙ্গলবার্তা।



সাতদিনের সেরা