kalerkantho

শুক্রবার। ২৬ আষাঢ় ১৪২৭। ১০ জুলাই ২০২০। ১৮ জিলকদ ১৪৪১

বসুন্ধরা খাতা - জানা অজানা

রবার্ট হুক

৩০ জুন, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



রবার্ট হুক

[ষষ্ঠ শ্রেণির বিজ্ঞান বইয়ের তৃতীয় অধ্যায়ে রবার্ট হুকের কথা উল্লেখ আছে]

রবার্ট হুক ১৬৩৫ সালের ২৮ জুলাই ইংল্যান্ডের উইট দ্বীপে জন্মগ্রহণ করেন। তিনি স্থিতিস্থাপকতা সূত্রের জন্য বিখ্যাত। জ্যোতির্বিজ্ঞান, পদার্থবিজ্ঞান, জীববিজ্ঞান—বিজ্ঞানের তিন শাখায়ই তিনি বেশ পারদর্শী ছিলেন। অবদান রেখেছেন রসায়ন, স্থাপত্যকলা আর ম্যাপ তৈরিতেও। তাঁর বাবা জন হুক ছিলেন একজন ধর্মযাজক এবং মা সিসিলি গিলেজ ছিলেন একজন গৃহিণী। চার ভাই-বোনের মধ্যে হুকই ছিলেন সবচেয়ে ছোট।

হুক ১৬৪৮ সালে মাত্র ১৩ বছরে তাঁর বাবাকে হারান। সে সময় তিনি লন্ডনের ওয়েস্টমিনস্টারে স্কুলে ভর্তি হন এবং সেই স্কুলে তিনি গ্রিক ও লাতিন ভাষার পাশাপাশি গণিত ও বলবিদ্যায় শিক্ষা লাভ করেন।

১৬৫৩ সালে হুক অক্সফোর্ডে চলে যান। সেখানে তিনি একটি রসায়ন গবেষণাগারে আরেক বিখ্যাত বিজ্ঞানী রবার্ট বয়েলের সহযোগী হিসেবে কাজ শুরু করেন। সেখানে কাজ করার অভিজ্ঞতাই তাঁকে বিজ্ঞানের পথে অগ্রসর হতে অনুপ্রাণিত করে। মূলত বয়েলের গবেষণার জন্য যত যন্ত্রপাতির প্রয়োজন ছিল, তার বেশির ভাগই হুকের হাতে তৈরি। প্রায় সাত বছর বয়েলের গবেষণাগারে কাজ করে পরীক্ষামূলক যন্ত্রপাতির ওপর ভালো রকম দক্ষতা অর্জন করেন হুক।

১৬৬২ সালে হুক রয়াল সোসাইটিতে গবেষণাবিষয়ক কিউরেটর হিসেবে যোগ দেন। তিনি পেন্ডুলাম ঘড়ির একটি উন্নত মডেল তৈরি করেন ১৬৫৭ সালে। ফলে সময় গণনা সহজ হয়ে যায়। শুধু তা-ই নয়, তিনি আধুনিক মাইক্রোস্কোপেরও পথপ্রদর্শক।

বিজ্ঞানের ইতিহাসে বিজ্ঞানবিষয়ক যে বইটিকে প্রথম বেস্ট সেলার হিসেবে ধরা হয় তা হচ্ছে রবার্ট হুকের ‘মাইক্রোগ্রাফিয়া’। ৩০ বছর বয়সে হুক ১৬৬৫ সালে যখন বইটি প্রকাশ করেন, তখন বিজ্ঞানীমহলে তাঁকে নিয়ে হৈচৈ পড়ে যায়। ১৭০৩ সালের ৩ মার্চ রবার্ট হুক ৬৭ বছর বয়সে লন্ডনে মারা যান।

 

ইন্দ্রজিৎ মণ্ডল

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা