kalerkantho

মঙ্গলবার । ১২ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭ । ২৬  মে ২০২০। ২ শাওয়াল ১৪৪১

মহাবিস্ফোরণ

৩০ মার্চ, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



মহাবিস্ফোরণ

[নবম-দশম শ্রেণির ভূগোল ও পরিবেশ বইয়ের মহাবিস্ফোরণের কথা উল্লেখ আছে]

বিজ্ঞানীরা বিভিন্ন তথ্য-প্রমাণ ব্যবহার করে পৃথিবী ও মহাবিশ্বের উৎপত্তি সম্পর্কে ধারণা দিয়েছেন। বিজ্ঞানীদের মতে, কোটি কোটি বছর আগে ছোট অথচ ভীষণ ভারী ও গরম একটি বস্তুপিণ্ড বিস্ফোরিত হয়ে সব দিকে ছড়িয়ে পড়তে শুরু করে। এ বিস্ফোরণকে মহাবিস্ফোরণ বলা হয়।

মহাবিস্ফোরণের পর পদার্থের কণাগুলো প্রথমে অতি ক্ষুদ্র কণায় পরিণত হয়। তারপর এই ক্ষুদ্র কণাগুলো কিছুটা ঠাণ্ডা ও একত্র হয়ে জ্যোতিষ্কে পরিণত হয়। এভাবে সূর্য ও অন্যান্য নক্ষত্র সৃষ্টি হয়। একদিকে তখন ক্ষুদ্র কণা মিলে জ্যোতিষ্ক সৃষ্টি হয়। একই সঙ্গে তখন মহাবিশ্ব আরো প্রসারিত হতে শুরু করে। মহাবিশ্বের সব শক্তি, পদার্থ, মহাকাশ—সব কিছু এই বিস্ফোরণ থেকে সৃষ্টি হয়েছে। মহাবিশ্ব একটি মহাবিস্ফোরণের মাধ্যমে সৃষ্টি হয়েছে তার পক্ষে অনেক তথ্য-প্রমাণ রয়েছে। এর একটি প্রমাণ হলো, মহাবিশ্ব এখনো বিস্তৃত হচ্ছে। মহাকাশের গ্যালাক্সি বা ছায়াপথ ও তারাসমূহ একে অপরের কাছ থেকে দূরে সরে যাচ্ছে। কাজেই এ থেকে ধারণা করা হয় যে এরা একসময় একসঙ্গে ক্ষুদ্র একটি জায়গায় ছিল; বিস্ফোরণের মাধ্যমে আলাদা হয়েছে।

►আব্দুর রাজ্জাক

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা