kalerkantho

জানা-অজানা

ফুসফুস

[অষ্টম শ্রেণির বিজ্ঞান বইয়ের প্রথম অধ্যায়ে ফুসফুসের কথা উল্লেখ আছে]

আব্দুর রাজ্জাক   

৩ আগস্ট, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



ফুসফুস

ফুসফুস হলো শরীরের অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ অঙ্গ, যা শ্বাস-প্রশ্বাসের কাজে ব্যবহৃত হয়। অর্থাৎ যে অঙ্গগুলোর সাহায্যে শ্বাসকার্য পরিচালিত হয়, সেগুলোকে একত্রে শ্বসনতন্ত্র বলে। আর শ্বসনতন্ত্রের সঙ্গে সম্পৃক্ত অঙ্গগুলোর একটি ফুসফুস। এই শ্বাসযন্ত্রটির প্রধান কাজ হলো বাতাস থেকে অক্সিজেনকে রক্তপ্রবাহে নেওয়া এবং রক্তপ্রবাহ থেকে কার্বন ডাইঅক্সাইডকে বাতাসে নিষ্কাশন করা। মানব দেহের বক্ষ গহ্বরের ভেতরে হৃৎপিণ্ডের দুই পাশে দুটি ফুসফুস থাকে। এরা স্পঞ্জের মতো নরম ও কোমল, হালকা লালচে রঙের। ডান ফুসফুস বাঁয়েরটার চেয়ে বড়। স্বাভাবিক পূর্ণবয়স্ক ব্যক্তির দুটি ফুসফুসের ওজন একত্রে প্রায় ১.৩ কিলোগ্রাম হয়। ডান ফুসফুস তিন খণ্ডে এবং বাঁ ফুসফুস দুই খণ্ডে বিভক্ত। ফুসফুস দুই ভাঁজবিশিষ্ট প্লুরা নামক পর্দা দ্বারা আবৃত। দুই ভাঁজের মধ্যে এক প্রকার রস নির্গত হয়। ফলে শ্বাসক্রিয়া চলার সময় ফুসফুসের সঙ্গে বক্ষগাত্রের কোনো ঘর্ষণ লাগে না। ফুসফুসে অসংখ্য বায়ুথলি বা বায়ুকোষ, সূক্ষ্ম সূক্ষ্ম শ্বাসনালি ও রক্তনালি থাকে। বায়ুথলিগুলোকে অ্যালভিওয়াস (Alveolus) বলে। বায়ুথলিগুলো ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র অণুক্লোম শাখাপ্রান্তে মৌচাকের মতো অবস্থিত। নাসাপথ দিয়ে বায়ু সরাসরি বায়ুথলিতে যাতায়াত করতে পারে। বায়ুথলি পাতলা আবরণী দ্বারা আবৃত এবং প্রতিটি বায়ুথলি কৈশিক নালিকা দ্বারা পরিবেষ্টিত। বায়ু প্রবেশ করলে এগুলো বেলুনের মতো ফুলে উঠে এবং পরে আপনা-আপনি সংকুচিত হয়। বায়ুথলি ও কৈশিক নালিকার গাত্র এত পাতলা যে এর ভেতর দিয়ে গ্যাসীয় আদান-প্রদান ঘটে। ফুসফুস সুস্থ রাখা খুবই জরুরি। এ জন্য খাদ্যতালিকায় অ্যান্টি অক্সিডেন্ট এবং ভিটামিন সি সমৃদ্ধ খাবার রাখা উচিত। ধূমপান, ধুলা, ধোঁয়া ফুসফুসের জন্য খুবই ক্ষতিকর। ধূমপানের কারণে ফুসফুসে ক্যান্সার পর্যন্ত হতে পারে। ধূমপান থেকে বিরত থাকা, বায়ুদূষণ এড়িয়ে চলা ফসুফুসকে সুরক্ষিত রাখতে সাহায্য করে। এ ছাড়া নিয়মিত শ্বাস-প্রশ্বাসের ব্যায়াম ফুসফুসকে সুস্থ রাখে।   

 

মন্তব্য