kalerkantho

জানা-অজানা

ভাওয়াইয়া

[ষষ্ঠ শ্রেণির বাংলাদেশ ও বিশ্বপরিচয় বইয়ে ভাওয়াইয়া গানের কথা উল্লেখ আছে]

আব্দুর রাজ্জাক   

২১ এপ্রিল, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ১ মিনিটে



ভাওয়াইয়া

শিল্পী আব্বাসউদ্দীন আহমদ

বাংলাদেশের বৃহত্তর রংপুর-দিনাজপুর, ভারতের পশ্চিমবঙ্গের কোচবিহার এবং আসামের কিছু অঞ্চলে প্রচলিত এক প্রকার লোকসংগীত হচ্ছে ভাওয়াইয়া। এ গান ভাবসমৃদ্ধ হওয়ায় ‘ভাব’ থেকে ‘ভাওয়াইয়া’ কথাটির উৎপত্তি হয়েছে। কারো কারো মতে, বাউদিয়া নামক উদাসী সম্প্রদায় এ গানের রূপকার। এই বাউদিয়া থেকেই ভাওয়াইয়া কথাটির উৎপত্তি হয়েছে। এ গানের বৈশিষ্ট্য হচ্ছে—গানগুলোতে স্থানীয় সংস্কৃতি, জনপদের জীবনযাত্রা, তাদের কর্মক্ষেত্র, পারিবারিক ঘটনাবলির সার্থক প্রয়োগ ঘটেছে। ভাওয়াইয়া গান জনপ্রিয় করে তুলেছেন শিল্পী আব্বাসউদ্দীন আহমদ। এ জন্য তাঁকে ‘ভাওয়াইয়া গানের সম্রাট’ বলা হয়। এ গানের নায়ক মৈশাল, গাড়োয়ান, মাহুত প্রমুখ। দোতারা ভাওয়াইয়া গানের প্রধান বাদ্যযন্ত্র। উল্লেখযোগ্য গানগুলোর মধ্যে রয়েছে—‘ফান্দে পড়িয়া বগা কান্দে রে’, ‘ছাড় রে মন ভবের খ্যালা’, ‘ওকি গাড়িয়াল ভাই’, ‘যে জন প্রেমের ভাব জানে না’, ‘কোন দ্যাশে যান মইশাল বন্দুরে’ ইত্যাদি। বাংলাদেশি চলচ্চিত্র পরিচালক শাহনেওয়াজ কাকলীর চলচ্চিত্র ‘উত্তরের সুর’ (২০১২) ছবিতে একজন ভাওয়াইয়া গায়কের জীবনচিত্র তুলে ধরা হয়েছে।

 

 

মন্তব্য