kalerkantho

রবিবার । ২৬ জানুয়ারি ২০২০। ১২ মাঘ ১৪২৬। ২৯ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪১     

জানা-অজানা

বাংলাদেশের জাতীয় পতাকা

[বিভিন্ন শ্রেণির বাংলাদেশ ও বিশ্বপরিচয় বইয়ে জাতীয় পতাকার কথা উল্লেখ আছে]

আব্দুর রাজ্জাক   

১১ নভেম্বর, ২০১৮ ০০:০০ | পড়া যাবে ১ মিনিটে



বাংলাদেশের জাতীয় পতাকা

বাংলাদেশের অস্তিত্ব ও সার্বভৌমত্বের প্রতীক জাতীয় পতাকা। সবুজ আয়তক্ষেত্রের মধ্যে লাল বৃত্তের পতাকাটির দৈর্ঘ্য ও প্রস্থের অনুপাত ১০:৬। সবুজ রং বাংলাদেশের সবুজ প্রকৃতি ও তারুণ্যের প্রতীক আর বৃত্তের লাল রং উদীয়মান সূর্য ও স্বাধীনতাযুদ্ধে জীবন উৎসর্গকারী শহীদদের রক্তের প্রতীক। ১৯৭১ সালের ১৩ মার্চ তৎকালীন ছাত্রনেতা আ স ম আবদুর রব ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বটতলায় সর্বপ্রথম জাতীয় পতাকা উত্তোলন করেন। ১৯৭১ সালের ২৩ মার্চ শেখ মুজিবুর রহমান স্বাধীনতা ঘোষণার প্রাক্কালে তাঁর বাসায় পতাকাটি উত্তোলন করেছিলেন। এর আগে ১৯৭০ সালে মানচিত্রসহ প্রথম জাতীয় পতাকাটি আঁকেন তৎকালীন ছাত্রনেতা শিবনারায়ণ দাশ। স্বাধীন বাংলাদেশে ১৯৭২ সালে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সরকার শিবনারায়ণ দাশের আঁকা পতাকাটির মাঝখানের মানচিত্র বাদ দিয়ে পতাকার মাপ, রং ও তার ব্যাখ্যাসংবলিত একটি প্রতিবেদন দেওয়ার দায়িত্ব দেন পটুয়া কামরুল হাসানকে। তিনি বর্তমান বাংলাদেশের জাতীয় পতাকাটির পরিমার্জিত রূপ তৈরি করেন। পতাকার এই বর্তমান রূপটি ১৯৭২ সালের ১৭ জানুয়ারি সরকারিভাবে গৃহীত হয়।    

   

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা