kalerkantho

শনিবার । ৮ কার্তিক ১৪২৭। ২৪ অক্টোবর ২০২০। ৬ রবিউল আউয়াল ১৪৪২

আগের দামে চাল বিক্রি

মজুদদারদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিন

১ অক্টোবর, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



এ দেশে কোনো নিত্যপণ্যের দামই ঠিক থাকে না। মাঝে মাঝে সরকার দাম ঠিক করে দেয় বটে, তবে ওই পর্যন্তই। নির্ধারিত দামে এ দেশে কেউ কিছু বিক্রি করে না। চাল-ডাল-তেল-তরকারি কোনো কিছুই না। নিত্যপণ্যের বাজার চলে ব্যবসায়ীদের মর্জিমতো। এটাই বোধ হয় মুক্তবাজার অর্থনীতি। এখানে শুধু বিক্রেতারা মুক্ত; ক্রেতারা একেবারে নয়।

চালের দাম ঠিক করে দিয়েছেন খাদ্যমন্ত্রী। তিনি বলে দিয়েছেন—নির্ধারিত দাম অনুযায়ী চালকল মালিক ও চাল ব্যবসায়ীরা যদি বিক্রি না করেন, তাহলে বিদেশ থেকে চাল আমদানি করা হবে। বিপরীতে চালকল মালিকরা বলছেন, পাইকারি ও খুচরা বাজারে চালের দাম অনেক বেড়ে যাচ্ছে। খাদ্য মন্ত্রণালয় পাইকারি ও খুচরা বাজার নিয়ে কাজ করে না, শুধু চালকল মালিকদের হুমকি দিলে কী লাভ!

মঙ্গলবার খাদ্যভবনে চালকল মালিক ও চাল ব্যবসায়ীদের সঙ্গে বৈঠকে মন্ত্রী বলেছেন, বাজারে চালের দাম ১৫ দিন আগে যা ছিল, সেই দামেই পুরো অক্টোবর মাস চাল বিক্রি করতে হবে। মিলগেটে ৫০ কেজি ওজনের এক বস্তা মিনিকেট চালের দাম দুই হাজার ৫৭৫ টাকা এবং আটাশ চালের দাম দুই হাজার ২৫০ টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে। অর্থাৎ ভালো মিনিকেট চাল ৫১ টাকা ৫০ পয়সা এবং আটাশ চাল ৪৫ টাকা কেজি বিক্রি করতে হবে। গত এক সপ্তাহে চালের যে পরিমাণ দাম বাড়ানো হয়েছে তা-ও কমাতে হবে। তা না হলে সরকার বিদেশ থেকে চাল আমদানি করবে।

বৈঠকে চাল ব্যবসায়ী ও মিল মালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক বলেন, তাঁরা এখন ৫২ থেকে সাড়ে ৫২ টাকায় মিনিকেট বিক্রি করছেন। এটা খুচরা বাজারে ৬২ থেকে ৬৪ টাকা কেজি হয়ে যাচ্ছে। বিষয়টা তাঁদের বোধগম্য নয়। এ দায় তাঁদের নয়। তাঁরা যদি মিলগেটে সরকারের বেঁঁধে দেওয়া দামে চাল বিক্রি করেন, তাহলেও খুচরা বাজার তাঁদের নিয়ন্ত্রণের বাইরে। খুচরা বাজারে নির্ধারিত দামের কী প্রভাব পড়বে, সেটা তাঁরা বলতে পারবেন না। এটা সরকারের নজরেই রাখতে হবে।

অসাধু চালকল মালিকরা অবৈধভাবে ধান ও চাল মজুদ করেন। এর জন্য চালের বাজার অস্থিতিশীল হয়। তাঁদের বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা নিতে হবে। ভ্রাম্যমাণ আদালতকে কাজে লাগাতে হবে। ঘাটে ঘাটে কমিশন বন্ধ করতে হবে। তাহলেই বাজার নিয়ন্ত্রিত হবে। বাজার অস্থির থাকলে সাধারণ মানুষ সমস্যায় পড়ে, যা হওয়া উচিত নয়। অবৈধ মজুদদারদের ধরার দায়িত্ব সরকারের। সরকার সেটা করুক।

 

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা