kalerkantho

শুক্রবার । ০৬ ডিসেম্বর ২০১৯। ২১ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ৮ রবিউস সানি ১৪৪১     

আয়কর উৎসব

কর আহরণ পদ্ধতি সহজ করুন

১৪ নভেম্বর, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



আয়কর উৎসব

প্রতিবছরের মতো এবারও করসেবা প্রদান ও কর সচেতনতা বাড়াতে দশমবারের মতো দেশব্যাপী আয়কর মেলার আয়োজন করছে জাতীয় রাজস্ব বোর্ড, যা আজ থেকে রাজধানীসহ সারা দেশে শুরু হচ্ছে। রাজধানী ঢাকাসহ বিভাগীয় শহরে সপ্তাহব্যাপী মেলা চলবে ২০ নভেম্বর পর্যন্ত। জেলা-উপজেলা পর্যায়েও মেলা নিয়ে যাওয়া হবে। গত মঙ্গলবার এনবিআর চেয়ারম্যান জানিয়েছেন, দেশের ১৬ কোটি মানুষের মধ্যে চার কোটি মানুষ সামর্থ্যবান আছে। এ সামর্থ্যবানদের মধ্যে আয়কর দেন কমসংখ্যক লোক। তিনি জানিয়েছেন, কর-রাজস্ব আহরণের ক্ষেত্রে আয়কর মেলা অনুপ্রেরণামূলক বিষয় হয়ে দাঁড়িয়েছে। সেখানে করদাতারা উৎসবমুখর পরিবেশে আয়কর বিবরণী দাখিল ও কর পরিশোধ করতে পারেন। তাই প্রতিবছর মেলার পরিধি বিস্তৃত হচ্ছে।

এ কথা ঠিক যে সাধারণ মানুষ আয়কর দিতে চায়। প্রতিবছরের আয়কর মেলায় করদাতাদের উপচে পড়া ভিড় তার প্রমাণ। প্রতিবছর মেলায় মানুষ লাইন ধরে আয়কর প্রদান করে থাকে। অন্যদিকে চাকরিজীবীদের তো আয়কর ফাঁকি দেওয়ার কোনো সুযোগ নেই। সামান্য বেতনে সংসার চলুক আর না চলুক, আয়কর তাঁদের দিতেই হয়। ফলে ‘মানুষ আয়কর দিতে চায় না’—এমন ঢালাও মন্তব্য এখন আর গ্রহণযোগ্য নয়। আয়কর আদায়ের দুর্বলতা ও নিরীহ মানুষকে হয়রানি করার যে প্রবণতা এখন পর্যন্ত রয়ে গেছে, তা থেকে এনবিআরকে বেরিয়ে আসতে হবে। সেই সঙ্গে দূর করতে হবে কিছু জটিলতাও। যারা সক্ষম কিংবা অতি সক্ষম তাদের আয়কর আদায়ের ক্ষেত্রে এনবিআরকে আরো তৎপর হতে হবে। আর সে জন্য সবচেয়ে বেশি প্রয়োজন এনবিআরে কর্মরত লোকজনের সততা, দক্ষতা ও আন্তরিকতার।

কর দেওয়ার সঙ্গে তা আদায়ে রাষ্ট্রীয় সক্ষমতা ও ব্যক্তির সততা দুটিই সংশ্লিষ্ট। রাষ্ট্রকে করের আওতা নির্ধারণ করে দিলেই হবে না, কারা কারা এই আওতায় পড়ে তাদের শনাক্ত করার ব্যবস্থা থাকতে হবে। এই জায়গাটিতে আমরা অনেক অনেক পথ পিছিয়ে আছি। এই পশ্চাৎপদতা রয়েছে ব্যক্তিগত সততার প্রশ্নেও। একবার তালিকাভুক্ত হয়ে গেলেই প্রতিবছর আয়ের রিটার্ন দাখিল করতে হয়। তাই এক শ্রেণির মানুষ নানা কৌশলে তালিকাভুক্তি এড়িয়েও যাচ্ছে। রিটার্ন দাখিলকারীদেরও অনেকে তথ্য গোপন করে কম কর দিয়ে থাকেন বলে অভিযোগ রয়েছে। ফলে বঞ্চিত হচ্ছে রাষ্ট্র। বিশ্লেষকরা দীর্ঘদিন ধরেই বলে আসছেন, বর্তমান অঙ্কের চেয়ে বহুগুণ বেশি কর আদায়ের সুযোগ বাংলাদেশের রয়েছে। সেই সুযোগ কাজে লাগাতে হবে। এনবিআর চেয়ারম্যানের ভাষ্যমতে, আয়কর মেলা থেকে এবার তিন হাজার কোটি টাকা আদায়ের মাইলফলক অর্জনের আশা করা হচ্ছে। গতবারের আয়কর মেলা থেকে প্রায় আড়াই হাজার কোটি টাকার আয়কর আদায় করা হয়েছিল।

সরকারের আয়ের প্রধান উৎস রাজস্ব। আর রাজস্বের প্রধান একটি উৎস আয়কর। আয়কর আহরণ পদ্ধতি সবার জন্য সহজ হোক, এটিই আমাদের প্রত্যাশা।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা