kalerkantho

শনিবার । ২৩ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭ । ৬ জুন ২০২০। ১৩ শাওয়াল ১৪৪১

মহামারির জেরে অর্থনৈতিক বিপর্যয়ের আশঙ্কা

উন্নয়নশীল দেশের ঋণ মওকুফের আহ্বান ডাব্লিউএইচওর

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

৩ এপ্রিল, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



উন্নয়নশীল দেশের ঋণ মওকুফের আহ্বান ডাব্লিউএইচওর

তেদ্রোস আদহানোম

করোনাভাইরাস মহামারির জেরে বিশ্বজুড়েই মন্দার আশঙ্কা করছেন বিশ্লেষকরা। উন্নয়নশীল দেশগুলো যেন সেটা সামাল দিতে পারে এবং জনকল্যাণমূলক কর্মসূচি বাস্তবায়ন করতে পারে, সে জন্য তাদের ঋণ মওকুফ করার আহ্বান জানিয়েছেন বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার (ডাব্লিউএইচও) মহাপরিচালক তেদ্রোস আদহানোম। পাশাপাশি বিশ্বব্যাংক এবং আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিলও একই আহ্বান জানিয়েছে।

বিশ্বব্যাংক, আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিল (আইএমএফ) ও ডাব্লিউএইচওর হয়ে গত বুধবারের প্রেস ব্রিফিংয়ে ওই আহ্বান জানান আদহানোম।

করোনাভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা এরই মধ্যে সাড়ে ১০ লাখ ছাড়িয়েছে এবং মৃতের সংখ্যা ৫০ হাজারের ওপরে। তেদ্রোস বলেন, করোনাভাইরাসে আক্রান্ত ও মৃতের হার গত পাঁচ সপ্তাহে গুণিতক হারে বেড়েছে।

আফ্রিকা, মধ্য আমেরিকা ও দক্ষিণ আমেরিকায় ভাইরাসটির প্রকোপের খবর তেমন পাওয়া যায়নি বটে, তবে এসব অঞ্চলে মহামারির সামাজিক, অর্থনৈতিক ও রাজনৈতিক প্রভাব মারাত্মক হবে বলে ত্রেদ্রোসের আশঙ্কা।

ঝুঁকিপূর্ণ দেশগুলোয় করোনাভাইরাস শনাক্তকরণ, আক্রান্তদের আইসোলেশনে রেখে যথাযথ চিকিৎসা নিশ্চিতকরণ, আক্রান্তদের সংস্পর্শে আসা লোকজনকে চিহ্নিতকরণে এসব দেশকে সংগঠিত করে তোলার ওপর বাড়তি গুরুত্ব দেন তেদ্রোস। সীমিত সম্পদ নিয়েই অনেক দেশ এসব পদক্ষেপ কার্যকরের চেষ্টা চালিয়ে যাওয়ায় তাদের প্রশংসা করেন তিনি।

এ ছাড়া মহামারির রাশ টানতে অনেক দেশে জনগণের চলাচল সীমিত করা এবং তাদের ঘরে থাকার ওপর জোর দেওয়ার কথা উল্লেখ করে তেদ্রোস বলেন, ‘এসব পদক্ষেপ ভাইরাসের সংক্রমণ হ্রাসে সহায়তা করবে, তবে তাতে সবচেয়ে দরিদ্র ও ঝুঁকিপূর্ণ জনগোষ্ঠীর ওপর অনাকাঙ্ক্ষিত বিপর্যয় নেমে আসতে পারে।’

বিপর্যয় ঠেকাতে সংশ্লিষ্ট সরকারগুলোর প্রতি তেদ্রোস আহ্বান জানান, তারা যেন সংকটকালে ঝুঁকিপূর্ণ জনগণের জন্য খাবার ও অন্যান্য প্রয়োজনীয় জিনিসের জোগান নিশ্চিত করতে জনকল্যাণমূলক পদক্ষেপ নেয়। উদাহরণ হিসেবে তিনি ভারতের কথা উল্লেখ করেন। সেখানে মহামারি ঠেকাতে ২১ দিনের লকডাউন ঘোষণা করা হয়েছে। পাশাপাশি অনগ্রসর জনগোষ্ঠীর ৮০ কোটি সদস্যের জন্য বিনা মূল্যে খাদ্য সরবরাহ করা, ২০ কোটি ৪০ লাখ দরিদ্র নারীকে অর্থ সহায়তা দেওয়া, আট কোটি বাড়িতে বিনা মূল্যে গ্যাস সরবরাহ করাসহ দুই হাজার ৪০০ কোটি ডলারের প্যাকেজ ঘোষণা করা হয়েছে। আগামী তিন মাসের জন্য এসব কর্মসূচি ঘোষণা করা হয়।

এমন অনেক উন্নয়নশীল দেশ আছে, যারা ভারতের মতো জনকল্যাণমূলক পদক্ষেপ নিতে গিয়ে হিমশিম খাবে। তারা যেন সহায়তা কর্মসূচি বাস্তবায়ন করতে গিয়ে বিপাকে না পড়ে এবং অর্থনৈতিক ধস ঠেকাতে পারে, সে জন্য এসব দেশের ঋণ মওকুফ করার প্রস্তাব দিয়েছেন ডাব্লিউএইচও মহাপরিচালক তেদ্রোস।

সূত্র : ডাব্লিউএইচওডটআইএনটি।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা