kalerkantho

বুধবার । ১২ মাঘ ১৪২৮। ২৬ জানুয়ারি ২০২২। ২২ জমাদিউস সানি ১৪৪৩

অফিসে ঝটপট ব্যায়াম

অফিসে সারা দিনের কাজে একঘেয়েমি চলে আসাই স্বাভাবিক। ঝটপট কিছু ব্যায়াম শরীরকে যেমন ঠিক রাখবে, তেমনি মনকেও করবে প্রফুল্ল। পরামর্শ দিয়েছেন রেড জিমের প্রতিষ্ঠাতা ও ট্রেইনার মোহাম্মদ রনি। লিখেছেন এ এস এম সাদ

৬ ডিসেম্বর, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ৪ মিনিটে



একটানা ২০ মিনিটের বেশি বসে থাকা স্বাস্থ্যের জন্য খারাপ। যাঁরা চাকরিজীবী তাঁদের একটানা বসে কাজ করতে হয় বেশি। এতে পেশির সংকোচন, প্রসারণ কম হয়। এর প্রভাব পড়ে আমাদের স্বাস্থ্যে।

বিজ্ঞাপন

তাই কাজের মধ্যেই হালকা ব্যায়াম করা ভালো। অফিসেই হালকা ব্যয়াম করলে শরীর ও মন দুই-ই ভালো থাকবে। কাঁধ ওপর-নিচ করা, হাতের কবজি ঘোরানো, পা টান টান করা, ব্যাক হাগের মতো সহজ ব্যায়ামও হতে পারে অনেক উপকারী।

কাঁধ ওপর-নিচ করা

অফিসের ডেস্কে একটানা বসে থাকলে ঘাড়ে ব্যথা অনুভব হয়। কারণ একভাবে কম্পিউটার ব্যবহার করলে কিংবা অনেকক্ষণ ধরে মাথা কাত করে কিছু করলে ঘাড় ধরে যায়। ‘শোল্ডার শারগস’ ব্যায়াম করলে ঘাড়ে ব্যথা অনুভব হয়না। কারণ এই ব্যায়াম রক্ত সঞ্চালনে সহায়তা করে। তাই অফিসের ডেস্কে একটানা বসে কাজ করার মধ্যে কাঁধ ওপর-নিচ করে ব্যায়ামটি করে ফেলুন। এতে করে ঘাড়ের পেশি শক্ত হয়ে যাওয়া, আড়ষ্টতা এবং মানসিক চাপ অনেকাংশে দূর হয়ে যাবে।

পা টান টান করা

ডেস্কে একভাবে বসে থাকার কারণে সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয় আমাদের দেহের নিচের অংশ। এতে শরীরে রক্ত সঞ্চালন কমে যায়, মেদও বাড়তে থাকে। কাজের মধ্যে পা লম্বা করে পেশিতে টান টান করুন। পা টান টান করেছড়িয়ে দিন ডেস্কের নিচেই। এতে রক্ত সঞ্চালন বেড়ে যায়, আবার পায়ে শক্তি ফিরে আসে। পায়ে যথেষ্ট পরিমাণে শক্তি প্রয়োজন, কারণ আমাদের শরীরের ভর বহন করে পা।

 

হাঁটুন

একটানা বসে কাজ করলে বিরক্ত আসতে পারে কারো কারো মধ্যে। একঘেয়েমি চলে আসাও স্বাভাবিক। এ জন্য তাই কয়েক মিনিটের জন্য অফিসের বাইরে হাঁটাচলা করে আসতে পারেন। কিংবা নিজের চা, কফি নিজেই বানিয়ে খেতে পারেন। এতেও কিন্তু ডেস্ক ছেড়ে ওঠার অভ্যাস তৈরি হয়।

সাইড বেন্ডস

মেঝেতে দাঁড়িয়ে আপনার এক হাতকে মাথার পেছনে বা কোমরে রাখুন এবং অন্য হাতটি সোজা রাখুন। তারপর ওপরে তোলা হাত সোজা রেখে কোমরে ধরা হাতের দিকে যত দূর সম্ভব বাঁকা হতে চেষ্টা করুন। এভাবে ২০ বার করার পর অন্য হাতের পাশেও একইভাবে চেষ্টা করুন। এটি আপনার পেটের মেদ কমাতে সহায়তা করবে।

স্কোয়াট

একটি শক্তিবর্ধক ব্যায়াম, যাতে দাঁড়িয়ে থাকা অবস্থায় বসার মতো ভঙ্গি করে নিতম্ব-অঞ্চল নিচে নামায়, আবার উঠে দাঁড়ায়। এই ব্যায়াম শরীরের নিম্নাংশের পেশির শক্তি ও আকার বৃদ্ধি করে।

হাতের কবজি ঘোরানো

হাত সামনে সোজা বাড়িয়ে ধরে কবজি ঘড়ির কাঁটার দিকে এবং বিপরীতে ঘুরান আধা মিনিট। যাঁরা সব সময় ডেস্কে বসে প্রযুক্তির ব্যবহার করেন, অর্থাত্ কম্পিউটার চালানো বা হাতের কাজ একটানা করেন তাঁদের জন্য হাত ঘোরানোর ব্যায়ামটি অত্যন্ত উপকারী। এতে করে হাতের কবজির পেশি, রগ এবং শিরা-উপশিরায় রক্ত সঞ্চালন বৃদ্ধি হবে। এ ছাড়া এই ধরনের ব্যায়ামের মাধ্যমে হাতের পেশিশক্তি মজবুত হয়।

ব্যাক হাগ

নিজের দুই হাত কাঁধের পেছনে রাখুন। এবার গভীরভাবে নিঃশ্বাস নিন ও ছাড়ুন পাঁচ-ছয়বার। এই ব্যায়ামের ফলে আপনার বুক, পেট এবং হাতের ব্যায়াম হবে এবং এতে শ্বাসনালির সমস্যা থেকেও রেহাই পাবেন।

ট্রাইসেপ

অফিসে শক্ত ও মজবুত টেবিল থাকলে ট্রাইসেপ ব্যায়ামও করতে পারেন। চেয়ারের সামনে গিয়ে চেয়ারে হাত রাখুন। এবার শূন্যে বসুন। ১০ সেকেন্ড করে কয়েকবার করতে পারেন। এই ব্যায়ামটি হাতের পেশিকে সবল করে তোলে।

 

 

অফিসকালীন এই ব্যায়ামগুলো আপনাকে সারা দিন চনমনে ও ফুরফুরে থাকতে সাহায্য করবে। কাজে আরো মনোযোগ আনতে সাহায্য করবে।

পাশাপাশি মোটা হওয়া ও মেদ ঝরাতেও উপকার দেবে।



সাতদিনের সেরা