kalerkantho

বুধবার । ১ বৈশাখ ১৪২৮। ১৪ এপ্রিল ২০২১। ১ রমজান ১৪৪২

বাউন্সি চুল পেতে

যাঁরা বাউন্সি চুল পছন্দ করেন তাঁরা নিয়মিত চুলের যত্নে কিছু টিপস মেনে চলুন। খুব সহজেই পাবেন বাউন্সি চুল। পরামর্শ দিয়েছেন রেড বিউটি স্যালনের রূপ বিশেষজ্ঞ আফরোজা পারভীন। লিখেছেন এ এস এম সাদ

১ মার্চ, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ৪ মিনিটে



বাউন্সি চুল পেতে

ডিম ব্যবহার

চুলের যত্নে কাঁচা ডিম উপকারী। মেহেদির সঙ্গে ডিম ফেটিয়ে চুলে লাগিয়ে রাখুন। আধা ঘণ্টা পর শ্যাম্পু করে ফেলুন। প্রতি মাসে দুই-তিনবার এই প্যাক ব্যবহার করলে চুল ঘন হয়। ডিমের প্যাক প্রোটিন ট্রিটমেন্ট হিসেবে কাজ করে। চুল শক্ত ও মজবুত হয়। ফলে আপনার চুল হয় অনেকটা বাউন্সি। এ জন্য  চুলের ঘনত্ব ও দৈর্ঘ্য অনুযায়ী একটি বা দুটি ডিম ফেটিয়ে চুলে লাগান। ডিমের গন্ধ বেশি খারাপ লাগলে সঙ্গে কোনো সুগন্ধি তেল মেশাতে পারেন।

মেথি

চুলের যত্নে মেথির ব্যবহার বহু পুরনো। রান্নাঘরেই পেয়ে যাবেন বাউন্সি চুলের এই অসাধারণ উপকরণ। যেদিন ব্যবহার করবেন, তার আগের দিন সারা রাত পানিতে মেথি ভিজিয়ে রাখুন। পরদিন সকালে ভালোভাবে বেটে চুলের গোড়ায় লাগিয়ে রাখুন এক ঘণ্টার মতো। তারপর পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। চুল ঘন করার পাশাপাশি চুল হবে নরম ও শাইনি। সপ্তাহে মাত্র একদিন ব্যবহার করলে এক মাসেই ফল বুঝতে পারবেন।

 

আমলকী

চুলের যত্নে আমলকীর ব্যবহার বহুবিধ। যাঁদের চুলের গোড়া নরম, সহজে চুল উঠে যায় তাঁরা এই ঔষধি ফলটি ব্যবহার করতে পারেন। এতে চুল পড়াও কমে আসবে। আমলকী চুলের স্বাভাবিক বৃদ্ধি ও সাদা হওয়া থেকে রক্ষা করে। চুলকে করে উজ্জ্বল। ঘরেই আমলা তেল তৈরি করতে পারেন। আমলা তেল নিয়মিত ব্যবহার করলে সবচেয়ে ভালো ফল পাওয়া যায়। এ ছাড়া বাজারে আমলকীর গুঁড়া পাওয়া যায়। এটাও ব্যবহার করতে পারেন চুলের প্যাকের সঙ্গে।

 

জবা ফুল

জবা ফুল চুল ঘন করার পাশাপাশি অল্প বয়সে চুল সাদা হয়ে যাওয়া রোধ করে। জবা ফুলের পেস্ট তৈরি করে নারকেল তেলের সঙ্গে মিশিয়ে চুলের গোড়ায় লাগিয়ে রাখুন। ২০ মিনিট পর শ্যাম্পু করে চুল ধুয়ে ফেলুন। শুকানোর পর চুল বাউন্সি দেখাবে।  

 

চুলে মধু লাগান

চুলের ঔজ্জ্বল্য যত বাড়ে চুলের বাউন্সি ভাবও তত বাড়ে। মধু চুলের উজ্জ্বলতা বাড়াতে দারুণ কাজে দেয়। এক কাপ কন্ডিশনারের সঙ্গে দুই থেকে তিন টেবিল চামচ মধু ভালোভাবে মিশিয়ে নিন। এরপর মিশ্রণটি ভেজা চুলে লাগান। ৩০ মিনিট রাখার পর ভালোভাবে চুল ধুয়ে ফেলুন। এটা মাথার  ত্বক ভালো রাখে, সেই সঙ্গে চুলের ঔজ্জ্বল্য বাড়ায়।

 

ভিনেগার ব্যবহার

চুল বাউন্সি করে তোলার জন্য আপেল সাইডার ভিনেগার বেশ উপকারী। হালকা গরম পানির সঙ্গে ভিনেগার মিশিয়ে চুলে লাগান। এতে অনেকটা দুর্গন্ধ হয়। গন্ধ থেকে মুক্তি পাওয়ার জন্য পাঁচ মিনিট পর এটি ধুয়ে ফেলুন। কম সময়েই বাউন্সি চুলের যত্নে কাজে দেয় ভিনেগারের ব্যবহার।

 

সঠিক নিয়মে চুল আঁচড়ান

বাউন্সি চুলে জট সমস্যা বেশি দেখা দেয়। এ জন্য জট ঝামেলা এড়াতে চুল আঁচড়ানোর সময় প্রথমে চুলের শেষের অংশ আগে আঁচড়ে নিন। তারপর চুলের গোড়া থেকে আগা পর্যন্ত লম্বা করে আঁচড়ে নিন। এই কৌশল চুলে প্রাকৃতিক তেল ছড়িয়ে যেতে সাহায্য করে এবং চুল ভাঙার সমস্যা কমায়।

 

ভেজা চুল না আঁচড়ানো

ভেজা চুল আচড়ানো উচিত নয়। কারণ শুকনো চুলের তুলনায় ভেজা চুল তিন গুণ বেশি দুর্বল থাকে। তাই ভেজা চুল আঁচড়ালে চুল ভেঙে যাওয়ার আশঙ্কা বেশি থাকে। এ জন্য ভেজা চুল তোয়ালে দিয়ে ভালোভাবে মুছে বাতাসে শুকিয়ে নিতে হবে। হেয়ার ড্রায়ার বা গরম রোলারের সাহায্যে চুল শুকানো ঠিক নয়। যতটা সম্ভব প্রাকৃতিক বাতাসে চুল শুকানো উচিত। বিদ্যুত্চালিত হেয়ার ড্রায়ার ব্যবহারের ফলে চুল বেশি রুক্ষ হয়ে যায়। যদি নিতান্তই সময় না থাকে, তাহলে ড্রায়ার যথেষ্ট দূর থেকে ব্যবহার করুন।

 

সুষম খাবার

চুল ভালো রাখার জন্য প্রচুর পরিমাণে পানি, ফল ও শাকসবজি খাওয়া উচিত। চুলের যত্নে সুষম খাবার গ্রহণ করা সবচেয়ে বেশি কার্যকর। সুন্দর চুল ও ত্বকের জন্য বাহ্যিক পরিচর্চার পাশাপাশি ভেতর থেকে পুষ্টি সমান প্রয়োজনীয়। এ জন্য বেশি বেশি ফলমূল, শাক-সবজি ও পানি পান করুন।

মন্তব্য